৮:৫৮ পিএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | | ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

শেষ চার আজই চূড়ান্ত হয়ে যেতে পারে

০২ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৭:৪১ এএম | রাহুল


এসএনএন২৪.কম : কাগজ-কলমের হিসাব অনুযায়ী যদি মাঠের ক্রিকেট চলত, তাহলে বাকি ছয় দলের লড়াই হতো রানার্স-আপ হওয়ার জন্য। 

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) শিরোপাটা বরাদ্দ থাকত ঢাকা ডায়নামাইটসের জন্য।  কিন্তু মাঠের ক্রিকেট তো আর কাগজ-কলমের হিসাবে চলে না।  চলে না বলেই গ্রুপ পর্বের মাত্র দুই ম্যাচ বাকি থাকার সময়ও সাকিব আল হাসানের দলের সেরা চারে থাকা নিশ্চিত হয়নি এখনো।  কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস ও খুলনা টাইটানসের হয়ে গেছে যা। 

শনিবার  বিপিএলের ঢাকা প্রত্যাবর্তন পর্বে মূল লড়াইটা এই দুই দলের সঙ্গী হওয়ার।  যে লড়াইয়ে ঢাকার সঙ্গে রয়েছে রংপুর রাইডার্স, রাজশাহী কিংস ও সিলেট সিক্সার্স।  একমাত্র চিটাগং ভাইকিংসের জন্যই টুর্নামেন্ট থেকে আর কিছু চাওয়া-পাওয়ার নেই।  সাত দলের টুর্নামেন্টে সবাই সবার মুখোমুখি দুইবার করে।  সেই হিসাবে লিগ-পর্বে প্রতি দলের ১২টি করে ম্যাচ।  ৯ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিল-শীর্ষে এখন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস; ১০ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে খুলনা টাইটানস দ্বিতীয়তে।  এই দুই দলের সেরা চার খেলা নিশ্চিত হয়েছে।  ১০ ম্যাচে ১১ পয়েন্টে থাকা ঢাকা ডায়নামাইটস এবং এক ম্যাচ কম খেলে ১ পয়েন্ট কমে থাকা রংপুর রাইডার্স রয়েছে এরপর।  মাত্র দুই ম্যাচ বাকি থাকা রাজশাহী কিংস ও সিলেট সিক্সার্সের পয়েন্ট যথাক্রমে ৮ ও ৭।  আর ১০ খেলায় ৫ পয়েন্ট নিয়ে সবার শেষে চিটাগং ভাইকিংস। 

এই চট্টগ্রামের মতো রাজশাহী-সিলেটের বিপিএলও ‘শেষ’ হয়ে যেতে পারে শনিবার।  শেষ করে দিতে পারে রংপুর-কুমিল্লা।  আজ শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে প্রথম ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসকে যদি রংপুর রাইডার্স হারিয়ে দেয় এবং দ্বিতীয় খেলায় রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে জেতে ঢাকা ডায়নামাইটস—তাহলেই! পয়েন্ট টেবিলে সেরা চারে থাকা নিশ্চিত হয়ে যাবে রংপুর-ঢাকার। 

সিলেট, ঢাকা, চট্টগ্রাম হয়ে বিপিএল এখন শেষ ল্যাপে আবার ঢাকায়।  এখানে শনিবার রংপুর-কুমিল্লার প্রথম ম্যাচটি ছড়াচ্ছে রোমাঞ্চের রেণু।  এমনিতে ইদানীং রংপুর রাইডার্সের ম্যাচেই টানটান উত্তেজনার নিশ্চয়তা।  আর এটি শুরু রংপুর-কুমিল্লার প্রথম ম্যাচটির পর থেকেই।  সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে নিশ্চিত পরাজয়ের পথে ছিল রংপুর।  সাব্বির-নাসির ১১৭ রানের জুটি গড়ার পরও শেষ পর্যন্ত সাত রানে জিতে যায় মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।  ঢাকার বিপক্ষে পরের ম্যাচটি আরো স্নায়ুক্ষয়ী।  এবার শেষ ওভারে গড়ানো ম্যাচ তিন রানে জেতে রংপুর।  খুলনার বিপক্ষে পরের খেলায় জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়েও হেরে যায় ৯ রানে।  এরপর পর পর আরো দুটো উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে জয়।  চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে শেষ বলের ছক্কায় দলকে তিন উইকেটে জেতান থিসারা পেরেরা; সিলেটের বিপক্ষে দুই বল হাতে রেখে জেতে চার উইকেটে।  কুমিল্লার বিপক্ষে আজ আরেকটি জমজমাট ম্যাচের প্রত্যাশা তাই দর্শকরা করতেই পারেন।  আর এ ম্যাচ জিতলেই তো সেরা চারে থাকার প্রাথমিক লক্ষ্য পূরণ হবে মাশরাফির দলের। 

সে লক্ষ্য অর্জনের দায় নিয়ে শনিবার মাঠে নামবে ঢাকা ডায়নামাইটসও।  রাজশাহীর বিপক্ষে জিতলেই চলবে।  ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের এ মৌসুমের ফর্ম বড্ড অধারাবাহিক।  ১০ খেলায় মাত্র পাঁচ জয় সে সাক্ষ্যই দিচ্ছে।  চট্টগ্রাম-পর্বের দুটি ম্যাচ দেখুন না।  চিটাগং ভাইকিংসের ১৮৭ রান সাত বল হাতে রেখে টপকে সাত উইকেটের বিস্ফোরক জয় পায় ঢাকা।  অথচ পরের ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের করা ১৬৭ রান হয়ে ওঠে অজেয়।  ১৫৫-তে থেমে ১২ রানে হেরে যায় ম্যাচ।  শনিবার প্রতিপক্ষ রাজশাহীর বিপক্ষে ১৮ নভেম্বরের খেলাটি সাকিবের দলকে প্রেরণা দিতে পারে।  সেখানে নিজেরা ২০১ রান করে ৬৮ রানের বিশাল জয় পায় ঢাকা।  অন্যদিকে রাজশাহীর জন্য এটি টুর্নামেন্টে টিকে থাকার শেষ সুযোগ।  দিনের প্রথম খেলায় রংপুর জিতে গেলে এখানে তাদের জয়ের বিকল্প নেই।  রংপুর হারলেও তো শেষ চারে উঠতে নানা হিসাবের প্যাঁচে পড়তে হবে।  শনিবার জিতে লক্ষ্যপূরণের পথে অনেক দূর নিশ্চয়ই এগিয়ে থাকতে চাইবে রাজশাহী কিংস। 

৪৬ ম্যাচের বিপিএলের ৩৪ ম্যাচ শেষ।  এরই মধ্যে টুর্নামেন্ট ঘুরে এসেছে তিন ভেন্যু।  ঢাকায় প্রত্যাবর্তনে শেষ ১২ ম্যাচের লড়াইয়ের রোমাঞ্চ এখন মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে।  তাতে সবগুলো দল হয়ে উঠুক ‘রংপুর রাইডার্স’— নিরপেক্ষ দর্শকদের প্রত্যাশা তেমনই।  তাদের মতো রোমাঞ্চ-ছড়ানো ম্যাচেই না উপভোগ্য হবে বিপিএল নাটকের শেষাঙ্ক!

Abu-Dhabi


21-February

keya