১:২১ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাংসদ আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১২:২৭ পিএম | রাহুল


এসএনএন২৪.কম : ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আবেদিন খান তুহিন বলেছেন, আমার জনপ্রিয়তা নষ্ট করতে নান্দাইলে আমার বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র চালানো হচ্ছে ।  বস্তুত তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের জন্য আওয়ামীলীগ থেকে আওয়ামীলীগের ক্ষতি করছে এমন কিছু নেতা কর্মীকে ইঙ্গিত করেন তিনি ।  তিনি বলেন, চক্রটি আমার নামে ভূয়া কাল্পনিক মনগড়া অভিযোগ এনে দুর্নীতি দমন বিভাগে অভিযোগ করেছে । 
 
এই ষড়যন্ত্রকারী আমার সামাজিক মর্যাদা , সন্মান এবং জনপ্রিয়তা ক্ষুন্ন করতেই এই ধরনের কার্যক্রম করে তদন্তের আগেই ঢালাও অপপ্রচার চালাচ্ছে ।  নান্দাইলে আওয়ামীলীগের প্রত্যেকটি কর্মসূচী পালন করেছি ।  ঐসব কর্মসূচী সফল হলেই তারা আমার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচারে উঠে পড়ে লাগে ।  সম্প্রতি পত্রিকায় ৩ কোটি টাকার জিআর চাল আত্মসাত প্রসঙ্গে ময়মনসিংহ প্রতিদিনের সাথে দেয়া এক সাক্ষাতকারে  তিনি উপরোক্ত কথা বলেন । 
 
সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আবেদিন খান তুহিন বলেন, ‘অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ে আমি কিছুই জানি না।  আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে।  প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে আলাদা কর্মকর্তা আছেন।  তাদের দায়িত্বটা কি? এমপি হিসেবে আমার কাছে যেসব প্রকল্প আসে সেগুলোতে গুরুত্ব ভেবে বরাদ্দ দেয়া হয়।  কিন্তু সংশ্লিষ্ট প্রকল্পে কাজ হচ্ছে, না লুটপাট হচ্ছে এসব দেখার দায়িত্ব প্রকল্প কর্মকর্তাদের। 
 
জানা যায়, পারিবারিক আবহ একজন মানুষের শৈশব, কৌশর ও পরিণত জীবনের ভিত গড়ে তোলার ক্ষেত্রে যথেষ্ট ভূমিকা রাখে।  ছোট বেলায় মানুষ যে পরিবেশে বেড়ে ওঠে সেটাই তার আগামী দিনের পথ চলার পাথেয় হয়। 
 
ঠিক তেমন রীতির ব্যতিক্রম ঘটেনি সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আবেদিন খান তুহিনের ক্ষেত্রে।  ছোট বেলা থেকেই তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রাজনৈতিক অঙ্গনের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিয়ে বড় হয়েছেন।  দানবীর হিসেবেও নিজ নির্বাচনী এলাকা নান্দাইলে  তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয়।  তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকার অনেক জনকল্যাণ মূলক কাজের সাথে নিবিড় ভাবে সম্পৃক্ত। 
 
বিশেষ করে, গরীব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদেরকে স্কালারশিপ প্রদান, মসজিদ ও মন্দির নির্মাণ ও সংস্কার এবং স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠায় নিরলস ভাবে অগ্রগামী ভূমিকা পালন করে চলেছেন আনোয়ারুল আবেদিন খান তুহিন এমপি  ।  বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে  আনোয়ারুল আবেদিন খান তুহিন  নান্দাইলে এমপি হিসাবে নির্বাচিত হওয়ায় পর এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন । 
 
উপজেলাবাসীর দাবি বিগত ৪১ বছরেও তার মত কাজ কোন জনপ্রতিনিধি করতে পারেননি ।  সূত্র বলছে, বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চ নির্মান, উপজেলায় ১৫টি মাধ্যমিক স্কুল ও মাদ্রাসার একাডেমিক ভাবন নির্মাণ, ৪০টি সরকারি প্রাথমিক স্কুলের নতুন ভবন, শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০০টি ল্যাপটব , ১টি আধুনিক আ্যাম্বুলেন্স, হাসপাতাল মার্কেট নির্মান, হাসপাতালের সামনে দৃষ্টিনন্দন ফটক নির্মান,উপজেলা পরিষদের সম্প্রসারিত ভবন ও হলরুম নির্মান,উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মান,ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন নির্মান,সরকারি কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজ প্রতিষ্ঠা, নান্দাইল ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মান,মুশুল্লী ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মান, জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মান, মুশুল্লী সাব -স্টেশন নির্মান,৪২ টি সৌর বিদ্যুতের রোড লাইট স্থাপন,৫ টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মান, চন্ডীপাশা চৌরাস্তা হতে বাশাটি বাজার ভায়া জনতা বাজার পর্যন্ত রাস্তা পাকাকরন, নান্দাইল দেওয়ানগঞ্জ রাস্তা প্রশস্তকরন সহ পাকাকরন,নান্দাইল -বাকচান্দা রাস্তা প্রশস্তকরনসহ পাকাকরন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর ভবন নির্মান,(শহীদ স্মৃতি আদর্শ কলেজ, সম্মুর্ত্ত জাহান মহিলা কলেজ,খুররম খান চৌধুরী কলেজ,মুশুল্লী হাইস্কুল এন্ড কলেজে চারতালা ভবন নির্মান), উপজেলা পরিষদ মসজিদ নির্মান,বারঘড়িয়া আকন্দ বাড়ি জামে মসজিদ নির্মান, দেউলডাংরা ভূইয়াবাড়ি জামে মসজিদ নির্মানসহ অসংখ্য মসজিদ, মাদরাসা ও মনদিরে অনুদান প্রদান,মধুপুর বাজার সেতু নির্মান, ১০ টি খাল কনন,৫ টি মুক্তিযোদ্ধার জন্য বাড়ি নির্মান, ব্যক্তিপর্যায়ে ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে ২ হাজার ২০০ টি সৌরবিদ্যুতের রোড লাইট স্থাপন
 
৫০ কিলোমিটার কাাঁচা রাস্তাকে পাঁকা রাস্তায় উন্নীতকরণ, ৫০ কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার, ২৩টি গ্রামীণ সেতু, ৩টি বড় ব্রিজ,  কোটি টাকা ব্যয়ে সিডস্টোর বাজারের উন্নয়ন, ৫০১ কিলোমিটার নতুন লাইন নির্মাণের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগ সুবিধা ছাড়াও ৫০০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করেছেন আনোয়ারুল আবেদীন তুহিন এমপি ।  নান্দাইলে বাল্যবিহাহ রোধ, মাদক প্রতিরোধসহ মডেল নান্দাইল বিনির্মাণে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন তিনি ।  নান্দাইলবাসী উপজেলাবাসীর ভাগ্যোন্নয়নে তার অবদানের কথা স্বীকার করে বলেন, যুগ যুগ আমরা তাকে আমাদের অভিভাবক এবং জনপ্রতিনিধি তথা এমপি হিসাবে দেখতে চাই ।