৩:০৬ এএম, ২২ জুলাই ২০১৮, রোববার | | ৯ জ্বিলকদ ১৪৩৯


৩৬ ঘণ্টার আলটিমেটাম জয়নাব হত্যায় জড়িতদের আটকে

১৩ জানুয়ারী ২০১৮, ০৭:৪৫ এএম | নকিব


এসএনএন২৪.কম : পাকিস্তানে শিশু জয়নাবের ধর্ষণ ও হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতারে পাঞ্জাব পুলিশকে ৩৬ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে। 

একটি রিট পিটিশনের শুনানি শেষে লাহোর হাইকোর্ট পাঞ্জাব পুলিশের মহাপরিদর্শককে এই আদেশ দেন।  আদালতের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, এ সংক্রান্ত বিচারিক কার্যক্রমে কোনও ধরনের বিলম্ব সহ্য করা হবে না। 

জয়নাব কসুরে এক বছরের মধ্যে যৌন নিপীড়নের শিকার  ১২তম শিশু।  ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা ও তার আগে যৌন নির্যাতন করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।  জয়নাবের পরিবারের দাবি, তাদের সন্তান নিখোঁজের পরপরই পুলিশকে জানানো হয়।  কিন্তু কোনও ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।  সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, এক ব্যক্তি জয়নাবকে হাত ধরে নিয়ে যাচ্ছে।  তবে ওই ব্যক্তির চেহারা বোঝা যাচ্ছে না।  ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চার জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।  তবে সিসিটিভি ফুটেজ থাকা সত্ত্বেও কেন অপরাধীদের সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না, তা নিয়ে পাকিস্তানজুড়ে এখন প্রশ্ন। 

বৃহস্পতিবার লাহোর হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মানসুর আলী শাহ এক রিট পিটিশনের শুনানির পর জয়নাব হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতারে ৩৬ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেন।  ওই রিট আবেদন দাখিল করেন অ্যাডভোকেট শামীম পীরজাদা।  কাসুর শহরে ধারাবাহিক শিশু নির্যাতন চলমান থাকলেও দোষীদের গ্রেফতার না করায় বিস্ময় প্রকাশ করা হয় ওই রিট আবেদনে।  এর প্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি পুলিশকে সেখানকার শিশুদের যৌন নিপীড়নের বিস্তারিত তথ্য জানার আদেশ দেন।  জানান, বিচারকদের কাছ থেকেও তিনি এই বিষয়ে তথ্য চাইবেন। 

পাঞ্জাব পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) জোর দিয়ে আদালতকে বলেছেন, অপরাধীদের ধরতে পুলিশ ‘মন দিয়ে কাজ করেছে’।  তিনি আদালতকে জানান, নিপীড়নের ছয়টি ঘটনায় একজনের ডিএনএ পাওয়া গেছে।  প্রধান বিচারপতি সতর্ক পুলিশকে করে দিয়ে বলেন, আদালত এই মামলায় কোনও বিলম্ব সহ্য করবে না।  জবাবে আইজিপি তাকে আশ্বস্ত করেন অপরাধীরা ধরা পড়বেই।