৮:৪০ পিএম, ২১ এপ্রিল ২০১৯, রোববার | | ১৫ শা'বান ১৪৪০




প্রেমিক আইনজীবী সহকারি জুয়েলের বিরুদ্ধে কলেজ ছাত্রীর মামলা

১০ জুলাই ২০১৭, ০৯:১৫ পিএম | সাদি


হাবিব সারোয়ার আজাদ, তাহিরপুর প্রতিনিধি : স্ত্রীর স্বীকৃতির দাবিতে টানা সাড়ে ২২ ঘন্টা অনশনের পর সুনামগঞ্জের তাহিরপুর সেই প্রতারক প্রেমিক জয়নাল আবেদীন জুয়েলে(সুনামগঞ্জ আদালতের আইনজীবী সহকারি)’র বিরুদ্ধে কলেজ ছাত্রী কাঁকলী আক্তার রত্না  অবশেষে থানায় মামলা দায়ের করলেন। ’

রোববার রাতে সুনামগঞ্জ সদের মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দায়ের করা মামলায় তাহিরপুরের চারাগাঁও মাইজহাঁটির জয়নাল আবেদীন জুয়েলকে প্রধান আসামী করে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে ভুল বুঝিয়ে প্রেম, বিয়ের নামে ধর্ষণে তার অপকর্মের  বন্ধুরুপী সহযোগী হিসাবে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামী করা হয়েছে। ’

মামলা ও ভিকটিম সুত্রে জানা গেছে,  সুনামগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজে স্নাতকে পড়ুয়া তাহিরপুরের  শ্রীপুরের কুড়েরপাড়া সাবেক ইউপি সদস্য শাহনূর মিয়ার মেয়ে কাঁকলী আক্তার রত্নার সাথে একই উপজেলার কলাগাঁও বাজারের পল্লী চিকিৎসক চারাগাঁও মাইজহাঁটির বরজু ওরফে বশির ডাক্তারের ছেলে জয়নাল আবেদীন জুয়েল প্রথমে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ২০১৪ সালে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। 

পরবর্তীতে এলাকার কয়েকজনকে বন্ধু-বান্ধবকে সাক্ষী রেখে সুনামগঞ্জে ২০১৫ সালে ১৫ ফেব্রুয়ারি ২ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করে। ’ বিয়ের পর জেলা শহরের ষোলঘরের ভাড়াটিয়া বাসায় প্রায়ই স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে মেলামেশা করে আসছিলেন জুয়েল -কাঁকলী । ’
এদিকে পার্শ্ববর্তী বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শাহপুরে জুয়েল সোমবার দ্বিতীয় বিয়ে করতে যাচ্ছে জেনে  স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে কলেজ ছাত্রী জয়নাল আবেদীন জুয়েলের চারাগাঁও মাইজহাটির বাড়িতে পৌছে শনিবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে অবস্থান নিয়ে অনশন শুরু করেন। 

কাঁকলীকে নিজ বাড়িতে দেখে জুয়েল সেই বিয়ে এবং প্রেমকে অস্বীকার করে তার সহোদর বড়ভাই ছাত্রলীগের বড় নেতা  জাভের আহমদ জাভেদের প্রভাবে বাড়ি ছাড়া করে জেলে ঢুকানোর জন্য উল্টো তাহিরপুর থানায় কাঁকলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করে। ’ পরদিন রোববার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে তাহিরপুর থানার এক পিএসআইর নেতৃত্বে একদল পুলিশ চারাগাঁও মাইজ হাঁটির জুয়েলের পৈতৃক বাড়ি থেকে কাঁকলীকে কৌশলে সরিয়ে দেবার মানসিক চাঁপ সহ নানা চেষ্টা করে বিকেল পর্য্যন্ত অনশন ভাঙাতে ব্যর্থ হন। ’

পরবর্তীতে জেলা পুলিশের দায়িত্বশীল সুত্রের বরাত দিয়ে আইনি সহায়তা দেয়ার আশ্বাস দিলে কাঁকলী ওইদিন সন্ধায় ৬টায় তাহিরপুর থানায় গেলে আইনি সহায়তা পাবার আশ্বাস পেয়ে অনশন ভঙ করে।  এরপর কাঁকলী জুয়েল ও তার কয়েকজন সঙ্গীয় বন্ধু বান্ধবের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ’

থানার ওসি (তদন্ত) লিখিত অভিযোগ প্রাপ্তির পর রাত ৯টার দিকে তা ফরোয়ারর্ডিং করে মামলা রুজুর অনুমতি প্রাপ্তির জন্য জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে পুলিশী নিরাপক্তায় কাঁকলী রাতেই পাঠিয়ে দিলে ঘটনাস্থল সুনামগঞ্জ জেলা সদর হওয়ায় ও জেলা পুলিশ প্রশাসনের দায়িত্বশীল অফিসারের অনুমোদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে সদর মডেল থানায় রাত ০২.১৫মিনিটে মামলাটি ডায়েরী ভুক্ত করা হয়। ’

এদিকে এ ঘটনা জানাজানি পর রবিবার রাতেই বিশ্বম্ভরপুরের শাহপুরের কনের বাড়ি থেকে জুয়েলের পরিবারকে পুর্ব নির্ধারিত বিয়ে ভেঙে দেয়া হয়।  অপরদিকে তাহিরপুরের কলাগাঁও মাইজহাঁটির বাড়িতে জুয়েলের বরযাত্রী হতে সোমবার সকালের পর অনেক আত্বীয় স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবরা আসলেও ঘটনা সম্পর্কে জেনে ও বিয়ে ভন্ডুলের খবর পেয়ে হতাশ এমনকি কেউ কেউ জুয়েলের এমন অপকর্মে  বিরক্তিবোধ প্রকাশ করে দুপুরেই আগেই ফিরে গেছেন নীজ নীজ বাড়ির অভিমুখে। 

সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. বরকতল্লাহ খাঁন সোমবার সন্ধায় মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বললেন, অভিযুক্ত জুয়েলকে গ্রেফতারের পুলিশী চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে এমনকি মেয়েটি যাতে ন্যায় বিচার প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত না হয় সেদিক খেয়াল রেখে পুলিশ যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়েই মামলাটির তদন্ত করছে।