৫:১৫ পিএম, ২৩ মে ২০১৮, বুধবার | | ৮ রমজান ১৪৩৯

South Asian College

শ্রীপুরে ভাঙ্গা কালভার্টে শংকায় যাত্রীরা

১৩ এপ্রিল ২০১৮, ১২:১৬ পিএম | মুন্না


আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : গাজীপুরের শ্রীপুরে বরমী ইউনিয়নের লাকচতল সুইচগেট এলাকায় ধাউর খালের উপর নির্মিত একটি কালভার্ট ভেঙ্গে পড়ায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় পড়ছে চলাচলকারী যাত্রীরা।  কালভার্টটির কারনে বরমী লাকচতল সড়কে ভারী যানবাহন চলাচল সীমিত হয়ে পড়ছে।  যে কোন সময় এতে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশংকাও রয়েছে। 

স্থানীয়দের তথ্য মতে, বরমী-লাকচতল পাঁচ কিলোমিটার সড়কটি পাঁকা করা হয় বিগত ২০১৬ সালে।  আর এ সড়কের ধাউর খালের উপর সুইচগেট সংলগ্ন স্থানে একটি কালভার্ট নির্মান করা হয় ১৯৯৮ সালে।  কিন্তু এ সড়কে ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে এর একাংশ সম্প্রতি ধসে পড়েছে।  বাকি অংশটুকুও ধসার আশংকায় রয়েছে।  তবে ভেঙ্গে পড়া এ অংশের গর্তে প্রতিনিয়ত যানবাহন পড়ে অনেকেই আহত হয়েছে।  যদিও এখনও কালভার্টটি নির্মাণ অথবা সতর্কতার কোন প্রচার প্রদর্শণ করেনি কর্তৃপক্ষ। 

স্থানীয় সমাজকর্মী শ্রীপুর ইউসিসিএর সাবেক সহ সভাপতি সিরাজুল ইসলাম জানান, দেড় মাস আগে ভারী এক বালুবাহী ট্রাকের কারনে কালভার্টটির একাংশ ভেঙ্গে পড়ে, পরে ভাঙ্গা কালভার্টের এ অংশে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে কয়েকটি যানবাহন।  সর্বশেষ গত সোমবার এ গতের ২০ ফুট নিচে পড়ে একটি অটোরিক্সার যাত্রী শামান্তা নামের এক শিশু গুরুতর আহত হয়।  তাকে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। 

চা বিক্রেতা আমির হোসেন জানান, প্রথমে এর একাংশ ভেঙ্গে পড়লে বাকি অংশটুকুর নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা স্থানীয়রা বাঁশ সংগ্রহ করে নীচ দিয়ে দিয়ে দিয়েছি।  তবে কালভার্টটির একাংশ ভেঙ্গে পড়ার এক মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও এখনও সতর্কতার কোন নির্দেশনা দেয়নি কেউ।  আর ভাঙ্গা অংশটুকু দূর হতে বুঝাও যায় না। এতেই বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা তৈরী হয়েছে। আমাদের নতুন রাস্তার একমাত্র সমস্যা এই ভাঙ্গা কালভার্ট, এর কারনে আমরা ভারী যানবাহনে করে কোন ধরনের মালামাল পরিবহন করতে পারিনা। 

বরমী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল হক বাদল সরকার জানান, ওখানের ভাঙ্গা অংশের বিষয়ে আমি অবগত নই।  তবে খোঁজ নিয়ে অতি দ্রুত প্রশাসনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের প্রচেষ্ঠা নিবো। 

শ্রীপুর উপজেলা প্রকৌশলী সুজায়েত হোসেন জানান,এ কালভার্টের একটি অংশ ভেঙ্গে পড়ার সংবাদ পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছি।  দুর্ঘটনার ঝুঁকি থাকায় এখানে আশরা সতর্ক থাকার নির্দেশনা প্রদর্শন করা হবে।  দুর্ভোগ লাগবে খুব শীগ্রই কালভার্টটি নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হবে। 

Abu-Dhabi


21-February

keya