১:১৭ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৮, বুধবার | | ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯


হবিগঞ্জে জমকালো আয়োজনে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন

১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৯:৩৬ পিএম | জাহিদ


আখলাছ আহমেদ প্রিয়, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জে জমকালো আয়োজন ও উৎসব মুখর পরিবেশে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।  শনিবার দুপুরে হবিগঞ্জ পৌরসভা মাঠে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন শুরু হয়।  শান্তির প্রতিক পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির  সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। 

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও হবিগঞ্জ-লাখাই আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট মোঃ আবু জাহির ।  সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সিলেটের রত্ন এস.এম জাকির হোসেন। 

প্রায় সাড়ে ৩ বছর পর জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন উপলক্ষে শনিবার সকাল থেকে বিভিন্ন ইউনিট ও সমর্থক নেতাকর্মীরা মিছিল সহকারে মাঠে জড়ো হতে থাকেন।  দুপুর ১ টায় সম্মেলন শুরু হয়।  জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ডা. ইশতিয়াক রাজ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুকিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন-হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান।  জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আলগীর চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান শামীম, জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি সৈয়দ কামরুল হাসান,

পৌর আওয়ামীলীগের এডভোকেট নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটু, পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ও হবিগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি-এর প্রেসিডেন্ট মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সুলতান মাহমুদ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তফা কামাল আজাদ রাসেল, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নওশেদ উদ্দিন সুজন, ক্রিড়া সম্পাদক চিন্ময়--কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা হাবিবুর রহমান সুমন, আনিসুল ইসলাম জুয়েল, জাহির আহমেদ খান, ইউসুফ উদ্দিন খান, সরকার জোবায়ের আহমেদ, সাজিদুর রহমান রাসেল, শাওন চৌধুরী, শাহ আবুল বাশার শুভ প্রমূখ। 

সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি আবু জাহির বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের সকল অধ্যায়ের সাথে জড়িত রয়েছে ছাত্রলীগ।  ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে দেশের মুক্তি সংগ্রামে ছাত্রলীগের সক্রিয় ভূমিকা রয়েছে।  ছাত্রলীগ টেন্ডারবাজির রাজনীতি করেনা।  দেশের বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থায় ছাত্রলীগের অনেক দায়িত্ব রয়েছে।  সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে শেখ হাসিনার উন্নয়ন ধরে রাখতে হবে। 

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশে ছাত্রলীগকে সু-সংগঠিত করা হচ্ছে।  এই নির্বাচনে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করতে আওয়ামীলীগের ভ্যান গার্ড হিসাবে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদেরকে ভুমিকা রাখতে হবে।  প্রয়োজনীয় ছাত্রলীগের সকল কর্মসূচি পালনে সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে থাকতে হবে। 

প্রধান বক্তার বক্তব্যে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস.এম জাকির হোসেন বলেন, বাংলাদেশর সবচেয়ে বড় সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ।  ছাত্রলীগ সকল কর্মসূচি পালনের লক্ষে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে নিয়ে সব সময় রাজপথে সকল আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে।  অন্য সকল সংগঠনের জন্য ছাত্রলীগ উদাহরণ সৃষ্টি করে যাচ্ছে।  এতিমের টাকা আত্মসাৎ করে আদালতের শান্তি পেয়ে খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর বিএনপি দেশে যে অরাজকতা সৃষ্টির পায়তারা করছে তা মোকাবেলা করতে ছাত্রলীগকে মাঠে থাকতে হবে। 

তিনি আরো বলেন, ছাত্রলীগের ইতিহাস রয়েছে  বাংলাদেশের ইতিহাসে ছাত্রলীগের ভূমিকা অপরিসীম।  দেশের উন্নয়নে ছাত্রলীগের অংশ রয়েছে। 

সম্মেলন শেষে সন্ধ্যায় জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে।  কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এস.এম জাকির হোসেন-এর সঞ্চালনায় সম্মেলনের ২য় অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়।