১২:৪২ এএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

‘অবিলম্বে গণহত্যা বন্ধ না হলে বাংলার দামাল ছেলেরা আরাকান দখল করবে’

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৫:৩৬ পিএম | সাদি


প্রতিনিধি, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর চরমোনাইয়ের পীরে কামেল মুফতী সৈয়দ মু. ফয়জুল করীম বলেছেন, মিয়ানমারের মুসলমান নারী, পুরুষ ও শিশুদের উপর অং সান সুচির সামরিক জান্তাদের জুলুম-নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণ ইতিহাসের সকল জুলুম নির্যাতনকে হার মানিয়েছে।  এমন বর্বরতা বিশ্ববাসী কখনো দেখেনি।  মুসলমানদের রক্তে রঞ্জিত অং সান সুচিকে জাতিসংঘ নোবেল পুরস্কারে ভুষিত করে মুসলমানদের সাথে গাদ্দারী করেছে।  তার নোবেল পুরস্কার বাতিল করতে হবে।  জাতিসংঘ মুসলমান ও ইসলামবিদ্বেষীদের পুরস্কৃত করে মুসলমানদের সাথে তামাশা করেছে।  কাজেই এই জাতিসংঘ দিয়ে মুসলমানদের কোন স্বার্থ রক্ষা হবে না, অবিলম্বে গণহত্যা বন্ধ না হলে বাংলার দামাল ছেলেরা আরাকান দখল করবে।  মুসলিম রাষ্ট্রগুলো সমন্বয়ে এখনই পৃথক মুসলিম জাতিসংঘ গঠন করতে হবে।  প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। 
চট্টগ্রামের বাঁশখালী পৌর সদরের গ্রীন পার্ক কমিউনিটি সেন্টারে গত ১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেলে বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি বাঁশখালী উপজেলা শাখার উদ্যোগে চাম্বল দারুল উলুম মাদরাসার প্রিন্সিপাল পীরে কামেল আল্লামা শাহ আবদুল জলিল ও সরল আনোয়ারুল উলুম মাদরাসার পরিচালক মাওলানা শাহ নুর মোহাম্মদ পীর সাহেবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাহফিলে বক্তব্য রাখেন, বাঁশখালী আসন থেকে পীর সাহেব চরমোনাই ঘোষিত ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী জামেয়া দারুল মা আরিফ আল ইসলামিয়ার মোহাদ্দিস আল্লামা হাফেজ ফরিদ আহমদ আনসারী, মনকিচর এমদাদুল উলুম মাদরাসার প্রধান পরিচালক মাওলানা শাহ আবু বকর, ঢাকার মাওলানা রাশেদুল ইসলাম রহমতপুরী, খতীব মাওলানা মোস্তাক আহমদ, মাওলানা হাফেজ নুরুন্নবী, মাওলানা আবদুস সত্তার প্রমুখ।  মাহফিল বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক মাওলানা হাফেজ রুহুল্লাহর পরিচালনায় মাহফিলে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-ইসলামী আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা ও চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি আলহাজ্ব জান্নাতুল ইসলাম, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি সাংবাদিক শফকত হোসাইন চাটগামী, মাওলানা এবিএম অলিউল্লাহ, মাওলানা নুর মোহাম্মদ লোকমান, মাওলানা নুরুল হক সুজিশ, মাওলানা মুফতি আবু তৈয়ব, মাওলানা হাফেজ ইসহাক, মাওলানা মুফতি ওবায়দুল্লাহ, মাওলানা ফোজাইল বিন আবদুল জলিল, মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, মাওলানা মুফতি নুরুল আমিন, মাওলানা আনোয়ারুল ইসলাম, মাওলানা মাহমুদুল ইসলাম, মাওলানা মোজাম্মিলুল হক প্রমুখ। 


Abu-Dhabi


21-February

keya