১:১৪ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০১৭, বুধবার | | ২৭ মুহররম ১৪৩৯

South Asian College

শ্রীমঙ্গলে সীমান্তবর্তী দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় বিজিবি’র হরিণছড়া বিওপি’র উদ্বোধন

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৫:০৯ পিএম | সাদি


তোফায়েল আহমেদ পাপ্পু, শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ৫৫ বিজিবি’র সীমান্তবর্তী দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় হরিণছড়া বিওপি’র নব নির্মিত ব্যারাক উদ্বোধন করা হয়েছে।  হরিণছড়া বিওপিতে দীর্ঘদিন ধরে সৈনিকদের মান সম্মত কোন ব্যারাক না থাকায় সৈনিকদের বাসযোগ্য এ টাইপ বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়।  বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর সকালে ৫৫ বিজিবির হরিণছড়ায় বিওপির নতুন ব্যারাকের উদ্বোধন করেন বিজিবি শ্রীমঙ্গল সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মো. আশরাফুল ইসলাম। 

এতে ৫৫ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. আছাদুদ-জামান চৌধুরী, উপ-অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন, হরিণছড়া বিওপির  সুবেদার হাবিবুর রহমান মুন্সি, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিস আলী, নাহার চা বাগান ব্যবস্থাপক পিযুষ কান্তি ভট্টাচার্য, লাংলিয়া খাসিয়া পুঞ্জির হেডম্যান কিরি লেন লং টংসহ বিজিবির পদস্থ কর্মকর্তা, সৈনিক, সাংবাদিক ও  স্থানীয় খাসিয়া, টিপরা উপজাতি সম্প্রদায়ের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। 

জানা যায়, হরিণছড়া বিওপিটি ১৯৮৩ সালে স্থাপিত হয়।  এটি মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার লাংলিয়া মৌজার অন্তর্গত দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় অবস্থিত।  বিওপিটির দায়িত্বপূর্ণ এলাকা ১৯২৪ মেইন পিলার হতে ১৯৩১ মেইন পিলার পর্যন্ত।  দায়িত্বপূর্ণ সিমান্ত এলাকা আনুমানিক ১২ কিলোমিটার।  বিওপি থেকে নিকটবর্তী সীমান্ত এলাকার শূণ্য রেখার দূরত্ব ১ কিলোমিটার। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্দেশ্যে এই বিওপিটি আগেও ছিল।  যা আজকে হতে ৪৬ বিজিবি থেকে ৫৫ বিজিবির আওতায় আসলো।   তিনি বলেন, এই বিওপির অবস্থান ও যে গঠন এর চেয়েও বেশী প্রয়োজন আপনাদের সহযোগীতা। 

আমাদেরকে যখন সোর্স নিয়োগ করতে হয় তখনই আমরা বুঝি আসলে জনগনের সেকরকম আগ্রহ হয়তোবা নাই।  কিন্তু বিওপি কাছাকাছি আসা মানে জনগনের কাছাকাছি আসা।  এই সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে আপনারা স্বতস্ফূর্তভাবে আমাদেরকে বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করবেন। 

বিজিবি সেক্টর কমান্ডার আশরাফুল ইসলাম আরো বলেন, স্বল্প লোকবলে এই বিস্তৃত এলাকার বিভিন্ন অপরাধের তথ্য জানা অসম্ভব বলব না তবে কঠিন।   এজন্য এলাকার সীমান্ত রক্ষা, মাদক চোরাচালান ও বিভিন্ন অপরাধ নিয়ন্ত্রনে স্থানীয় জনসাধারণের সহায়তা প্রয়োজন।  উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আগে বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মো. আশরাফুল ইসলাম বিওপি চত্বরে সাংবাদিকদের নিয়ে ৫টি ফলদ ও বনজ গাছের চারা রোপণ করেন।