১১:৩২ এএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

মোদীর বন্ধুত্ব, আহা ! মানবতা !

০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৯:৫৭ এএম | রাহুল


রাজু আহমেদ : ভারত বাংলাদেশের বন্ধু রাষ্ট্র, এটা যারা স্বীকার করে তাদের সাথে ঝগড়ায় পরে আসছি ! সম্প্রতি ব্রিকস সম্মেলন শেষে চীন থেকে সরাসরি মায়ানমার সফরে গিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মায়ানমারের গণতন্ত্রের জননী খ্যাত অং সাং সুচীকে ভরসা দিয়ে বলেছেন, ভারত সর্বাত্মকভাবে মায়ানমারের পাশে আছে ।  প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সাথে বন্ধু সূলভ সম্পর্ক উদারনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রকাশ বটে কিন্তু এটা এমন সময়ে যখন মায়ানমার-ভারত সীমান্ত দিয়ে লাখখানেক রোহিঙ্গা শরনার্থীকে বিএসএফ মরনমুখে পুশ ব্যাক করেছে এবং যা হাজার কয়েক রোহিঙ্গা ভারতে প্রবেশ করতে সক্ষম হয়েছিল তাদেরকেও ভারতের বিদেশ মন্ত্রক অবৈধ অভিবাসী আখ্যা দিয়ে অবিলম্বে ভারত থেকে বের করার ঘোষণা দিয়েছে ।  ভারতের নাকের ডগায় মানুষ হত্যার এমন বর্বোরোচিত কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে মোদী একটি কথাও উচ্চারণ না করে বরং সূচী সরকারের কর্মকান্ডের প্রতি প্রকাশ্য সমর্থণ দিয়ে তিনি বাংলাদেশের সাথে ভারতের বন্ধুত্বকে কোন পর্যায়ে নিয়ে গেলেন ? পন্ডিতেরা ভাবুক !

সম্প্রতি জাতিসংঘ স্বীকার করেছে, স্বভূমে উদ্বাস্তু তিন লক্ষাধিক রোহিঙ্গা মায়ানমারের আরাকান থেকে বিতারিত হয়ে বাংলাদেশের পার্বত্য জেলায় আশ্রয় নিয়েছে ।  আরও লাখ চারেক আশ্রয়ের প্রত্যাশায় সীমান্তে অপেক্ষমান এবং নিত্যদিন আরাকান থেকে বাংলাদেশমুখী রোহিঙ্গার ঢল নামছে ।  বাংলাদেশ সরকার শুরুতে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে প্রবেশের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স দেখালেও বিগত কয়েকদিনে বেশ যত্নসহকারেই তাদেরকে কেবল মানবিকতার খাতিরে গ্রহন করছে ।  ইতোমধ্যে মুসলিম বিশ্বের বেশ কিছু দেশ রোহিঙ্গাদের জন্য খাদ্য সাহায্যের ঘোষণা দিয়েছে এবং তুরস্কের ফার্স্ট লোডিসহ বেশ কয়েকজন উচ্চপদস্থ মন্ত্রী-কর্মকর্তা পরিস্থিতি সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করে অশ্রু বিসর্জন দিয়ে গেছেন । 

মানবিকতার খাতিরে রোহিঙ্গাদের দিকে সাহায্যের হাত প্রসারিত করার জন্য বাংলাদেশ অবশ্যই বিশ্ব দরবারে প্রশংসিত হবে এবং কিছুটা ফায়দাও পাবে কিন্তু আখেরে কোন সর্বনাশ ঘটার সম্ভাবনা কি একেবারেই উড়িয়ে দেয়া যায় ? যে পার্বত্য অঞ্চলে রোহিঙ্গারা আশ্রয় নিয়েছে এটা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের তীর্থভূমি হিসেবে পরিচিত ।  বাংলাদেশের অখন্ড সার্বভৌমত্বকে বিলীণ করার ষড়যন্ত্রকারীদের প্রথম টার্গেট বাংলাদেশের এ অঞ্চল বিচ্ছিন্ন করা ।  বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীর বৃহৎ শক্তি এখানে নিয়োজিত করা হয়েছে শুধুমাত্র সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঠেকাতে, তাও সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ।  পার্বত্য অঞ্চল নিয়ে এমনিতেই দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের শেষ নাই, তার ওপর লাখ কয়েক রোহিঙ্গাকে এখানে আশ্রয় দেয়ায় পরিস্থিতি যে অচিরেই বাংলাদেশের জন্য অস্বস্তিদায়ক হবে না এমন নিশ্চয়তা মোটেও নাই বরং শঙ্কা আছে বহুগুন ।  রোহিঙ্গা সমস্যা বাংলাদেশের জন্য নতুন নয় বরং বিংশ শতাব্দীর শেষভাগ জুড়ে স্বভূমে অত্যাচারের শিকার হয়ে এরা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিচ্ছে ।  এদের সবাই যে এখানে এসে সভ্য আচরণ করছে তাও ঠিক নয় ।  কাজেই রোহিঙ্গা কেন্দ্রিক ইস্যূকে সরকার কতটা বুদ্ধিমত্তার সাথে সামলাতে পারবে তার সন্তোষজনক সমাধান সময় সাপেক্ষ । 

ভারত যে বাংলাদেশের বন্ধু-এটা বাংলাদেশ সরকারের উচ্চামার্গের কর্তাব্যক্তিরা জনতাকে বোঝাতে মুখে ফেনা তুলে ফেলেন ।  এমনকি ভারতবাসীর একাংশ প্রধানত যারা যখন সেখানের ক্ষমতায় থাকে তার প্রধানরাও মাঝে মাঝে বলেন, বাংলাদেশের সাথে ভারতের সম্পর্ককে তারা আরও উচ্চতায় নিয়ে যেতে চান, আরও পাশাপাশি, আরও কাছাকাছি, আরও লাগালাগি ! অথচ ভারত কর্তৃক বাংলাদেশ সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া নির্মান শেষ হয়েছে বলে ঘোষিত হয়েছে ।  প্রতিবেশী আচারে যতই নেমকহারাম হোক আমরা তাদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক বহাল রেখে চলার সর্বাত্মক চেষ্টা করছি ।  কখনো কখনো আমাদের জাতীয় স্বার্থ বিঘ্নিত হয়ে তাদের স্বার্থ রক্ষিত হয়েছে-এমন ঘটনা বিরল নয় বরং অতীত সম্পর্কের অলিগলি আঁতিপাঁতি করে না খুঁজলেও সে দৃষ্টান্ত ঢের পাওয়া যাবে ।  অথচ মোদীজী রোহিঙ্গা ইস্যূতে বাংলাদেশের ভয়ানক সমস্যা, মানবতার প্রতি তীব্র আঘাতকে অন্ধচোখে দেখে কিরূপে মায়ানমার সরকারের পাশে লাগালাগির সম্পর্কের বাহুডোরে বাঁধলেন তা শুদ্ধকূটনীতি ব্যাখ্যা করতে ব্যর্থ হবে ।  মোদীজীর আচরণে এ জাতিকে ভাবিয়ে তুলছে বোধহয়, ভারত কি বাংলাদেশের বন্ধু নাকি সর্বগ্রাসী শত্রু ?

দুঃখ কারো জন্যই চিরকাল স্থায়ীত্ব পায়না ।  রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুদের ওপর মায়ানমার কর্তৃপক্ষ যে বর্বোরোচিত আচরণ করছে তা কোন যুক্তিতেই গ্রহনযোগ্য নয় ।  বর্তমান সময় হাজার হাজার মানুষকে হত্যার দায়ে ইতিহাস অবশ্যই অং সাং সুচীকে মানবতা বিরোধী অপরাধের দায়ে দন্ড দেবে ।  রোহিঙ্গা ইস্যূ নিয়ে বিশ্ব নেতা ও সংগঠনগুলো প্রতিবাদমূখর হতে শুরু করেছে ।  অচিরেই হয়ত একটা গ্রহনযোগ্য সমাধান নিশ্চিত হবে কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ার নব্য মোড়ল তথা ভারতের প্রধানমন্ত্রী যে ভূমিকা নিলেন তাতে কালো অধ্যায়ের সূচনা তার কর্মকান্ডের সাথে লেপিত থাকলো ।  রোহিঙ্গারা অন্ধকার ভেদ করে আলোর দেখা পেলেও মোদীর ভূমিকাকে আর আলোবরণ করানো যাবে কিনা তা বলা মুশকিল ।  শুরুতে বলেছিলাম ঝগড়ার কথা ! আজকে নাইবা ঝগড়া করলাম ।  সবার সাথে বন্ধুত্বই থাক ! 

Abu-Dhabi


21-February

keya