২:০২ এএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার | | ১৮ মুহররম ১৪৪১




হাটহাজারীর ত্রিপুরাপল্লীর শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রাথমিক শিক্ষা বৃত্তি প্রদান

২৪ আগস্ট ২০১৯, ০৬:৩৪ পিএম | নকিব


মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শাকিল, হাটহাজারী প্রতিনিধি : হাটহাজারী উপজেলার ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড় উদালিয়া গ্রামের আলোকিত মনাই ত্রিপুরাপল্লীর শিক্ষার্থীদের কে প্রাথমিক শিক্ষা বৃত্তি ২০১৯ প্রদান করেছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন। 

২৪ আগস্ট শনিবার দুপুরে মনাই ত্রিপুরাপল্লী পরিদর্শন করে প্রাথমিক শিক্ষা বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠিত হয়। 

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন।  

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মাদ রুহুল আমীনের সভাপতিত্বে এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ নিয়াজ মোর্শেদের সঞ্চালনায় এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

আলোচনা সভায় বক্তব্যে রাখেন, হাটহাজারী প্রেস ক্লাবের সভাপতি কেশব কুমার বড়ুয়া,ফরহাদাবাদ ইউপি প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ আলি আকবর। শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্যে রাখেন ত্রিপুরা পাড়ার পক্ষে শোচিন ত্রিপুরা। 

এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাজিব হোসেন, হাটহাজারী সহকারী কমিশনার (ভূমি) সম্রাট খীসা, প্রেসক্লাবের 

সভাপতি কেশব কুমার বড়ুয়াসহ স্থানীয় ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ইমরান , পাড়ার অধিবাসীবৃন্দসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। 

এসময় প্রধান অতিথি ইলিয়াস হোসেন ত্রিপুরা পাড়ার অধিবাসীদের উদ্দেশ্য বলেন, একশ বছরের বেশী সময় ধরে অবহেলিত ত্রিপুরা পাড়া এখন আর অবহেলিত নয়।  আমরা যেভাবে শহরে সুযোগ সুবিধা নিয়ে থাকি ঠিক সেভাবে এ পাড়ার অধিবাসীরাও বসবাস করবে সে লক্ষে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। 

এ পাড়া থেকেই একজন সুশিক্ষিত মেধাবী ছাত্র বের হবে যে কিনা আমার মত একজন জেলা প্রশাসক হবে।  লেখাপড়ার পাশাপাশি বিনোদনের জন্য খেলার মাঠের প্রয়োজন,তিনি বলেন শুধু পড়ালেখা করলেই হবেনা পাশাপাশি লাগবে বিনোদনের জন্য একটি খেলার মাঠ।  আগামি ছয় মাস একবছরের মধ্যে সরকারি খাস জায়গায় একটি খেলার মাঠ করে দেয়া হবে।  যাতে ঐ পাড়া থেকে সাকিব আল হাসানের মত একজন খেলোয়ার বের হয়ে আসে। 

তিনি আরো বলেন,আমাদের বঙ্গবন্ধু যে সোনার বাংলা গড়তে স্বপ্ন দেখেছিলেন সে স্বপ্নের মধ্যে আপনারাও থাকবেন।  আমরা যেভাবে সুযোগ সুবিধা নিয়ে থাকি আপনারাও থাকবেন।  বাচ্চাদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করার অনুরোধ জানিয়ে অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন আপনাদের এখানে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে সেখানে সন্তানদের নিয়মিত পাঠাবেন। 

শুধু এ বৃত্তি নয় সামনে আরো অনেক কিছু করা হবে শর্ত শুধু বাচ্চাদের শিক্ষিত করতে হবে।  আপনাদের যে কোন সমস্যায় উপজেলা ইউএনওর দ্বারস্থ হবেন জেলা প্রশাসকের দ্বারস্থ হবেন।  আমাদের দরজা আপনাদের জন্য সর্বদা খোলা। 

অনুষ্ঠান শেষে ঐ পাড়ার ৬০জন শিক্ষার্থীর মাঝে ষাট(৬০) হাজার টাকা ও চকলেট প্রদান করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসন। 


keya