১০:১২ পিএম, ২৩ অক্টোবর ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১২ সফর ১৪৪০


৮ রুটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘটের ডাক ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির

০১ আগস্ট ২০১৮, ০৫:৩৫ পিএম | জাহিদ


মো.রাজু খান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ১২ রুটে বাস চলাচলের দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ায় আবার ঝালকাঠি বাস ও মিনিবাস মালিক সমিতি বরিশাল থেকে কালিজিরা বাসষ্ট্যান্ডে তাদের বাস সরিয়ে এনেছে। 

এতে আবার বরিশাল থেকে কালিজিরা হয়ে খুলানা পর্যন্ত বরিশাল মালিক সমিতির বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।  ফলে বরিশাল বাস ষ্ট্যান্ড থেকে কালিজিরা পর্যন্ত অটো রিকসা, টেম্পু, মাহেন্দ্র যোগে আসতে যাত্রী সাধারণের বিশেষ করে শিশু, বয়স্ক ও নারী যাত্রীদের চরম ভোগান্তিতে পরতে হয়।  গতকাল বুধবার সকাল থেকেই হঠাৎ করে কালিজিরায় বাস সরিয়ে আনা হয়। 

এ নিয়ে দুই জেলার মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে মোট ১১ বার বরিশাল থেকে কালিজিরায় বাস ষ্ট্যান্ড সরিয়ে আনার ঘটনা ঘটল।  এদিকে বুধবার বিকেল ৩ টার দিকে ঝালকাঠির নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বশির গাজী পুলিশের সহায়তায় কালিজিরা গিয়ে সেখান থেকে বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে।  এর প্রতিবাদে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি ঝালকাঠি হয়ে পশ্চিমাঞ্চলের খুলান পর্যন্ত ৮ রুটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘটের ডাক দেয়।  তাই বিকেল থেকে এ রুটে চলাচলকারি যাত্রীদের চরম দূর্ভোগে পরতে হয়েছে। 

এ প্রসঙ্গে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির সাথে কথা বলে জানাযায়, দীর্ঘ দিন ধরে ঝালকাঠি বাস মিনিবাস মালিক সমিতির দাবি ছিল দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১১ রুটে প্রতিদিন ৪৮ টি গাড়ী চলাচল করার পারমিট দিতে হবে।  দক্ষিাণাঞ্চলের রুট গুলো হচ্ছে বরিশাল থেকে কুয়াকাটা, পটুয়াখালি, বরগুনা, লেবুখালি, বগা, বাকেরগঞ্জ ও বেতাগী।  পশ্চিমাঞ্চলের রুট গুলো হচ্ছে পিরোজপুর, মঠবারিয়া, ভাঙ্গা ও খুলনা।  বরিশাল বাস মালিক সমিতির কাছে এ দাবি উপস্থাপন করে তা আদায়ে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি ইতিপূর্বে অনেক বৈঠক, দেনদরবার, আলোচনা করেও সুফল পায়নি। 

সবশেষ গত ২৪ জুন ২০১৮ তারিখ বরিশাল সার্কিট হাউজে এ বিষয়ে একটি চুরান্ত বৈঠক হয়।  বরিশাল বিভাগীয় কমিশনারের উদ্যোগে সকল জেলা প্রশাসকদের নিয়ে ঝালকাঠি ও বরিশাল উভয় মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ ঐ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।  সেখানে সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয় ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির এসব রুটে প্রতিদিন ১২ টি গাড়ি চলাচলের অনুমতি দিবে বরিশাল মালিক সমিতি।  কিন্তু আজ পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন না করায় পূণরায় ঝালকাঠি মালিক সমিতি পূর্বের সিদ্ধান্তে ফিরে এসে কালিজিরায় বাসষ্ট্যান্ড চালু করে। 

এ প্রসঙ্গে ঝালকাঠি বাস মিনিবাস মালিক সমতির সিনিয়র সহসভাপতি মাহাবুবুল হক দুলাল বলেন, এ সমস্যা সমাধানে আমাদের সাথে সব শেষ বরিশাল সার্কিট হাউজে বরিশাল বাস মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দকে নিয়ে বৈঠক হয় বিভাগীয় কমিশনারের সাথে।  বৈঠকে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ১১ রুটে আমাদের প্রতিদিন ১২ টি গাড়ি প্রাথমিক ভাবে চলার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। 

গত ২৪ জুন ঐ বৈঠকে সিদ্ধান্ত অনুযায়ি দক্ষিাঞ্চলের কুয়াকাটায় ১টি, পটুয়াখালিতে ১টি, বরগুনায় ১টি, লেবুখালিতে ১টি, বগায় ১টি, বাকেরগঞ্জে ১টি ও বেতাগীতে ১টি করে প্রতিদিন ৭টি বাস চলবে।  এছারা পশ্চিমাঞ্চলের খুলনায় ১টি, ভাঙ্গায় ১টি, পিরোজপুরে ১টি এবং মঠবারিয়ায় আমাদের ২ টি গাড়ি চলার সিদ্ধান্ত হয়।  কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য বরিশাল বাস মালিক সমিতি বিভাগীয় কমিশনারের এই সিদ্ধান্তকে অগ্রাহ্য করে আজ পর্যন্ত বিভিন্ন টাল বাহানায় তা বাস্তবায়ন করেনি। 

ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির এই নেতা আরো জানান, আমাদের ঝালকাঠির উপর দিয়ে বরিশাল বাস মালিক সমিতির বাস পশ্চিম ও দক্ষিণাঞ্চলের সব রুটে চলাচল করলেও আমাদের কোন বাস তারা এসব রুটে চলতে দিচ্ছেনা।  তাই দীর্ঘদিন ধরে আমরা এ বিষয়ে প্রশাসনসহ সর্ব মহলের সসহযোগীতা কামনা করে আমাদের ন্যায্য দাবি পূরণের আহŸান জানিয়ে আসছি।  আমাদের এ দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে। 

এদিকে এ দাবির কোন যুক্তিকতা নেই জানিয়ে বরিশাল পটুয়াখালি বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাওসার হোসেন শিপন জানান, বরিশাল বিভাগীয় মালিক সমিতির সিদ্ধান্ত আমরা অক্ষরে অক্ষরে পালন করে আসছি।  কিন্তু পটুয়াখালি ও বরগুনা বাস মালিক সমিতি তাদের রুটে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির গাড়ি চালাতে দিতে একটু খামখেয়ালি করছে।  সেটা তাদের নিয়ে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি আমাদের সাথে আলোচনায় বসলেই পারত।  তা না করে তারা এ সিদ্ধান্ত নিয়ে সড়ক পরিবহন সেক্টরে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার পায়তারা করছে। 

গতকাল বিকেল ৩ টার দিকে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘটের ডাক দেয়ার প্রসঙ্গে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন জানান, আমরা বিভাগীয় কমিশনারের গত ২৪ জুন তারিখের সিদ্ধান্ত মেনে নিলেও বরিশাল মালিক সমিতি তা বাস্তবায়ন করেনি।  ঝালকাঠি জেলা প্রশাসন বিভাগীয় কমিশনারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সহায়তা না করে উল্টো আমাদের কালিজিরা থেকে বাস বন্ধ করে দেয়ায় আমরাও আমাদের এ রুটে সকল বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছি। 

তবে নির্বাহী ম্যােিজষ্ট্রট বশির গাজি জানান, ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির কালিজিরায় এই বাসষ্ট্যান্ড অবৈধ।  জনগনের দূর্ভোগের কথা চিন্তা করেই এটি বন্ধ করে দিয়েছি।  যদি বাস ছারতে হয় বরিশাল রুপাতলি বাস ষ্ট্যান্ড থেকেই ছারতে হবে। 


keya