১:০৪ এএম, ২০ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ১৬ শাওয়াল ১৪৪০




মেরকেলের কোয়ালিশন প্রচেষ্টা ব্যর্থ, সংকটে জার্মানির রাজনীতি

২১ নভেম্বর ২০১৭, ১১:৫৪ এএম | নকিব


এসএনএন২৪.কম : চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের সরকার গঠনের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে জার্মান।  ফলে দেশটিতে অনির্ধারিত জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। 

এর মধ্য দিয়ে ইউরোপের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশটি এক ধরনের গভীর রাজনৈতিক সংকটে পতিত হলো - মেরকেলের ১২ বছরের শাসনামলের সবচেয়ে গভীর সংকট হিসেবে দেখা হচ্ছে একে।  খবর আলেমান জাইতুং, এএফপি। 

সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে মেরকেলের দল জয়লাভ করলেও আগের থেকে তাদের আসনসংখ্যা কমে যায় এবং সরকার গঠন করার জন্য অন্য দলগুলোর সঙ্গে কোয়ালিশন করার প্রয়োজন পড়ে।  মেরকেলের কনজারভেটিভ, ব্যবসাবান্ধব ফ্রি ডেমোক্র্যাটস (এফডিপি) এবং পরিবেশবাদী গ্রিনস পার্টি এই কোয়ালিশন করার চেষ্টা করে। 

দলগুলোর রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ‘জ্যামাইকা কোয়ালিশন’ আখ্যা দেয়া এই কোয়ালিশনটিকে দেখা হচ্ছিল সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত ভোটের পর একটি স্থিতিশীল সরকার গঠনের একমাত্র উপায় হিসেবে। 

তবে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে অভিবাসীদের আশ্রয়দান, কর ও পরিবেশনীতি নিয়ে আলোচনার পর রোবরার মধ্যরাতের একটু আগে হঠাৎ করেই ফ্রি ডেমোক্র্যাটরা নিজেদের এই আলোচনা থেকে সরিয়ে নেয়।  ফ্রি ডেমোক্র্যাটদের নেতা ক্রিশ্চিয়ান লিন্ডনার জানান, মেরকেলের কনজারভেটিভ জোট (মেরকেলের মূল দল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন এবং বাভারিয়ার ক্রিশ্চিয়ান সোস্যাল ইউনিয়ন) এবং পরিবেশবাদী গ্রিনদের সঙ্গে ঐক্য করতে ‘আস্থার ভিত্তি’ নেই। 

লিন্ডনার বলেন, খারাপভাবে শাসন করার চেয়ে শাসন না করাই ভালো।  তিনি আরো বলেন, এ দলগুলো জার্মানিকে আরো এগিয়ে নেয়ার ব্যাপারে কোনো যৌথ দৃষ্টিভঙ্গি রাখে না।  এফডিপির এই সিদ্ধান্তে অসন্তুষ্ট মেরকেল অবশ্য জার্মানিকে এ বিপদের মুহূর্তে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। 

চ্যান্সেলর হিসেবে আমি সবকিছুই করব— যাতে এই সংকটময় মুহূর্ত থেকে দেশ ভালোমতো বেরিয়ে আসে। 

গ্রিন দলের প্রধান ক্যাটরিন গোরিং একহার্ডও জোট প্রচেষ্টা ব্যর্থ করার জন্য এফডিপিকে দায়ী করেন।  গত নির্বাচনে ৯ শতাংশ ভোট পাওয়া গ্রিন দলের নেতা বলেন, আমরা কিছু বিষয়ে দ্বিমত পোষণ করেছি, তবে আমি নিশ্চিত আরো কিছু সময় নিলে সেগুলোতে আমরা ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারতাম। 

জোট গঠনের চেষ্টা ভেঙে যাওয়ার ফলে মেরকেলের সামনে যেসব বিকল্প থাকল সেগুলোর কোনোটাই খুব বেশি জুতসই নয়।  এর একটি হচ্ছে গ্রিনদের সঙ্গে মিলে সংখ্যালঘু সরকার গঠন।  তবে জার্মানিতে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে এ জাতীয় সরকার কখনই গঠিত হয়নি।  আরেকটি হচ্ছে, মেরকেলের গত সরকারের অংশীদার মধ্য-বাম সোস্যাল ডেমোক্র্যাটদের সঙ্গে জোট করা।  যেটি হবে জার্মানির দুটি বৃহত্তম দলের মধ্যে গ্র্যান্ড কোয়ালিশন। 

তবে সোস্যাল ডেমোক্র্যাটরা বারবার এ সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছে।  এ রকম কোনো সম্ভাবনার কথা তারা রোববারেও উড়িয়ে দেয়। 

এর ফলে দেশটিতে স্বল্প সময়ের মধ্যে আরো একটি নির্বাচন দেয়া ছাড়া উপায় থাকবে না জার্মানির প্রেসিডেন্ট ফ্রাংক ওয়াল্টার স্টেইনমেয়ারের।  সোমবার এ বিষয় নিয়ে আলাপের জন্য মেরকেলের তার সঙ্গে  দেখা করার কথা ছিল।  তবে আবার নির্বাচন হলে উগ্র-ডানপন্থি দল অল্টারনেটিভ ফর জার্মানি (এএফডি) আরো জাঁকিয়ে বসতে পারে।  ইসলামবিদ্বেষী এবং অভিবাসনবিরোধী প্রচারণা চালানো দলটি গত নির্বাচনে ১২ দশমিক ৬০ শতাংশ ভোট পেয়েছিল।