৫:৪৫ এএম, ১৯ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ৬ জ্বিলকদ ১৪৩৯


মানবতার বার্তা নিয়ে হিংগলা বৌদ্ধ অনাথালয়ে জমির উদ্দিন

১২ জুলাই ২০১৮, ০৯:৩১ পিএম | মাসুম


প্রদীপ শীল, রাউজান: লবন দিয়ে পান্তাভাত, কখনো নিজেদের হাতে রান্না করা শাক-সবজি দিয়ে ভাত খেয়ে, আবার কখনো অনাহারে অর্ধহারে দিন চলে রাউজানের হিংগলা এলাকার একটি বৌদ্ধ অনাথালয়ের শিশুদের।  মাছ, মাংস কখনো চোখে দেখেনি তারা।  প্রতি মাসে একটি ডিম খেতে দিতো কর্তৃপক্ষ।  চিকিৎসা সেবা পাওয়া তো দূরের কথা, জোটে না একটি নাপা ট্যাবলেটও।  দীর্ঘদিন ধরে মানবেতর জীবন যাপন করে আসছে অনাথালয়ের অবহেলিত এসব শিশুরা। 

সম্প্রতি ওই অনাথালয়ে অমেচিং মারমা নামের এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার নিয়ে দেশ জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হলে বিভিন্ন অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়ায় উঠে আসে অনাথালয়ের শিশুদের খাবার ব্যবস্থাপনাসহ নানা অব্যবস্থাপনার কথা। 

এসব অব্যবস্থাপনার বিষয়টি রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র (২) ও রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজের দৃষ্টিগোচরে আসলে তিনি বৃহস্পতিবার (১২ জুলাই) দুপুরে উন্নতমানের খাবার নিয়ে অনাথালয়ে ছুটে যান।  তাদের পাশে বসে খাবার খাওয়ানোর পর অনাথালয়টি পরিদর্শন করেন। 

এলাকায় একজন পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে যথেষ্ট পরিচিতি রয়েছে জমির উদ্দিন পারভেজের।  নিজ মেধা ও যোগ্যতায় তিনি জয় করেছেন এলাকার মানুষের মন।  মানবতাবাদী এই যুবনেতা মানুষের জন্য কিছু করার মাঝেই আত্মতৃপ্তি লাভ করেন। 

পত্রিকায় অনাথ শিশুদের অসহায়র্ত্বের বর্ণনা পড়ে কোমলমতি শিশুদের জন্য দুপুরে ভাত, মাংস, ডিম,সালাদ, বিশুদ্ধ খাওয়ার পানি, ও কয়েক প্রকার বিস্কিুট নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। 

এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘অনাথালয়ের শিশুদের অবহেলার চিত্র দেখে আমাকে বিস্মিতকরেছে।  যে বয়সের শিশুরা মা-বাবার সঙ্গে থাকার কথা তারা অনাথালয়ে।  এসব শিশুদের দেখে চোখের জল ধরে রাখতে পারিনি।  ওরাতো আমাদের সন্তান, আমি জানতাম না এ অনাথালয়ের শিশুরা মানবেতর জীবন-যাপন করছে।  এখন থেকে আমি ওদের পাশে থাকবো।  অবহেলিত মানুষগুলোর কষ্টগাঁথা জীবন আমাকে ব্যতিত করে। ’

এসময় জমির উদ্দিন পারভেজ কলেজে পড়ুয়া এক উপজাতিয় ছাত্রের লেখা পড়ার দায়িত্ব নেন। 

এছাড়া তিনি অনাথ শিশুদের থাকার ঘরে বৈদ্যুতিক পাকা দেয়া প্রতিশ্রুতি দেন।  এসময় উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা
ছাত্রলীগের সভাপতি জিল্লুর রহমান মাসুদ, সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন পিবলু,রাউজান পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আসিফ, স্থানীয় ইউপি সদস্য আজাদ হোসেন, মহিলা ইউপি সদস্যা রিংকু মুৎসিদ্দি, শ্রমিক নেতা রনজিত,মোহাম্মদ ছাবের হোসেন, নাছির উদ্দিন প্রমূখ। 

মুঠোফোনে বাংলাদেশ মানবিক সংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি জ্যোতি সারা ভিক্ষু বলেন, জমির উদ্দিন পারভেজ ভাই অবুঝ বাচ্চাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য তার প্রতি কৃতজ্ঞ, দীর্ঘদিন অবহেলায় পড়ে থাকা এসব শিশু একজন অভিভাক পেয়েছেন। ’বট গাছের ছায়ার মতো এসব শিশুর কল্যাণে পাশে থাকবে কাউন্সিলর পারভেজ ভাই।