৯:১৯ এএম, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, সোমবার | | ২৯ সফর ১৪৪৪




মালিকের মাসিক আয় বেড়েছে ১৪ লাখ

জ্বালানী তেলের দাম বৃদ্ধিতে কপাল খুলেছে পরিবহন মালিকের, বেতন বাড়েনি শ্রমিকের

১৪ আগস্ট ২০২২, ১০:০৭ এএম |


প্রদীপ শীল, রাউজানঃ সুলতান মাহমুদ সাঈদ, একটি বেসরকারী কোম্পানির চাকুরিজীবি।  প্রতিদিন রাউজান থেকে চট্টগ্রাম নগরীতে যাতায়ত করতে হয় গণপরিবহন যোগে।  গত ৯ মাসে কয়েক ধাপে ভাড়া বেড়েছে প্রায় ৩০টাকা।   ভাড়া বাড়লেও বাড়েনি সুলতান মাহমুদ সাঈদ এর মাসিক বেতন।  শুধু সুলতান মাহমুদ সাঈদ নয়, প্রতিদিন কর্মনিয়ে শহরে যাতায়তকারী প্রতিটি যাত্রীর যাতায়ত খরচ বেড়েছে কিন্তু বাড়েনি উপর্জন।  অপরদিকে কপাল খুলেছে গণপরিবহন মালিকদের।  কিন্তু বেতন বাড়েনি পরিবহন শ্রমিকদের।  শ্রমিকদের অভিযোগ ন্যায্য মজুরী পান না তারা।  চট্টগ্রাম রাঙ্গমাটি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ইউনুচ মিয়া জানান, তেলের দাম বাড়লে, বাড়িয়ে দেন গাড়িভাড়া।  ভাগ্য খুলে না শ্রমিকের।  রাউজানে গণপরিবহন সংশ্লিষ্ট একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রাউজান থেকে ৪০ জন যাত্রী নিয়ে চট্টগ্রাম নগরীতে যেতে জ্বালানী তেল (ডিজেল)  লাগে ১০ লিটার বা তার চেয়ে কিছু কম।  প্রতি লিটার তেলের দাম বেড়েছে ৩৪টাকা।  সে হিসেবে প্রতি ট্রিপে খরচ বেড়েছে ৩৪০ টাকা।  কিন্তু যাত্রীদের থেকে নেয়া হচ্ছে ৬০০ টাকা।  প্রতি ট্রিপে ২৮০ টাকা লাভ করছেন গণপরিবহন সংশ্লিষ্টরা।  পূর্বের ভাড়া ছিল ৫০ টাকা, বর্তমানে ভাড়া বাড়িয়ে নেওয়া হচ্ছে ৬৫ টাকা।  হিসাব করলে দেখা যায়  ভাড়া বাড়ার কথা ৮টাকা, বাড়ানো হয়েছে ১৫ টাকা।  সে হিসেবে বাড়তি নেওয়া হচ্ছে যাত্রীপ্রতি ৭টাকা।  এ যেন কারও পৌষ মাস, আবার কারও সর্বনাশ।  যাত্রীরা বলেন, তেলের দাম বাড়লে বা কমলে পরিবহন সংশ্লিষ্টরাই লাভে থাকেন।  গণপরিবহন ব্যবহারকারী পেশাজীবিদের বেতন বাড়েনি।  মাস শেষে সংসার খরচ মিটাতে হিমশিম খেতে হয়।  তথ্য বলছে, রাউজানে ব্যক্তি মালিকানাধীন বাস  (গণপরিবহনের) সংখ্যা প্রায় ৯৫টি।  তৎমধ্যে গড়ে প্রতিদিন যাতায়াত করে ৪৫ টি যাত্রীবাহি বাস।  প্রতিটি বাস রাউজান থেকে চট্টগ্রাম নগরী , চট্টগ্রাম নগরী  থেকে রাউজান  আসা-যাওয়া করতে পারে দিনে চার বার।  প্রতিটি বাসের দৈনিক আয় বেড়েছে ১ হাজার ১২০টাকা।  সে হিসেবে ৪৫টি বাসের মাসিক আয় বেড়েছে ১৪ লাখ টাকা।  এ প্রসঙ্গে কথা বললে চট্টগ্রাম-বাস মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ সৈয়দ হোসেন কোম্পানী বলেন, ‘সরকারী  সিন্ধান্ত  অনুযায়ী যাত্রীপ্রতি ১৫টাকা বাড়ানো হয়েছে।  সরকারি সিন্ধান্তের বাইরে আমরা ভাড়া আদায় করছি না।  লাভ-লোকসান সব সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী।  এখানে আমাদেও করার কিছুই নেই। 


keya