৯:২০ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার | | ৮ মুহররম ১৪৪০


'বাংলাদেশ উন্নত বিশ্বের তালিকায় স্থান করে নিতে সক্ষম হবে'

৩১ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৩:৪৫ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অর্থনীতি বিভাগের উদ্যোগে ৩১ ডিসেম্বর বেলা ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয় সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ মিলনায়তনে ‘ডিস্টিংগুয়িজড লেকচার সিরিজ’ অনুষ্ঠিত হয়। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ লেকচার সিরিজ উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।  এতে ডিস্টিংগুয়িজড স্পিকার হিসেবে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে ‘Monetary Policy in Bangladesh’ শীর্ষক গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন কৃতি ছাত্র বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণর জনাব ফজলে কবির এবং বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চ.বি. সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. ফরিদ উদ্দিন আহামদ। 

এ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন উক্ত বিভাগের ইউজিসি প্রফেসর ড. মইনুল ইসলাম, প্রফেসর ড. আবুল কালাম আযাদ ও বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর ড. জ্যোতি প্রকাশ দত্ত। 

উপাচার্য তাঁর ভাষণে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ গৌরবগাঁথায় অভিষিক্ত বিভাগ অর্থনীতি বিভাগের সুমহান ঐতিহ্য তুলে ধরে উপস্থিত সকলকে আজকের লেকচার সিরিজে স্বাগত জানান।  বিশেষকরে এ বিভাগের প্রাক্তন কৃতি ছাত্র বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণর মহোদয়কে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, এ বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা সততা, দক্ষতা ও পান্ডিত্য প্রদর্শন করে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধিতে অসামান্য অবদান রেখে চলেছেন, এটি এ বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য সত্যিই গৌরব ও অহংকারের বিষয়। 

উপাচার্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের সার্বিক অর্থনৈতিক-সামাজিক উন্নয়নের চিত্র আলোকপাত করে বলেন, বঙ্গবন্ধু তনয়া মানবতার জননী আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোলমডেল হিসেবে যে স্বীকৃতি অর্জন করেছে, অর্থনৈতিক গতিশীলতার এ চাকা অধিকতর বেগবান করতে তরুণ-মেধাবী অর্থনীতিবিদদের হতে হবে যুক্তিনির্ভর, বিবেকপ্রসুত প্রজ্ঞাবান, বিজ্ঞানমনস্ক, আধুনিক তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারে পারদর্শী দক্ষ মানবসম্পদ। 

উপাচার্য আত্মপ্রত্যয়ী হয়ে বলেন, বাংলাদেশ বিভিন্ন সূচকে যেভাবে এগিয়ে চলছে, অচিরেই আমরা একটি উন্নত বিশ্বের তালিকায় স্থান করে নিতে সক্ষম হবো।  মাননীয় উপাচার্য আজকের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ লেকচার সিরিজ দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনের পথে কর্মকৌশল নির্ধারণে দিক নির্দেশনামূলক বিশেষ সহায়ক ভূমিকা রাখবে এ প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।   

গভর্ণর তাঁর ভাষণে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র হিসেবে তাঁর এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবের ও অহংকারের অনেক দিক রয়েছে উলে­খ করে বিভাগের সম্মানিত শিক্ষকদের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।  তিনি বাংলাদেশের কাঙ্খিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে তরুণ অর্থনীতিবিদদের দায়িত্ব সচেতন হওয়ার পাশাপাশি দেশপ্রেমিক সুনাগরিক হয়ে গড়ে ওঠতে জ্ঞানযুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়ার আহবান জানান। 

তিনি বলেন, একজন অর্থনীতির শিক্ষার্থীকে ডিগ্রী অর্জনের পর শুধুমাত্র সরকারী-বেসরকারী চাকুরীর অপেক্ষায় না থেকে সরকারী-বেসরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে সুপ্রতিষ্ঠিত হওয়ার ব্যাপারে আত্মপ্রত্যয়ী হতে হবে।  তিনি মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে বাংলাদেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের সূচক ও চিত্র তুলে ধরে শিক্ষা, কৃষি, শিল্প-বাণিজ্য, সেবা ইত্যাদি খাতের উলে­খযোগ্য উন্নয়ন ও অগ্রগতি সম্পর্কে বিশদ বিবরণ তুলে ধরেন।  

চ.বি. অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. নিতাই চন্দ্র নাগের সভাপতিত্বে গভর্ণর মহোদয়ের সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্ত পাঠ করেন উক্ত বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবুল হোসাইন।  উক্ত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব ঝুলন ধর ও জনাব রুনা সাহার  পরিচালনায় এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অর্থনীতি সমিতি, চট্টগ্রাম চ্যাপ্টারের সাধারণ সম্পাদক জনাব এ কে এম ইসমাইল ও সিইউইইএসএ-এর প্রতিনিধি জনাব খোরশেদ আলম কাদেরী।  অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ সহ বিভিন্ন বিভাগের বিপুল সংখ্যক শিক্ষক-গবেষক ও শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। 


keya