২:৩২ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | | ২৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৮

South Asian College

তবে কি সালমান শাহ’র স্ত্রী সামিরাকে সন্দেহ করবো?

১০ আগস্ট ২০১৭, ১০:১৪ এএম | পলি


এসএনএন২৪.কম : বয়স তখন নিতান্ত কম।  হলে গিয়ে ছবি দেখার অনুমতি নেই।  মনে আছে, রীতিমত গো ধরেছিলাম, হলে গিয়ে ছবি দেখবোই।  সালমান শাহ’র ছবি।  বাড়ির লোকেরা শর্ত দিয়ে দিয়েছিল, রেজাল্ট ভালো করতে পারলে হলে গিয়ে ছবি দেখার অনুমতি মিলবে।  কাজটা আমার জন্য খুব সহজ ছিল।  ফলে সহজেই বাবা বাধ্য হয়েছিলেন, আমায় হলে নিয়ে যেতে।  ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ আমার জীবনে হলে গিয়ে দেখা প্রথম বাংলা ছবি। 

প্রচলিত নায়কের ভাঁজ করা চুল, কোমর দোলানো নাচ আর টিসুম, টিসুম মারপিটের ফর্ম ভেঙে নতুন এক নায়কের আবির্ভাব- সালমান শাহ।  ঢাকার ফিল্মে এমন নায়ক সত্যিই আর একজনও নেই।  দেখতে সুদর্শন, বাচনভঙ্গি স্পষ্ট ও জড়তাহীন, অভিনয় অসাধারণ।  শুধু আমি কেন, আমার মতো সালমান ভক্ত তখন দেশে লক্ষ লক্ষ।  আজাদ প্রোডাক্টস সেসময় সালমান শাহ’র ভিউকার্ড, পোস্টার বিক্রি করেই কোটি কোটি টাকা উপার্জন করেছিল।  সালমান শাহ’ই সম্ভবত একমাত্র দেশীয় হিরো যার ভিউকার্ড পরম যত্নে, ব্যক্তিগত সংগ্রহে রেখেছিলাম আমিও অনেকদিন। 

সালমান শাহ’র স্ত্রী যিনি এক সময় মডেল ছিলেন, আশা করব আশ্চর্য নিরবতা ভেঙে সততার সঙ্গে কিছু বলবেন

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর।  হঠাৎ আকাশছোঁয়া জনপ্রিয়তার নায়ক সালমান শাহ’র আত্মহত্যার খবর।  মানুষ স্তম্ভিত।  সালমান আত্মহত্যা করেছে? উহ্! এত মিষ্টি নায়ক, সুদর্শন নায়ক, সুঅভিনেতা আত্মহত্যা করেছে? কেন, কী কারণে এমন আত্মঘাতী হলেন? তবে কি অন্তর্গত কষ্ট, বেদনা, হতাশা, ক্ষোভ, ক্ষত ছিল ভেতরে ভেতরে, যা দেখা যায়নি বাইরে থেকে।  কেউ কেউ শাবনূর কে দায়ী করলেন, দায়ী করলেন শাবনূর-সালমান পর্দা ও বাস্তবে জুটি হওয়া- ভেঙে যাওয়াকে। 

প্রথম থেকেই সালমান শাহ’র পরিবার ঘটনাটিকে আত্মহত্যা হিসেবে দেখতে নারাজ ছিলেন।  অপমৃত্যুর মামলা হলে আপত্তি জানায় পরিবার।  পরে স্ত্রী সামিরা হক, ফিল্ম ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মদ ভাইসহ ১১ জনকে দায়ী করে, আসামি করে মামলা দায়ের করেন সালমান শাহের পরিবার।  গত ক’দিন ধরে ফেসবুকে সালমান শাহ’র মৃত্যু নিয়ে আলোচিত ভিডিওবার্তা প্রকাশকারী মহিলাটি এই ১১ জনেরই একজন।  নাম রাবেয়া সুলতানা রুবি, যিনি যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ায় থাকেন।  বিউটিশিয়ান ছিলেন এক সময়।  প্রথম স্বামী ক্যাপ্টেন জামিলের মৃত্যুর পর এক চাইনিজ নাগরিককে বিয়ে করেন, যিনি ঢাকার ‘সংহাই’ চাইনিজ রেস্টুরেন্টের মালিক ছিলেন। 

ভাইরাল হওয়াতে অনেকেই দেখেছেন হয়তো ভিডিওটি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।  তিনি দাবি করছেন, সালমান শাহকে খুন করা হয়েছে।  সালমান আত্মহত্যা করেননি।  চীনাদের দিয়ে খুনটি করানো হয়।  পরবর্তীতে খুনিকেও হত্যা করা হয়।  তিনি সাক্ষ্য দিতে চান।  সালমানের মা, তার বান্ধবী নীলা চৌধুরীকে বারবার অনুরোধ করছেন, তিনি যেন এই খুনের ঘটনা পুনঃতদন্তের ব্যবস্থা করেন।  রুবি বারবার দাবি করতে থাকেন তার ভাই রুমিকে দিয়ে খুনটি করানো হয়, পরে তাকেও হত্যা করা হয়।  তার লাশ তুলে পোস্টমর্টেম করলে প্রমাণ মিলবে, তাকে গলাটিপে হত্যা করা হয়েছে।  আর এ ঘটনায় সামিরা, সামিরার পরিবার ও তার স্বামীও জড়িত বলে দাবি করেন তিনি। 

নীলা চৌধুরী অবশ্য শুরু থেকেই বলে আসছিলেন, তার ছেলে নায়ক সালমান শাহ’কে হত্যা করা হয়েছে।  নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, ‘প্রিয় দেশবাসী।  আমাকে সাহায্য করুন।  দেখুন, রুবি সুলতানার স্বীকারোক্তি।  কীভাবে সালমানকে হত্যা করা হয়েছে।  যেভাবে পারেন এফবিআইকে জানান, বাংলাদেশের সকল চ্যানেলকে অনুরোধ করছি রুবির স্বীকারোক্তিটা চালিয়ে দেন। ’ তিনি আরও বলেন, ‘প্রিয়জন, খেয়াল রাখবেন এই নিউজের পর অনেকে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করার চেষ্টা করবে। ’ এরপর তিনি সালমানের স্ত্রী সামিরা ও তার পরিবার যেন দেশ থেকে পালিয়ে যেতে না পারে সে দিকেও নজর দিতে অনুরোধ করেন। 

তিনি ফেসবুকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহায়তাও চেয়েছেন।  ফেসবুকে তিনি বলেন- ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, একজন সর্বস্বান্ত জননী আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।  একবার ভিডিওটি দেখুন (সুলতানা রুবির ভিডিওবার্তা)।  ইমনের (সালমান শাহ) বিচার হলেও আমি আর কোনোদিন ইমনকে পাব না।  কিন্তু আপনার সরকার কলঙ্কমুক্ত হবে।  আল্লাহ আমাকে সাহায্য করেছেন, আপনিও আমাকে সাহায্য করুন সত্য উদঘাটনে।  আমি কৃতজ্ঞ থাকব। ’

অবশ্য এই ভিডিওবার্তা নিয়ে সালমানের শ্বশুরের বক্তব্য হলো, রুবি এলোমেলো, মানসিকভাবে বিপর্যস্থ।  তবে এই ভিডিও বার্তায় বা সালমান শাহের মৃত্যুর ঘটনায় তার স্ত্রী সামিরার আচরণ ও বিস্মিত করেছে ভক্তদের।  এত যে নানাজন মন্তব্য করছে, অভিযোগ করছে তিনি নিশ্চুপ কেন? তার এই নিরবতাও রহস্যজনক।  মুস্তাক ওয়াইজ নামের এক ব্যবসায়ীকে বিয়ে করে তিনি থাইল্যান্ডে থাকেন বলে শোনা যায়।  সালমান শাহ হত্যাকাণ্ডের আরেক অন্যতম আসামি বিএনপি সমর্থক শিল্পোদ্যাক্তা আজিজ মোহাম্মদ ভাইও থাইল্যান্ডেই থাকেন।  হত্যা মামলার আসামিরা অন্য দেশে গিয়ে নিশ্চিন্তে ঘুরে বেড়ান, ঘর সংসার করেন, ব্যবসা বাণিজ্য করেন।  ভাবতে অবাকই লাগে। 

ভিডিওবার্তা প্রকাশকারী এই মহিলার সব কথা যে সত্য হয়তো তাও নয়।  তার নিজের কথাতেও ফাঁক রয়েছে অনেক।  এত কাল তবে চুপ থাকলেন কেন, সে প্রশ্নেও উত্তর দিয়েছেন তিনি।  জানিয়েছেন, খুন হয়ে যাওয়ার বিষয়টি তিনি মাত্র কিছু দিন আগে জেনেছেন।  তবে তার বক্তব্যে কিছুটা অসঙ্গতি রয়েছে বলেও মনে হয়েছে।  বক্তব্যে অসঙ্গতির মাত্রা কম-বেশি হোক, মানুষ চায় পিবিআই যে পুনঃতদন্ত করছে তা যেন যৌক্তিক ও যথার্থ হয়। 

সামিরা হক, সালমান শাহ’র স্ত্রী যিনি এক সময় মডেল ছিলেন, আশা করব আশ্চর্য নিরবতা ভেঙে সততার সঙ্গে কিছু বলবেন।  মনে রাখতে হবে, প্রতিটি প্রাণই প্রাণ, প্রতিটি জীবনই জীবন।  তা না হলে সব যৌক্তিক বা অযৌক্তিক সন্দেহের তীর তার দিকে যাবেই। 

লেখক :  জব্বার হোসেন, সম্পাদক, আজ সারাবেলা।  ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, মিডিয়াওয়াচ।  পরিচালক, বাংলাদেশ সেন্টার ফর ডেভলপমেন্ট জার্নালিজম অ্যান্ড কমিউনিকেশন।  সদস্য, ফেমিনিস্ট ডটকম, যুক্তরাষ্ট্র। 

***মুক্তমতে প্রকাশিত সব লেখা একান্তই লেখকের নিজস্ব মতামত।  এর সাথে পত্রিকার কোন সম্পর্ক নেই।