৬:২৭ এএম, ৮ ডিসেম্বর ২০২২, বৃহস্পতিবার | | ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪




রাউজানে ২৪৭টি মন্ডপে চলছে শারদীয় দুর্গাপূজার প্রস্তুতি

রং তুলির আঁচড়ে মূর্ত হয়ে উঠছে দেবীর রূপ

২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৩০ পিএম |


প্রদীপ শীল, রাউজানঃ

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা আগামী ১ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে।  পূজাকে সামনে রেখে প্রতিটি ঘরে ঘরে দেবীদুর্গার আগমনী বার্তায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা নিচ্ছে প্রস্তুতি।  এ দুর্গাপূজা জন্য প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন রাউজান উপজেলার অর্ধ শত মৃৎশিল্পী।  উপজেলার বিভিন্ন পূজাম-প ও মৃৎশিল্পী পাড়া ঘুরে দেখা যায়, কাঁদা-মাটি, কাঠ, খড় ও সুতলি দিয়ে শৈল্পিক ছোঁয়ায় তিলতিল করে গড়ে তোলা হয়েছে দেবীদুর্গার প্রতিমা।  প্রতিমা তৈরির কাজ এখন শেষ পর্যায়ে।  চলছে রংতুলির কাজ।  শিল্পীদের রং তুলির আঁচড়ে মূর্ত হয়ে উঠছে দেবীর রূপ।  রাউজান উপজেলায় ২৪৭টি পূজাম-পে চলছে আলোকসজ্জা কাজও।  যেন দম ফেলার ফুসরত নেই ডেকোরেশন মালিক ও প্রতিমা তৈরির কাজে নিযোজিত মৃৎশিল্পীদের।  প্রতিটি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঘরে ঘরে আনন্দ উৎসব ও পূজার নানান আনুষ্ঠিকতা নিয়ে ব্যস্ত গৃহিনীরা।  রাউজান সদর জগন্নাথ সেবাশ্রমে প্রতিমা তৈরির কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎশিল্পী প্রশন্ত আচার্য্য জানান, এ বছর ২৫- ৩০টি প্রতিমা তৈরির অর্ডার নিয়েছেন তিনি ৩০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকার মধ্যে।  প্রতিমা তৈরির কাজ শেষে-চলছে রংতুলির কাজ।  রাউজান উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরী ও সাধারন সম্পাদক সুমন দে বলেন, রাউজানে এবার সব মিলিয়ে ২৪৭টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে।  পূজা চলাকালে  পুলিশ, আনসার সদস্যদের পাশাপশি স্বেচ্ছাসেবকরা পূজা মন্ডপে দায়িত্ব পালন করবে।  রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুস সামাদ শিকদার বলেন, রাউজানের ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকায় সর্বমোট ২৪৭টি পূজা মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।  প্রতিটি পূজা ম-পে যেন সনাতন ধর্মালম্বীরা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পূজা পালন করতে পারে সে লক্ষ্যে আইনশৃঙ্খলা বজায় রাখতে কাজ করবে পুলিশ ও আনসার ভিডিপির সদস্যরা।  উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হবে বলেও জানান তিনি।  রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা আব্দুল্লাহ্ আল হারুন বলেন ,শারদীয় দুর্গোৎসব চলাকালে নিরাপত্তায় পুলিশ টহলের ব্যবস্থা করা হবে।  আগামি ১ অক্টোবর শনিবার থেকে শুরু হবে শারদীয় দুর্গোৎসব। 


keya