৫:১১ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০১৭, শুক্রবার | | ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

শ্রীপুরে নারী নির্যাতন মামলা তুলে নিতে বাদীকে হুমকির অভিযোগ

১৩ নভেম্বর ২০১৭, ১২:৩৭ এএম | সাদি


শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : শ্রীপুরে নারী নির্যাতন মামলা তুলে নিতে বাদীকে নানা ধরণের  হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।  এতে  চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে ওই গৃহবধূ ও তার পরিবার।  জানা যায়, উপজেলার মুলাইদ গ্রামের এক গৃহবধূ শ্রীপর পৌর-সভার  কেওয়া পশ্চিম খন্ড গ্রামের মৃত সাহাজ উদ্দিনের ছেলে মো. মানিক মিয়া (৫০)  কে আসামী করে নারী নির্যাতনের একটি  মামলা দায়ের করেন আদালতে । 

মামলার বিবরণে জানা গেছে, নির্যাতীতা গৃহবধূর স্বামীর সাথে একত্রে ব্যবসা বাণিজ্য করার সুবাধে তাদের বাড়িতে অভিযুক্ত মানিক মিয়া বিভিন্ন সময় যাতায়াত করত।  এবং প্রায়ই সময় বাদীকে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করিয়া প্রেম প্রস্তাব ও কু-প্রস্তাব দিলে ওই গৃহবধূ  রাজি না হওয়ায় তার উপর ক্ষিপ্ত হয়।  এবং ১৮  সেপ্টেম্বর মানিক মিয়া  গৃহবধূর স্বামীর  বাড়িতে যায় এবং বাড়িতে গৃহবধূকে একা পেয়ে  তার সঙ্গে অশালীন আচরণ শুরু করে।  একপর্যায়ে গৃহবধূর শরীরের উপর ঝাপিয়ে পড়ে শারিরিক নির্যাতন শুরু করে এবং তার বিভিন্ন অঙ্গে হাত ও স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিলে সে  ডাক চিৎকার করতে থাকে।  এক পর্যায়ে  আশে-পাশের লোকজন আসতে দেখে আসামী দৌড়ে পালিয়ে যায়। 

পরে ৪ অক্টোবর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালত  গাজীপুরে গৃহবধূ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন মামলা নং-২৪৩/১৭ । 

মামলার বাদী  জানান, মানিক মিয়ার কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ১৮ সেপ্টেম্বর আমার বাড়িতে ঢুকে জোরপূর্বক আমার উপর শারীরিক নির্যাতন চালায়।  এবং এ ঘটনা ধামাচাপা দিতে বলে তা না হলে আমার পরিবারের ক্ষতিও করবে বলে হুমকি দেয় এবং ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে এলাকায় অপপ্রচার ছড়ানোর পাঁয়তারা করলে এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতে  মানিক মিয়াকে  আসামী করে মামলা করি।  এবং মামলা করার পর থেকে মামলা তুলে নিতে এবং আপস করার জন্য আমার পরিবারের সদস্যদের  হুমকি দিচ্ছে প্রতিনিয়ত আসামী মানিক মিয়া ও তার ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান মিলন। 

তিনি আরোও বলেন, আমাকে এবং আমার পরিবারকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি, রাস্তাঘাটে পেলে মারপিটসহ জান মালের ক্ষতি করবে এমন  হুমকি দেওয়ায় আমার স্বামী ১৮ অক্টোবর মানিক মিয়া ও তার ছেলে মিলন মিয়ার বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় একটি  জিডি নং-৭৭৫ করেন।  গৃহবধূ আরোও জানান, মামলা হওয়ার পর মানিক মিয়া ও তার ছেলে মিলন মিয়া একাধিকবার আমার বাড়ি আসে এবং মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি প্রধান করেন।  এখনও  আসামী গ্রেফতার না হওয়ায় চরম  নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান ওই গৃহবধূ।