২:২১ পিএম, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার | | ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

হলুদ কোলন ক্যানসার প্রতিরোধ করে

০১ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৯:২১ এএম | রাহুল


এসএনএন২৪.কম : রূপচর্চা থেকে শুরু করে চিকিৎসায়ও প্রচীনকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে হলুদ। 

তবে এটি যে বড় কোনও রোগের প্রতিষেধক হতে পারে, তা এখনও অনেকের কাছেই অজানা।  সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট লুইস ইউনিভার্সিটির দু’জন গবেষক হলুদের আরও এক কার্যকারিতার প্রমাণ পেয়েছেন। 

গবেষকরা বলেছেন, হলুদে কারকিউমিন নামে এমন একটি উপাদান রয়েছে, যা কোলন ক্যানসারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে।  গবেষকরা জানিয়েছেন, হলুদের কারকিউমিন নানা খাবারের মধ্যে থাকলেও তা কোলন ক্যানসারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে।  তারা গবেষণায় মূলত দু’ধরনের উপাদানের ব্যবহার করেছেন।  এর মধ্যে একটি হলো হলুদের কারকিউমিন, অন্যটি সিলিমেরিন।  এ দু’টি উপাদানকেই কোলন ক্যানসারের বিরুদ্ধে কার্যকর বলে মনে করছেন গবেষকরা।  তারা জানান, হলুদের কার্যকর একটি উপাদান হলো কারকিউমিন।  এটি মশলাযুক্ত খাবারে থাকে।  এছাড়াও আরেকটি উপাদান সিলিমেরিন পাওয়া যায় কাঁটাগাছে।  ওই গাছটির রস সাধারণত পেটের সমস্যার চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। 

গবেষকরা কোলন ক্যানসারের ওপর উপাদানগুলোর কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য গবেষণাগারে কোলন ক্যানসারের মডেল তৈরি করেন।  সেখানে কারকিউমিন ও সিলিমেরিন প্রয়োগ করা হয়।  গবেষণায় দেখা যায়, উভয় উপাদানের একত্রে ব্যবহার কোলন ক্যানসারের বিরুদ্ধে যথেষ্ট কার্যকর।  এগুলো কোলন ক্যানসার বৃদ্ধি রোধ করে এবং ছড়িয়ে পড়তে বাধা দেয়।  এছাড়া কোলন ক্যানসারের কোষগুলোর মৃত্যুর হারও বেড়ে যায়। 

এ বিষয়ে সেন্ট লুইস ইউনিভার্সিটির গবেষক উথায়শঙ্কর ইজেকিয়েল বলেন, এধরনের উপাদান ব্যবহার ক্যানসার চিকিৎসা সুবিধাজনক।  কারণ, প্রচলিত পদ্ধতিতে যেভাবে কেমোথেরাপি প্রয়োগ করা হয়, তাতে দেহে বিষাক্ত উপাদান সমস্যা সৃষ্টি করে।  এছাড়া এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কম নয়।  তিনি বলেন, উদ্ভিদ উপাদানের সহায়তায় যদি কোলন ক্যানসার প্রতিরোধ করা যায়, তা হলে তাতে দেহের ক্ষতিও রোধ করা সহজ হবে। 

তবে গবেষকরা বলেন, কোলন ক্যানসারের চিকিৎসায় কার্যকর হলেও এ উপাদানগুলো বাড়তি গ্রহণ করা উচিত নয়।  কারণ, নির্দিষ্ট মাত্রার চেয়ে যে কোনও ওষুধই ব্যবহার করা ক্ষতিকর।  উচ্চমাত্রায় যে কোনও উপাদান ব্যবহারে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে।  কোলন ক্যানসারের চিকিৎসায় এ পদ্ধতি ব্যবহারের জন্য আরও কিছুদিন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে।  পরবর্তীতে সবকিছু ঠিক থাকলে তা কোলন ক্যানসারের চিকিৎসায় ব্যবহারের অনুমতি পাওয়া যাবে বলেও জানান গবেষকরা। 

Abu-Dhabi


21-February

keya