৪:৪১ এএম, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার | | ২৪ জ্বিলকদ ১৪৪১




শীতে বিপর্যস্ত জীবন উপকূল জুড়ে ঘন কুয়াশা

২৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:১২ পিএম | নকিব


দেলোয়ার হোসাইন পিরোজপুরঃ-সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে উপকূলীয় জেলা পিরোজপুরসহ সমগ্র উপকূল জুড়ে ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন হয়ে যায় নদ- নদী ও জনপথ। 

বুধবার বেলা ১১ টার পর সূর্যের দেখা পান উপকূল বাসি।  দিন রাত বইছে ঠান্ডা হাওয়া শীতে বিপর্যস্ত জীবন।  তীব্র কুয়াশার কারণে উপকূলীয় নদ-নদীতে নৌযান ও সড়কে গাড়িও নিজস্ব গতিতে চলতে পারছেনা। 

বুধবার সরকারি ছুটি থাকায় রাস্তা ঘাটে মানুষের চলাচল ছিল কম।  একান্ত প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘরের বাহির হননি। 

গত কয়েক দিন দেশের অন্যান্য স্থানের ন্যায় পিরোজপুর জেলাতেও দিন ও রাতের তাপ মাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকায় শীত কমেনি।  শীতের প্রকোপে শিশু ও বয়স্ক মানুষের পাশাপাশি গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে পড়তে হচ্ছে ভুক্তভোগিদের।  বাড়ছে ঠান্ডা জনিত রোগ-বালাই। 

জেলার হাসপাতাল গুলোতে শিশু রোগীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।  জবুথবু অবস্থা জেলার নদী তীর ও চরের বাসিন্দাদের। 

নি¤œ আয়ের মানুষ পড়েছেন চরম বিপাকে।  ঘন কুয়াশার কারণে নদ-নদী বেষ্টিত পিরোজপুর জেলার খরশ্রোতা কঁচা, কালীগঙ্গা,বলেশ্বর ও সন্ধ্যা নদীতে গভীর রাতে নৌযান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।  সূর্য অস্ত যেতেই কুয়াশা নামা শুরু হওয়ায় নৌযান চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি হয়। 

কোথাও কোথাও নদীর তীরে বা নদীতে বিকন বাতি বা সিগনাল বাতি না থাকায় দিক ভ্রান্ত হন নাবিকেরা।  জেলেরা নদীতে মাছ শিকারে গিয়ে ঠান্ডায় আক্রান্ত হয়ে বাড়ি ফিরে আসেন। 

পিরোজপুরের কঁচা নদীর চরখালী ফেরি ও বেকুটিয়া ফেরি চলাচলেও বিঘœ সুষ্টি হচ্ছে।  ফলে নদীর দুই তীরে যানজটের সুষ্ঠি হয়। 

চরখালী রকেট ঘাটের লেবার আব্দুর রহিম খলিফা জানান সোমবারে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বিআইডবিøউটিসি’র স্টিমার মধুমতি চরখালী ঘাটে পৌছায় মঙ্গলবার সকাল দশটার পরিবর্তে রাত সাড়ে দশটায়।  ঢাকা থেকে মঙ্গলবার ছেড়ে আসা যাত্রীবাহি লঞ্চ বুধবার চরখালী ঘাটে পৌছায় সকাল ছয়টার পরিবর্তে সকাল সাড়ে আট টায়।