৮:৩৬ এএম, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার | | ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০


বাঘাইছড়ির আমতলি ইউপি চেয়ারম্যান সহ ১০জনের বিরুদ্ধে বন বিভাগের মামলা

২৭ জুন ২০১৭, ০১:৫৯ এএম | সাদি


নিজস্ব প্রতিনিধি, বাঘাইছড়ি (রাঙামাটি): সরকারি কাজে বাধাদান, সরকারি গাছ কর্তন, জোর পূর্বক ছিনিয়ে নেওয়া, নারী নির্যাতনে ফাসানো, আমতলী বাজারে না যাওয়ার হুমকি সহ প্রানে মেরে ফেলার হুমকি  প্রাদানের দায়ে রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার ৩৭ নং আমতলি ইউপি চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরী সহ সংঙ্গিয় ১০জনের বিরুদ্ধে,পার্বত্য চট্রগ্রাম উত্তর বন বিভাগ পাবলাখালী রেঞ্জ বিট কর্মকর্তা বিপুলেশ্বর দেবনাথ স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ বাঘাইছড়ি থানায় দায়ের করা হয়। 

বাঘাইছড়ি থানার মামলা নং (০১) তারিখ ২২/০৬/১৭।  অভিযুক্ত বক্তিরা হলেন যথাক্রমে- ইউপি চেয়ারম্যান ১ রাসেল চৌধুরী,২ মোঃ ফিরোজ মিয়া(৬০) অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য, ৩ মোঃ আলাউদ্দিন (৪০),  ৪ মোঃ মাঈনউদ্দিন (৪০), ৫ মোঃ সামছু (৩৮), ৬ মোঃ এমদাদ (৪০), ৭ মোঃ শহিদুল ইসলাম (২২), ৮ মোঃ জীবন(১৯), বিট কর্মকর্তার দাখিল কৃত অভিযোগ মর্মে জানা যায়, গত ২২ তারিখ বৃহস্প্রতিবার সকাল ৮ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, পাবলাখালী রেঞ্জ সর্দারপাড়া রাস্তার পাশে কেবা কাহারা গাছ কাটিতেছে। 

সংবাদের ভিত্তিতে, বিট কর্মকর্তার নেতৃত্বে, পাচ সহকর্মী নিয়ে ঘটনাস্থলে যান তিনি।  সেখানে গিয়ে দেখা যায় একটি সেগুন গাছ কর্তন করে মাটিতে ফেলে চার টুকরা করা হয়।  ঘটনাস্থলে উপস্থিত  ২নং হতে ৮নং এজাহারে নাম  উল্লেখিত ব্যক্তিদের  বিট কর্মকর্তা, গাছ কাটার কারন জিঙ্ঘাসা করিলে ২নং হতে ৮নং বিবাদী গন বলেন, আমরা ইউপি চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরী নির্দেশে গাছ কেটেছি।  ২নং বিবাদী ফিরোজ মিয়া মোবাইল ফোনে বিষয়টি রাসেল চেয়ারম্যানকে জানান।  চেয়ারম্যান ফোনে বিট কর্মকর্তাকে ইউপি কার্যলয়ে যেতে বলেন।  তৎক্ষনাত  তিনি ইউপি কার্যলয়ে নাগেলে ঘটনাস্থলে ইউপি চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরী নিজে হাজির হয়ে, বিট কর্মকর্তাকে বলেন, আমার নির্দেশে গাছ কাটা হয়েছে।  আপনি একনি ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। 

এক পর্যায়ে দুজনের মাঝে তুমুল বাড়াবাড়ি হয়।  অভিযোগে আরো জানা যায়, চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরী বিট কর্মকর্তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ,নারী নির্যাতন মামলায় ফাসানো সহ আমতলী বাজার এলাকায় গেলে প্রানে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।  অভিযোগে আরো জানা যায়, সেগুন গাছের কর্তন কৃত চার টুকরা গাছ বিট অফিসে নিয়ে যেতে চায়লে, দুই বিবাদীর নাম উল্লেখ করে বলা হয়, বিবাদী  ৯নং মোঃ ফোরকান(৩৫), ১০ মোঃ বেলায়েত হোসেন (৩২)।  বিট কর্মকর্তাদের সাথে জোর খাটিয়ে সরকারি কাজে বাধা প্রধান করে নৌকা যোগে গাছ নিয়ে চলে যায়। 

কর্তন কৃত সেগুন গাছের আনুমানিক মুল্য ত্রিশ হাজার টাকা বলে জানাযায়।  বাগবিতন্ডের এক পর্যায়ে বিট  কর্মকর্তারা অফিসে ফিরে গেলে এখয়দিন  আনুমানিক ১২ঘটিকার সময় আবারো বিবাধীগন, একটি ৬ফুট ভেরের ৩০ ফুট লম্বা( ইউকেলিপটাস)গাছ দেশিয় করাত দিয়ে কর্তন করতে গেলে বন বিভাগের লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়। 

এব্যাপারে বিট কর্মকর্তা অভিযোগের বাদী বিপুলেশ্বর দেবনাথের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বর্তমানে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছি।  বিষয়টি আমাদের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের জানিয়ে বাঘাইছড়ি থানায় অভিযোগ দিয়েছি।  এব্যাপারে আমতলী ইউপি চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরীর সাথে ফোনে যোগাযোগ করে ঘটনা সম্পর্কে জানতে চায়লে তিনি বলেন,ঘটনার দিন তিনি পরিষদের  কাজে উপজেলা সদরে ছিলেন। 

এলাকায় উপস্থিত ছিলেননা।  তিনি আরো বলেন, সর্দারপাড়া  হয়ে একটি নতুন রাস্তা তৈরি করা হচ্ছে রাস্তার পাশের একটি গাছ কাটার জন্য আমি বন বিভাগকে অনুরুধ করি। উনারা কাটব কাটছি বলে দীর্ঘদিন যাবত সময় ক্ষেপন করে  গাছ না কেটে উদ্যেশ্য মুলক ভাবে আমাকে আমার দলিয় লোকজনকে হেয় প্রতিপন্ন সহ তাদের অসথ চরিতার্থ ধামাচাপা দিতে আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করেছেন।  অভিযোগের সত্যতা জানতে চায়লে বাঘাইছড়ি  থানার অফিসার্স ইনচার্জ আমিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বন বিভাগের দায়ের করা মামলায়, এজাহার ভুক্ত আসামীদের মধ্যে আমরা ফোরকান নামে  একজনকে ধরতে সক্ষম হয়েছি।  শনিবার তাকে আদালতে প্রেরন করা হবে। 

জানা যায়, শনিবার কোর্ট বন্ধের কারনে, রাসেল চেয়ারম্যান আসামি ফোরকানের জামিন নিতে উকিলের সহযোগীতায়  স্পেশাল কোর্ট পরিচালনার ব্যাবস্থা করেন। একয়দিন রাংগামাটি আদালত  মেজিষ্ট্রেট ঝুমু সরকারের আদালতে আসামি ফোরকানের জামিন মন্জুর করেন। 


keya