৮:৩২ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ২ মুহররম ১৪৩৯

South Asian College

একই কাজে দুই এমপি উদ্বোধন করলেও কাজের অগ্রগতি নেই

নবীগঞ্জের কাজীগঞ্জ-মার্কুলী সড়কের বেহাল অবস্থা

১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০১:৫২ পিএম | নিশি


মিজানুর রহমান সহেল, নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি : হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার কাজিগঞ্জ বাজার হতে বানিয়াচুং উপজেলার  কাদিরগঞ্জ (মার্কুলী) সড়কের বেহাল অবস্থায় পরিণত হয়েছে।  ইহা কাজীগঞ্জ বাজার থেকে কাদিরগঞ্জ বাজার যাতায়াতের একমাত্র গুরূত্বপূর্ণ সড়ক।  ওই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন বৃহত্তর সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে শত শত গাড়ি চলাচল করে এ সড়কে। 

ওই সড়ক দিয়ে নবীগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন বানিয়াচুং উপজেলাসহ কয়েকটি ইউনিয়ন আজমেরী উপজেলার কয়েকটি ইউনয়ন,ভাটি এলাকা হিসেবে খ্যাত সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন দিরাইও শাল্লা উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের প্রায় কয়েক লক্ষাধিক লোক ওই সড়ক দিয়ে প্রতিনিয়তই যাতায়াত করতে হচ্ছে।  সুত্রে জানা গেছে, কাজীগঞ্জ থেকে কাদীরগঞ্জ প্রায় ২৩ কিলোমিটার সড়ক বর্তমানে যেনো মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। 

ভুক্তভোগী যাত্রীরা জানান,২৩ কিলোমিটার যাতায়াতে যেখানে ৪০/৫০ মিনিট সময় প্রয়োজন ছিল।  ওই স্থানে বর্তমানে মিনিবাসও সিএনজি দিয়ে দেড় ঘন্টা থেকে দুই ঘন্টা প্রয়োজন হয়।  একদিকে যাত্রী সাধারনের সময় ও অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হচ্ছে । অন্যদিকে গাড়ির মালিকদের অতিরিক্ত জ্বালানী খরচ ও গাড়ি মেরামতে হাজার হাজার টাকা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।  এমনিতে ওই সড়কে অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের। 

সুত্রে জানা গেছে, ওই রাস্তাটি পুনঃসংস্কার করার জন্য হবিগঞ্জ-১ নবীগঞ্জ- বাহুবল আসনের সংসদ সদস্য এম এ মুনিম চৌধুরী বাবু এমপি  সম্প্রতি সময়ে স্থানীয় কাজীগঞ্জ বাজার স্টার ফিউচার পয়েন্টে (তিন রাস্তার মোড়) তার নামে একটি নেম প্লেট বসান এবং এই কাজের উদ্বোধন করেন প্রায় তিন মাস পূর্বে ।  আবার একই স্থানে হবিগঞ্জ- সিলেট আসনের সংরক্ষিত সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া চৌধুরী কেয়া তার নামে আরেকটি নেম প্লেট বসান।  তারা দুজনই পৃথক পৃথক দাবি করেন ওই রাস্তাটি পুনঃসংস্কার কাজের জন্য । 


দুই জনেরই ডিও লেটারের দাবিতে কাজ এসেছে তারা দাবি করেন।  এ নিয়ে উভয়ের কর্মীদের মধ্যে  উদ্বোধনী ঝামেলা হলে ও  দুজনই পাশাপাশি একি একি স্থানে নিজ নিজ নামে নেম প্লেট বসান।  কিন্তু আজ পর্যন্ত কাজের কাজ কিছুই হয়নি।  যদি ও ১ নং ইউনিয়নের হরিনগর গ্রামের পশ্চিম প্রান্ত থেকে থেমে থেমে কয়েক কিলোমিটার কাজ হলে ও অসম্পুর্ণ ভাঙ্গা রাস্তা এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। 

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, স্থানীয় কাজীগঞ্জ বাজার থেকে হরিনগর রাস্তার এমন অবস্থা হয়েছে চোখ পড়লেই মনে হয় নতুন পুকুর তৈরি করা হচ্ছে। 

স্থানীয়দের সাথে আলাপকালে তারা জানান, কাজীগঞ্জ বাজার,বাগাউড়া, হরিনগর, হলিমপুর, সোনাপুর, জগন্নাথপুর বাজার,বাল্লারহাঠ, বাউশি, চকবাজার, দৌলতপুর,  কাদিরগঞ্জের মার্কুলী) কিছু দূর পর পর রাস্তার যাহা কার্পেটিং করা হয়েছে তাহা ইতোমধ্যেই নষ্ট হয়ে ইটের খোয়া সরে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ার ফলে  যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে।  ওই রাস্তার  কার্পেটিং ও ইটের খোয়া সরে যাওয়ায় অনেক স্থানে কাদার উপর গাড়ী হেলে দুলে চলে। 

এমন ও দেখা গেছে প্রতিনিয়তই  কোন না কোন গাড়ি বড় গর্তে আটকে থাকে দিনের পর দিন।  দীর্ঘদিন যাবত রাস্তাটি সংস্কার  না হওয়ায় বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের  কারণে রাস্তাটি এখন নাজুক অবস্থা ধারণ করছে। 

উপরোক্ত বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপ কালে তারা জানান, মালামাল আনতে এখন তারা অতিরিক্ত ভাড়া দিতে হচ্ছে এবং অনেক সময় যানবাহনের চালকগন বেকে বসে তার গাড়ির যন্ত্রাংশ নষ্ট বা ক্ষতি হয়েছে বলে অযুহাত তোলে।  সচেতন মহল মনে করেন ওই রাস্তার পুনঃসংস্কার করা অতীব জরুরী হয়ে পড়েছে ।  দুই এমপির যাথাকলে থাকতে চাননা ভূক্তভোগী জনগন।