৯:৫৩ পিএম, ১৬ জুলাই ২০১৮, সোমবার | | ৩ জ্বিলকদ ১৪৩৯


মান্দায় ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে পুড়েছে দুই শতাধিক বিঘার জমি বোরো ধান

১৬ এপ্রিল ২০১৮, ০১:২০ পিএম | জাহিদ


এস.এ.সিরাজুল ইসলাম, মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর মান্দায় ইট ভাটার বিষাক্ত গ্যাসে পুড়ে নষ্ট হয়ে গেছে দুই শতাধিক বিঘার জমির চলতি মৌসুমের বোরো ধান। 

উপজেলার মল্লিকপুর ও শ্রীরামপুর মাঠে এই ক্ষতি সাধন হয়েছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ পাওয়া গেছে।  ঘটনার ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা শনিবার উপজেলার নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন।  বিষয়টি তদন্তের জন্য পৃথক তিনটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।  এদিকে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী মুহাঃ ইমাজ উদ্দিন প্রামানিক এম.পি রোববার বিকেলে ক্ষতিগ্রস্থ মাঠ দুইটি পরিদর্শন করেন।  তিনি এই বিষয়ে জরুরী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রসাশনকে নির্দেশ দেন। 

এসময় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের নওগাঁ জেলার উপ পরিচালক মনোজিত কুমার মল্লিক ইউএনও মুশফিকুর রহমান, উপজেলা কৃষি অফিসার জাহাঙ্গীর, থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনিসুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের মোল্লা এমদাদুল হক, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সরদার মোঃ জসিম উদ্দিন, কালিকাপুর ইউপি চেয়ারম্যান অধক্ষ্য আঃ আলিম, তেঁতুলিয়া আওয়ামীলীগের সভাপতি ব্রজেন্দ্রনাথ, সাধারণ সম্পাদক আঃ সাত্তার সহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। 

জানা গেছে,  উপজেলার শ্রীরামপুর মৌজার ফসলি ভাটা নির্মাণ করে ইটকাটা ও পোড়ানোর কাজ করে আসছিলেন বিএসবি মেসার্স এর সত্বাধিকারী নারায়নপুর গ্রামের গুলবর রহমান এবং আরেক সত্বাধিকারী প্রদীপ মৃধা।  বৃহস্পতিবার রাতে ঐ ভাটার বিষাক্ত গ্যাস ছেড়ে দেওয়া হয়।  এতে করে মুহুর্তের মধ্যে মল্লিকপুর ও শ্রীরামপুর মাঠের শত শত বিঘার জমির ইরি বোরো পুড়ে নষ্ট হয়ে গেছে।  ফসল কাটার মুহুর্তে ধান ক্ষেত পুড়ে যাওয়ায় কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছেন কৃষকেরা। 

কৃষক আনিসুর রহমান এই প্রতিবেদককে জানান, শ্রীরামপুর মাঠে চলতি মৌসুমে তারা বোরো ধানের চাষ করেছেন।  মাঠের ক্ষেত গুলোতে পুরোদমে শিষ বেরিয়েছে।  দশ থোে পনের দিনের মধ্যে পুরো দমে ধান কাটা শুরু হবে।  এঅবস্থায় ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাস তাদের ক্ষেতগুলোকে পুরােদমে নষবট করেে দিয়েছে।  অনাথ শিলা কৃষকশহিদুল ইসলাম তাজ উদ্দিন সহ অনেক কৃষক জানায় ইটভাটার গ্যাসে শ্রীরামপুর মাঠে রোপিত বোরো ধানের ক্ষেতগুলো পুড়ে ধানের শিষ সাদা আকার ধারণ করেছে। 

শুক্রবার দুপুর থেকে ক্ষেতগুলো এঅবস্থা দেখে তাদের পথে বসার উপক্রম হয়েছে।  স্খানীয় কৃষকদের অভিযোগ শুধু বোরো ধানের ক্ষেতই নয় ভাটার গ্যাসে নষ্ট হয়েছে গছে।  আশেপাশের আমের গুটি।  ফসলী মাঠে স্থাপিত ইটভাটাটি বন্ধের দাবী জানান এলাকাবাসী।  ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা উপজেরা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ দায়ের করেন।  উটভাটার মালিক গুলবর রহমান বোরো ধান ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার কথা শিকার করে বলেন ক্ষয়ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার জন্য কৃষকদের তালিকা তৈরি করে অর্থ প্রদান করা হবে। 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে শনিবার দুপুরে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।  এসময় কৃষকদের দাবীর প্রেক্ষিতে তাৎক্ষনিক পৃথক তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।  তেঁতুলিয়া ইউপির চেয়ারম্যান ব্রজেন্দ্রনাথ সাহাকে এই কমিটির প্রধান করা হয়েছে।  তিনি কমিটির সদস্য সচিব রয়েছেন।  এছাড়া দুইজন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা, স্থানীয় ইউপি সদস্য।  সংশ্লিষ্ট গভীর নলকুপের সভাপতি সম্পাদক সহ ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা কমিটি সদস্য রয়েছেন। 

মান্দা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খন্দকার মুশফিকুর রহমান সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন অভিযোগের পর ঘটনা তদন্ত উপজেলা কৃষি অফিসার জাহাঙ্গীর আলমকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তদন্ত প্রতিবেদন পেলে এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।