৬:৪০ এএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ৯ মুহররম ১৪৪০


হযরত শাহ আরেফিন (রহ.) ওরস ও শ্রী অদ্বৈত প্রভুর পণতীর্থে স্নানযাত্রা

১৩ মার্চ ২০১৮, ০৬:৪৬ পিএম | সাদি


সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে সীমান্তে দু’আধ্যাধিক মহা সাধকের দেশী ভক্ত ছাড়াও এবার ৬০ দেশের  কয়েক লাখ ভক্ত, দর্শনার্থী ও পুণ্যার্থীদের অংশ গ্রহনে বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী লাখো মানুষের বাৎসরিক মিলন মেলা। ’

তাহিরপুরের সীমান্তবর্তী লাউড়েরগড়ের সাহিদাবাদের হযরত শাহ আরেফিন (রহ.) আস্থানায় ও রাজারগাঁও’র শ্রী অদ্বৈত প্রভুর জন্মধাম সংলগ্ন (পণতীর্থ ধাম) জাদুকাঁটা নদীর তীরে বুধবার সকাল থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিন ব্যাপী কয়েক  লাখ মানুষের অংশ গ্রহনে মিলনমেলা। ’ সারা দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ইতিমদ্যে কয়েক লাখ ভক্ত ওরস ও স্নানযাত্রা উৎসবে যোগ দিতে তাহিরপুরের ওরস স্থল, অদ্বৈত প্রভুর আখড়া বাড়ি, গড়কাটি ইসকন মন্দিও সহ আশে পাশের হাট বাজার ও গ্রাম গুলোতে সমবেত হয়েছেন। ’

হযরত শাহ আরেফিন (রহ.) লঙ্গরখানার প্রতিষ্ঠাতা ও খাদেম বীর মুক্তিযোদ্ধা (অব: শিক্ষক) হাজি মো. নুরুল আমিন জানান, ভারতের মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে বাংলাদেশ অভ্যন্তরে সাড়ে ৭’শ বছরেরও অধিক সময় ধরে চলে আসা সিলেটের ওলিকুল শিরোমণি হযরত শাহ জালাল (রহ.)’র ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম সঙ্গী হযরত শাহ আরেফিন (রহ.) আস্থানায় বার্ষিক ওরস উদযাপন ১৫ মার্চ বৃহস্পতিবার বাদ ফজর মিলাদ মাহফিলের মাধ্যমে শুরু হয়ে ১৭ মার্চ রোববার বাদ ফজর আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে সমাপ্ত হবে। ’

এরই মধ্যে ওরসে যোগ দিতে হাজারো কাফেলাধারী ভক্তরা সমবেত হয়েছেন আস্থানা এলাকায়। ’ ওরস উপলক্ষে আস্থানা সংলগ্ন চরে বসেছে খেলনা, খাদ্য সামগ্রী সহ হাজারো দোকানপাঠ। ’ ভারত -বাংলাদেশ সীমান্তের ২৮-বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন সুনামগঞ্জ বিজিবি নিয়ন্ত্রিত মেইন পিলার ১২০৩ এর সেভেন এস থেকে টেন এস এলাকা জুড়ে জিরো পয়েন্টের এপারে উরসকে ঘিরে লাখো ভক্ত ও দর্শানার্থীদের উপস্থিতিতে মঙ্গলবার থেকেই উৎসবের আমেজ বইে শুরু করেছে। ’

এদিকে উপজেলার রাজাগাঁও শ্রী শ্রী অদ্বৈত প্রভুর জন্মধাম পরিচালনা কমিটির সভাপতি করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল জানান, প্রচীন ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী সুদর ৭’শ বছরেরও অধিক সময় ধরে চলে আসা ভারতের মেঘালয় পাহাড় থেকে নেমে আসা রাজারগাঁও শ্রী অদ্বৈত জন্মধাম সংলগ্ন পুর্বের (রেনুকা) পরবর্তীতে জাদুকাঁটা সীমান্তনদীর পণতীর্থ ধামে মঙ্গল আরতির মাধ্যমে বুধবার সকাল থেকে স্নানযাত্রা মহোৎসব শুরু হবে এবং পরদিন বৃহস্পতিবার  সন্ধায় পুজা অর্চনার মধ্য দিয়ে বার্ষিক স্নানযাত্রা উৎসবের সমাপ্তি ঘটবে।  

এ বছর স্নান যাত্রার মুখ্য সময় নির্ধারিত হয়েছে ১৪ মার্চ ৩০ ফাল্গুন বুধবার দিন বেলা ৩ টা ৪৫ মিনিট ১৭ সেকেন্ড থেকে এবং সমাপ্ত হবে ১৫ মার্চ ১ চৈত্র পরদিন বৃহস্পতিবার  বিকের ৫ টা ১৪ মিনিট ৫০ সেকেন্ড এর মধ্যে।  ’

তিনি আরো বলেন, স্নানযাত্রা আগত ভক্তবৃদ্ধ ও দর্শনার্থী সহ ২ দিনে প্রায় ৫ লাখ মানুষের মধ্যে মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হবে। ’ সনাতন ধর্মালম্বীদের নিকট সপ্তগঙ্গার মিলন কেন্দ্র খ্যাত পণতীর্থে স্নানযাত্রা উৎসবকে ঘিরে রাজারগাঁও আঁখড়াবাড়ি ও জাদুকাঁটা নদীর চরে মঙ্গলবার থেকে বসেছে হরেক রকম খেলনা, খাদ্য সামগ্রী ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের অস্থায়ী হাজারো দোকান পাঠ। ’

উপজেলার পণতীর্থ সৎসঙ্গ প্রার্থনা কেন্দ্র গড়কাটিতে স্নানযাত্রা উৎসবের পাশাপাশী শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকুল চন্দ্র’র শুভ ১৩০ তম জন্ম মহোৎসবের আয়োজন করেছে বুধ ও বৃহস্পতিবার।   সৎসঙ্গ প্রার্থনা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. এনসি রায় নান্টু ও জন্ম মহোৎসব উদযাপন কমিটির সভাপতি গণেশ তালুকদার জানান, স্নানযত্রা উৎসবে আগত প্রায় ২ লাখ ভক্তক্তদের জন্য দু’দিন প্রসাদ বিতরণ করা হবে। ’

উপজেলার গড়কাটি ইসকন মন্দিরের পরিচালক ভক্তপ্রিয় কৃষ্ণ দাস ব্রম্মচারী জানিয়েছেন-এবার সপ্তগঙ্গার মিলনকেন্দ্র সব তীর্থের বড়তীর্থ পণতীর্থে স্নানযাত্রা উৎসবকে ঘিরে সারা দেশের ভক্ত ছাড়াও বহি:বিশ্বের ৬০ দেশের ভক্তরা সমবেত হবেন বুধবার সকাল থেকে ইসকন মন্দির ও শ্রী অদ্বৈত প্রভুর জন্মধাম রাজারগাঁও আঁখড়া বাড়িতে। ’  স্নানযাত্রা উৎসবকে ঘিরে ইসকন মন্দিরে ধমীয় আলোচনা সভা-বেতার-টিভির শিল্পীদের অংশগ্রহনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দু’দিনে প্রায় ৫ লাখ ভক্তের মধ্যে মহাপ্রসাদ বিতরণের আয়োজন করা হবে।   

তাহিরপুর থানার ওসি শ্রী ননদন কান্তি ধর মঙ্গলবার জানান, ওরস ও স্নানযাত্রা উৎসবকে ঘিরে ওরস স্থল, অদ্বৈত প্রভুর আখড়াবাড়ি, জাদুকাঁটা নদীর বারুণীমেলা স্থল ও গড়কাটি ইসকন মন্দিরে  দেশী বিদেশী ভক্তবৃন্ধ ও দর্শনার্থী  এবং পুণ্যার্থীদের নিরাপক্তায় মঙ্গলবার থেকে থানার পুলিশ ছাড়াও অতিরিক্ত ১৮২ জন অতিরিক্ত পুলিশ নিয়োজিত করে ৪টি পৃথক পুলিশ ফাঁড়ি বসানো হয়েছে। 

এছাড়াও র‌্যাব-বিজিবি ও আনসার, সাদা পোষাকধারী গোয়েন্দা  সদস্যরাও অতিরিক্ত দায়িত্বপালনের পাশাপাশী দু’জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের মাধ্যমে ভ্রাম্যমান আদালত সর্বদাই প্রস্তুুত থাকবে যে কোন ধরণের অপ তৎপরতা প্রতিরোধ। 

তিনি আরো বলেন, পুলিশ যানজট নিরসনে নিজস্ব তত্বাবধানে ওরস, বারুণীমেলা ও স্নানযাত্রায় আগত যানবাহনের জন্য ৪টি ষ্টান্ড’র ব্যবস্থা করেছে যেখানে যানবাহন রাখলে কোন ধরণের টোল বা টাকা পয়সা দেয়া লাগবে না।  ’