৭:৩০ এএম, ২৮ মে ২০১৮, সোমবার | | ১৩ রমজান ১৪৩৯

South Asian College

এক্সেল লোড ও লাইটারেজ সংকট-সহ বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

০৪ জানুয়ারী ২০১৮, ০৩:৩৭ পিএম | মুন্না


এসএনএন২৪.কম : এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ ও লাইটারেজ সংকট-সহ চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে বন্দর ব্যবহারকারীদের সংগঠন পোর্ট ইউজার্স ফোরামের এক সভা ০৩ জানুয়ারী অপরাহ্নে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হয়। 

সভায় সংকট নিরসনে অর্থ, বাণিজ্য, নৌ, সড়ক পরিবহন ও সেতু এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে যৌথ সভা আয়োজন এবং প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর হস্তপেক্ষ কামনা করা হয়। 

ফোরাম চেয়ারম্যান ও চিটাগাং চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সভায় ফোরামের সদস্য সংগঠন বিজিএমইএ, বিকেএমইএ, সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন, শিপিং এজেন্ট এসোসিয়েশন, চট্টগ্রাম বন্দর লাইটারেজ ঠিকাদার সমিতি, বন্দর ট্রাক মালিক ও কন্ট্রাক্টর এসোসিয়েশন, ইনল্যান্ড ভেসেল ওনার্স এসোসিয়েশন, আন্তঃজেলা মালামাল পরিবহন সংস্থা ট্রাক ও কভার্ডভ্যান মালিক সমিতি, প্রাইম মুভার এসোসিয়েশন ও বিজিএপিএমইএ-সহ বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

পোর্ট ইউজার্স ফোরাম চেয়ারম্যান মাহবুবুল আলম বলেন-মোটরযানের এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণের ফলে সরকারের ভিশন বাস্তবায়নে যেসব মেগা প্রকল্পগুলো রয়েছে তার ব্যয় ৪০ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত বৃদ্ধি পাবে, সাধারণ জনগণের ব্যবহৃত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য ১০-১২% বৃদ্ধি পাবে এবং নৌপথের উপর চাপ সৃষ্টি হবে। 

তিনি অতি সম্প্রতি নৌমন্ত্রণালয় কর্তৃক ৫দিনের মধ্যে লাইটারেজ জাহাজ হতে পণ্য খালাসের যে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে তার পরিবর্তে পণ্যের ধরণ ও ওজন হিসেবে যৌক্তিক সময় নির্ধারণ এবং পণ্য খালাসের জন্য আধুনিক সুযোগ সুবিধাসহ পর্যাপ্ত ঘাট তৈরির উপর গুরুত্বারোপ করেন। 

একই সাথে চেম্বারের আবেদনের প্রেক্ষিতে এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ ৩ মাসের জন্য স্থগিত করায় সেতু মন্ত্রীর প্রতি ধন্যবাদজ্ঞাপন করেন চেম্বার সভাপতি।  চেম্বার সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকের উপর গুরুত্বারোপ করেন এবং বন্দরে ট্রাক, লরী, কাভার্ডভ্যান ইত্যাদি প্রবেশের কারণে সৃষ্ট অসহনীয় যানজট নিরসনে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানান। 

সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ৮ লেনে উন্নীতকরণ ও ঢাকা-চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়ে নির্মাণ এ বছরই আরম্ভ করা, আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন সড়ক নির্মাণ, বেসরকারী উদ্যোক্তাদের জেটি ও ঘাট নির্মাণের অনুমোদন প্রদানের দাবী জানানো হয়। 

মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও বিজিএমইএ’র পরিচালক এ. এম. মাহবুব চৌধুরী জাতীয় স্বার্থে এসআরও-এর মাধ্যমে আগামী ১ বছরের জন্য রেয়াতী শুল্কে লাইটারেজ জাহাজ আমদানির প্রয়োজন বলে মনে করেন।  সিএন্ডএফ’র সভাপতি এ. কে. এম. আক্তার হোসেন আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী মোটরযানের ওজন নিয়ন্ত্রণ করার অনুরোধ জানান যাতে রাস্তায় লোড নিয়ন্ত্রণের কারণে ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ না হয়। 

খাতুনগঞ্জ ট্রেড এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজ এসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক ছৈয়দ ছগীর আহমদ এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ চট্টগ্রামের বিরুদ্ধে বিরাট ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে চট্টগ্রাম হতে ব্যবসা-বাণিজ্য যাতে অন্যত্র চলে না যায় এ ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকার আহবান জানান।  বিকেএমইএ’র সাবেক পরিচালক শওকত ওসমান মহাসড়কের স্কেলের কারণে সময়ক্ষেপন হচ্ছে বলে উল্লেখ করে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিভিন্ন প্রটোকল চুক্তিতে লোড নিয়ন্ত্রণের বিষয়টিও দেখার অনুরোধ জানান। 

বন্দর লাইটারেজ ঠিকাদার সমিতির সভাপতি হাজী শফিক আহমেদ বিপুল পরিমাণ আমদানিকৃত পণ্য খালাসে ঘাটের অপ্রতুলতা প্রসংগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের নদীর পাশে যেসব খালি জায়গা আছে সেখানে ব্যক্তি উদ্যোগে জেটি নির্মাণের অনুমতির দাবী জানান। 

আন্তঃজিলা মালামাল পরিবহন সংস্থা ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সেক্রেটারী জাফর আহমেদ মোটরযান নীতিমালা দেশের সর্বত্র একই হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন।  এছাড়া চেম্বারের সদ্যবিদায়ী পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, চট্টগ্রাম বন্দর ট্রাক মালিক ও কন্ট্রাক্টর এসোসিয়েশন’র সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জহুর আহমেদ, সিএন্ডএফ’র বন্দর বিষয়ক সম্পাদক মোঃ লিয়াকত আলী হাওলাদার, প্রাইম মুভার এসোসিয়েশন’র সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম ও যুগ্ম সচিব আবু বকর সিদ্দিক, ডায়মন্ড সিমেন্টের পরিচালক মোঃ হাকিম আলী, কনফিডেন্স সিমেন্টের ডিএমডি জহির, বিএসএ’র খায়রুল আলম সুজন বক্তব্য রাখেন। 

এ সময় চেম্বার সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ নুরুন নেওয়াজ সেলিম, পরিচালকবৃন্দ কামাল মোস্তফা চৌধুরী, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (আলমগীর), মোঃ অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন), মাহবুবুল হক চৌধুরী (বাবর), সরওয়ার হাসান জামিল, মোঃ রকিবুর রহমান (টুটুল), অঞ্জন শেখর দাশ, এস. এম. শামসুদ্দিন ও মোঃ আবদুল মান্নান সোহেল, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি সালেহ আহমেদ সুলেমান, সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী মোঃ সাহাব উদ্দিন, কবির স্টীল রি-রোলিং’র তাজউদ্দিনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।