১০:৩৯ এএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার | | ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০




সিরাজগঞ্জে ডেবিট বাহিনীর অত্যাচারে ৫ আ’লীগ পরিবারসহ এলাকাবাসী অতিষ্ঠ

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১:১০ এএম | জাহিদ


এম.এ.মালেক, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বাগবাটী ইউনিয়নের সূবর্ণগাঁতীর প্রভাবশালী ডেবিটের সন্ত্রাসী বাহিনীর অত্যাচারে ৫ আওয়ামী লীগ পরিবারসহ এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেছে।  সন্ত্রাসীদের কর্মকান্ডে এলাকার সাধারণ মানুষ ভীত সন্তন্ত্র।  তাদের ভয়ে স্থানীয় লোকজন বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। 

সন্ত্রাসীরা এতই প্রভাবশালী যে হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামী হয়েও দিব্যি এলাকায় বিভিন্ন অপকর্ম করে বেড়াচ্ছেন।  তাদের এ অপকর্মে সহযোগীতা করে থাকেন এলাকার প্রভাবশালী মাহফুজুর রহমান ডেবিট খা, সালেহ মোহাম্মদ বাবলু খাসহ কতিপয় ব্যক্তি। 

তাদের আশ্রয় প্রশ্রয়েই সন্ত্রাসী মনি,করিম, মকবুল, জয়নাল, নিজাম,লিংকন,পলাশ, ইদুল, আজাদ, ইআমানত, চাতাল আরিফ, শুভ, আলহাজ, মিলন, সাইফুল, কেরু, মগর আলী, রুহুল ও আমিনুলসহ ২০/৩০ জনের সন্ত্রাসী বাহিনী এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করেছে। 

সন্ত্রাসীদের এসব কর্মকান্ডে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোসহ এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম আতংক বিরাজ করছে প্রতিনিয়ত। 

সরজমিনে গেলে জানা যায়, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বাগবাটী ইউনিয়নের সূবর্ণগাঁতী গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন যাবত হামলা, মামলা, নির্যাতনের ঘটনা ঘটেই চলছে।  ওই সন্ত্রাসী বাহিনীর এসব অপকর্মের প্রতিবাদ করতে গিয়ে এলাকার শিক্ষকসহ সাধারণ মানুষ তাদের রোষানলে পড়ে হামলা-মামলা ও নির্যাতনের শিকার হয়ে দীর্ঘদিন যাবত নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। 

এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, ২০১৫ সালে ওই সন্ত্রাসী বাহিনী স্থানীয় যুবলীগ নেতা ইলিয়াসের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে।  এসময় যুবলীগ নেতা ইলিয়াস ও তার পরিবারের লোকজন আহত হয়। 

এমনকি এই সন্ত্রাসী বাহিনী তাদের দ্বারা সংগঠিত ঘটনাগুলো ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্য খোকা নামের এক ব্যক্তিকে হত্যা করে এর সকল দায়ভার ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর উপর চাপানোর চেষ্টা করে। 

এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় পুলিশ সন্দেহাতিতভাবে ইয়াকুব আলী নামে একব্যক্তিকে গ্রেফতার করলে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী প্রকৃত হত্যাকারী হিসেবে সন্ত্রাসী মকবুল ও করিমের নাম বেরিয়ে আসে।  তখন ওই সন্ত্রাসী বাহিনীর অপকৌশল ভেস্তে গেলে তারা নতুন করে আবার অপকর্মের ফন্দি আটে। 

এরই একপর্যায়ে গত ঈদুল ফিতরের আগের ও পরের দিন ওই সন্ত্রাসী বাহিনী অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে নোমান, সজিব, ইয়াসিন ও সিরাজুলসহ কয়েক যুবককে গুরুতর আহত করে। 

এতেও তারা ক্ষ্যান্ত না হয়ে ঈদুল আযহার আগের দিন মাঠের নামাজ আদায়কে কেন্দ্র করে পুনরায় সন্ত্রাসী বাহিনী ওই ভুক্তভোগী আওয়ামী পরিবারের সদস্য সবুজ, শক্তি ও পেস্তার উপর হামলা চালিয়ে তাদেরকেও গুরুতর আহত করে। 

এসময় সন্ত্রাসী বাহিনী স্কুল শিক্ষক হুমায়ুন কবির রাজু ও রাশেদুর রহমান রিংকুর বাড়িতে হামলা চালিয়ে টিভি, ফ্রিজসহ আসবাবপত্র ব্যাপকভাবে ভাংচুর ও লুটপাট করে। 

এসব ঘটনায় একাধিক মামলা দায়ের হলেও আসামীরা এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং ভুক্তভোগী আওয়ামী পরিবারগুলোকে নানাভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি ধামকি প্রদর্শন করছে।  সন্ত্রাসীদের অব্যাহত হুমকিতে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো দিশেহারা হয়ে পড়েছে। 

ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসীর অভিযোগ এসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের নাটেরগুরু হচ্ছেন ওই এলাকার আব্দুল হালিম খান রতির ছেলে ও সিটি ব্যাংকের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা প্রভাবশালী মাহফুজুর রহমান খান ডেবিট, তার ভাই আতিকুর রহমান পলাশ ও সালেহ মোহাম্মদ বাবলু খান। 

উল্লেখ্য, সম্প্রতি সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বেজগাতী বাজারে অবস্থিত আওয়ামীলীগ অফিসে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় মাহফুজুর রহমান খান ডেবিট ও তার ভাই আতিকুর রহমান পলাশ এজাহারভুক্ত আসামী। 

অপরদিকে মকবুল ও করিমের নামে দুইটি হত্যা মামলাসহ একাধিক মামলা রয়েছে।  চিহ্নিত এসব সন্ত্রাসীদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের হাত থেকে রক্ষা পেতে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোসহ এলাকাবাসী প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।