৫:১৮ এএম, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭, সোমবার | | ২৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

হাজীদের পূণর্মিলন ও দোয়া মাহফিল

২১ নভেম্বর ২০১৭, ০৫:৪৩ পিএম | মুন্না


এসএনএন২৪.কম : চট্টগ্রাম নেছারিয়া কামিল (এম.এ) মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও আল-মাবরুর হজ্ব কাফেলার চেয়ারম্যান দেশবরেণ্য আলেমেদ্বীন, লেখক ও গবেষক শায়খুল হাদীস আল্লামা মুহাম্মদ জয়নুল আবেদীন জুবাইর বলেছেন,-হাজীরা আল্লাহর মেহমান। 

তাঁদের সেবা ও মেহমানদারী করাও পুণ্যের কাজ।  আজকের এই মিলনমেলার মাধ্যমে সম্মানিত হাজীদের মধ্যে পরস্পর সৌহার্দ্য,ভ্রাতৃত্ববোধ ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠা হবে। 

ঐতিহ্যবাহী আল-মাবরুর হজ্ব কাফেলার উদ্যোগে ২০ নভেম্বর ২০১৭ইং, সোমবার কক্সবাজার কলাতলি এক অভিজাত হোটেলের হল রুমে ‘মরহুম হাজীদের ইছালে সওয়াব, আরাফাতি ভাই-বোনদের পূণর্মিলন ও দোয়া মাহফিলে সভাপতির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন। 

হজ্ব কাফেলার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব মাওলানা এ এম মঈন উদ্দিন চৌধুরী হালিমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মাহফিলে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিচালক আলহাজ্ব আক্কাস উদ্দিন খোন্দকার।  সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ আল্লামা জুবাইর আরো বলেন-ইসলামে পঞ্চম স্তম্ভের অন্যতম হল হজ্ব , হজব্রত পালনের ফলে মোমিন মুসলমানগণ আল্লাহ ও রাসুল (দ:) এর কাছে নিঃশর্ত আত্মসর্ম্পণ, আত্মনিবেদন ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে যে নবী প্রেম খোদাভীরুতা বা রাসুল (দ:) এর মেহমান। 

তাঁদের হজ্বব্রত পালনে যথাযথ ব্যবস্থাগ্রহণ ও তাদের খেদমত করাই আল-মাবরুর হজ্ব কাফেলার প্রকৃত উদ্দেশ্য বলে উল্লেখ করেন আল্লামা অধ্যক্ষ জুবাইর।  দোয়া মাহফিলে বিগত সালে আল-মাবরুর হজ্ব কাফেলার মাধ্যমে হজ্ব পালনকারীদের মধ্যে উপস্থিত থেকে স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন। 

বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা সিদ্দিক আজাদ,অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা ইদ্রিস ফারুকী, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ এ এম.মাসুদুল ইসলাম বাচ্চু, আলহাজ্ব মাওলানা আব্দুস ছাত্তার, মহেশখালী জনপ্রতিনিধি-আলহাজ্ব সাঈদুল ইসলাম চৌধুরী,আলহাজ্ব মোখতার আহমেদ, অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আলহাজ্ব মুহাম্মদ হেলাল উদ্দিন, মাওলানা ফরিদুল আলম জালালী, মাওলানা আলি আহমদ, এড.আজিজুল হক, মাওলানা দলিলুর রহমান,মোহাম্মদ মফিজুর রহমান কাজী জয়নাল আবেদীন,কাজী আবু বকর, কাজী নুরুল আবছার,সাঈদুল হক আজম,মাওলানা আব্দুল লতিফ প্রমুখ। 

বাদে মাগরিব মিলাদ -কিয়াম দোয়া মাহফিল ও দেশ-জাতি এবং বিশ্বমানবতার কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মুনাজাত পরিশেষে জিয়াফতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি করা হয়।