৮:৩৫ পিএম, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার | | ৮ রবিউস সানি ১৪৪০




রক্তে সুগার পরিমাণ বাড়ার কিছু কারণ

০৯ অক্টোবর ২০১৮, ১১:২৫ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : ডায়াবেটিস (বহুমূত্র) আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেন।  আর এই ডায়াবেটিস এক সুস্থ মানুষকে ক্রমশ নানা রোগের দিকে ঠেলে দেয়।  ডায়াবেটিস পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণের কোনও সুযোগ নেই। 

তবে ওষুধ সেবন, শরীর চর্চা এবং খাওয়া-দাওয়া নিয়মমাফিক জীবনযাপন এই রোগ থেকে আপনাকে নিরাপদে রাখতে পারে। 

মূলত রক্তে শর্করা বা সুগারের পরিমাণ বেড়ে গেলেই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয় মানুষ।  কিন্তু কেন বাড়ে এই সুগার।  রক্তে সুগার বাড়ার কিছু কারণ তুলে ধরা হলো :

১. খাদ্য তালিকায় শর্করা জাতীয় খাবার (ভাত, বিরিয়ানি, রুটি, পরোটা) অধিক পরিমাণে থাকলে রক্তে শর্করা বেড়ে যায়। 

২. মিষ্টি জাতীয় খাবার (কেক, জ্যাম, জেলি, ঘনীভূত দুধ, সফট ড্রিঙ্ক, চায়ে চিনি, আইসক্রিম ইত্যাদি) নিয়মিত খেলে রক্তে সুগার বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। 

৩.  ঘি, মাখন, ছানা, লাল মাংস বেশি খেলে রক্তে চিনির পরিমাণ বেড়ে যায়। 

৪. ধূমপান, মদ্যপান, ফাস্টফুড রক্তে সুগার বাড়াতে পারে। 

৫. পর্যাপ্ত ঘুম না হলে রক্তে সুগার বাড়তে পারে। 

৬. দুশ্চিন্তা ডায়াবেটিক রোগীদের প্রধান শত্রু।  এটা শুধু রোগীর রক্তে শর্করাই বাড়ায় না, এ রোগ জন্ম দিতেও ভূমিকা রাখে। 

৭. ডায়াবেটিক রোগীদের অল্প অল্প করে বারে বারে খাবার খেতে হয়।  দীর্ঘ সময় খাবার না খেয়ে একবারে বেশি খাবার খেলে রক্তে সুগার বেড়ে যায়। 

৮. সাদা চালের ভাত টাইপ ২ ডায়াবেটিক রোগীদের ঝুঁকি বাড়ায়।  ২০১২ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, সাদা চালের খাবার খেলে প্রতিদিনই ঝুঁকি ১১ শতাংশ হারে বেড়ে যায়।  এ খাবার চিনির মাত্রাও বাড়িয়ে দিতে পারে।  এর পরিবর্তে বাদামি চালের খাবার খেতে পারেন।  এতে রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকবে। 

৯. সিরাপ, সুগার এবং ক্রিমসমৃদ্ধ ব্লেন্ডেড কফি ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।  এক কাপ ব্লেন্ডেড কফিতে ৫০০ ক্যালরি, ৯৮ গ্রাম কার্বহাইড্রেট এবং ৯ গ্রাম ফ্যাট থাকে।  এর পরিবর্তে নন-ফ্যাট সংস্করণ কফি বেছে নিন। 

১০. সব তরতাজা ফলেই ভিটামিন ও ফাইবার রয়েছে।  কিছু ফলে সুগার অনেক বেশি থাকে।  কলা, তরমুজের পুষ্টিগুণ ভালো থাকলেও এতে গ্লুকোজের পরিমাণ প্রচুর।  রক্তে শর্করা বাড়িয়ে দিতে পারে।  তাই ব্লুবেরি এবং বেরি জাতীয় ফল বেশি খান। 

১১. শারীরিক পরিশ্রম না করলে ডায়াবেটিক রোগীর রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে থাকে না।  আপনি যতটুকু খাবেন ততটুকু পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা করবেন।  ঘরের টুকটাক কাজ করুন। 

প্রতিদিন সকাল-বিকাল নিয়ম করে অন্তত একঘণ্টা হাঁটুন ও হালকা ব্যায়াম করুন।  হাঁটার সময় চেষ্টা করুন প্রতি সেকেন্ডে তিন কদম ফেলতে।  কারণ, শুধু হাঁটলেই হবে না, আপনাকে ঘাম ঝরাতে হবে। 

১২. চাইনিজ খাবার মুখরোচক হলেও ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ক্ষতিকর।  এতে রক্তে সুগারের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়ার মতো যথেষ্ট উপাদান রয়েছে। 

১৩. সকালের নাস্তায় ফলের রস খুব স্বাস্থ্যকর হলেও তা ডায়াবেটিক রোগীর জন্য হুমকি।  তা ছাড়া দোকানে পাওয়া যায় এমন ফলের রসে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে।  এর বদলে কম সুগার রয়েছে এমন ফলের একটি বা দুটি টুকরো খেতে পারেন। 

১৪. ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য বেশ মারাত্মক খাবার।  একটু বেশি পরিমাণ খেলে রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যাবে। 

অতএব সাবধান...!



keya