৭:৫৭ এএম, ২২ নভেম্বর ২০১৭, বুধবার | | ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

সন্ধীপে ইয়াবার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রচার করায় সাংবাদিকের পিতার ওপর হামলা

১৪ নভেম্বর ২০১৭, ০৭:০৬ এএম | সাদি


সন্ধীপ প্রতিনিধি : চট্টগ্রামের সন্ধীপ উপজেলায় ইয়াবার বিরুদ্ধে সংবাদ পরিবেশন করায় এক সাংবাদিকের পিতার ওপর অতর্কিত হামলার ঘটনা ঘটেছে।  হামলায় গুরুতর আহত সাংবাদিকের পিতা তাজুল ইসলামকে (৫২) বর্তমানে সন্ধীপ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । 

এ ঘটনায় আজ  সোমবার বিকেলে সন্ধীপ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।  মামলা নং ১০। 

মামলার বিবরণ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মান্দিরগো বাড়ির ইয়াবা ব্যবসায়ী কানকাটা হান্নান প্রকাশ ইয়াবা হান্নান দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা সেবন ও বিক্রয় করে আসছিল।  এ সংক্রান্ত একটি খবর সাংবাদিক মিলাদ উদ্দীন মুন্নার অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত হলে তাকে ও তার পিতা তাজুল ইসলামকে প্রাণনাশের হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে থাকে ইয়াবা হান্নান। 

এরই জের ধরে ইয়াবা হান্নান ১৩ নভেম্বর সোমবার সকাল ১১ টায় সাংবাদিকের পিতা তাজুল ইসলামের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।  এ সময় তার ছেলে কেন ইয়াবার বিরুদ্ধে সংবাদ পরিবেশন করেছে এবলে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে থাকে এবং লোহার রড দিয়ে এলোপাতারি মারধর থাকে ইয়াবা হান্নান ও তার সঙ্গী ৫/৬ জন যুবক। 

এক পর্যায়ে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ইয়াবা হান্নান ও তার সঙ্গীরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। 

এর পর আহত তাজুল ইসলাম বাড়ি গিয়ে মামলার জন্য থানায় যাওয়ার প্রস্তুতি নিলে তার বাড়িঘর ঘেরাও করে রাখে ইয়াবা হান্নান।  এসময় ইয়াবা হান্নান তাজুল ইসলামের বাগান থেকে বাঁশ কেটে লুটপাট চালায়।  তাৎক্ষণিক খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে ইয়াবা হান্নান ও তার সঙ্গীরা পালিয়ে যায়।  এদিকে ইয়াবা হান্নানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করায় এলাকায় ভীতির সঞ্চার করছে ইয়াবা হান্নান।  একই সাথে সাংবাদিক মুন্নার পিতাকে খুন করে লাশ গুম করার হুমকি প্রদর্শন করছে বলে মামলা সূত্রে জানা যায়।  অবশ্য এর আগেও বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ইয়াবা হান্নানের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশিত হয়। 

সন্ধীপ থানার অফিসার ইনচার্য সাইফুল ইসলাম বলেন, কানকাটা হান্নান প্রকাশ্যে সাংবাদিকের পিতার ওপর ন্যাক্কারজনকভাবে হামলা চালিয়েছে। 

এ ঘটনায় একটা মামলা আমরা গ্রহণ করেছি এবং যত দ্রুত সম্ভব আসামী গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা চলছে। 

এ ব্যাপারে সন্ধীপের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মাহফুজুর রহমান মিতার মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।