৬:২১ এএম, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার | | ২১ জ্বিলকদ ১৪৪০




নগর ভবনে ভারতীয় হাই কমিশনার

সম্ভাবনাময়ী শহর চট্টগ্রাম

১৮ জুন ২০১৯, ১২:১৬ পিএম | নকিব


এসএনএন২৪.কম : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন বাংলাদেশে নবনিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাশ। 

সোমবার সকালে নগর ভবনে চসিক মেয়রের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন তিনি। 

এ সময় সিটি মেয়র বলেন, ‘ভারত আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু।  মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকা এক অনবদ্য ইতিহাস।  ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীসহ সমগ্র ভারতবাসীর কিংবদন্তিতুল্য সাহায্য-সহযোগিতা ও আত্মত্যাগের সফল পরিণতি বাংলাদেশ।  এমনকি সে সময়ে ভারত বাংলাদেশের প্রায় এক কোটি শরনার্থীকে আশ্রয় দিয়ে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছিল। ’

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বিগত ১০ বছরে অনেকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।  বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বে-টামিন্যাল, কন্টেইনার স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।  প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে বর্তমানে বন্দরে যে সক্ষমতা আছে, তা দ্বিগুণ বৃদ্ধি পাবে।  বর্তমানে বন্দরে প্রতিনিয়ত ১০ থেকে ১২ হাজার পরিবহন গমন-বহিগমন করে থাকে। ’

নবনিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাশ বলেন, ‘চট্টগ্রাম সম্ভাবনাময় একটি শহর।  উন্নয়নের ক্ষেত্রে চট্টগ্রাম অনেক দূর এগিয়েছে।  ইতোপূর্বে আমি চট্টগ্রামে এসেছি।  কিন্তু এ রকম শহর দেখিনি।  চট্টগ্রামের এ উন্নয়নে আমি বিস্মৃত।  বাংলাদেশ উন্নয়ন এগিয়ে যাক ভারত সরকারও তা চায়।  এতে ভারতের সহযোগিতা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।  বাংলাদেশকে ভারত সবসময় বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র হিসাবেই দেখে। ’

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রাম বন্দরের বহুমুখী ব্যবহারের মাধ্যমে সেভেন সিস্টারসহ দু’দেশের জনগণের আর্থিক উন্নতি সম্ভব।  চট্টগ্রাম বন্দর শুধু বাংলাদেশের নয়, পুরো অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে।  তাই চট্টগ্রাম বন্দরের বহুমুখি ও সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করা গেলে এ অঞ্চলে শ্রমবাজার, কর্মসংস্থান, পুঁজি বিনিয়োগ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন এবং দু’দেশের জনগণের আর্থিক উন্নতি ঘটবে। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভরতীয় সহকারী হাইকমিশনার অনিন্দ্য ব্যানার্জি, কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, চসিক প্রধান নিবার্হী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামসুদ্দোহা, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মুফিদুল আলম ও প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ একেএম রেজাউল করিম প্রমুখ।