৬:২৪ পিএম, ২৪ এপ্রিল ২০১৮, মঙ্গলবার | | ৮ শা'বান ১৪৩৯

South Asian College

লালমোহনে রাস্তায় সকালে পিচ ঢালাই বিকালে পিচ উধাও

০৬ জানুয়ারী ২০১৮, ০২:২৮ পিএম | মুন্না


মোঃ আমজাদ হোসেন, ভোলা প্রতিনিধি : ভোলার লালমোহন উপজেলার গজারিয়া বাজারের দক্ষিণ পাশে ১ কিলোমিটার পাকা রাস্তায় সকালে পিচ ঢালাইয়ের পর বিকালেই রাস্তা থেকে সমস্ত পিচ উঠে যায়, দেখা দেয় পূর্বের ন্যায় খানা খন্দে ভরা সাবেক রাস্তার। 

এতে এলাকাবাসীরর কাছে আশার সঞ্চারের বিপরীতে দেখা দেয় হতাশা আর ক্ষোভ।  উপজেলা এলজিইডি দফতরের বরাদ্দকৃত রাস্তা সংস্কারের কাজ পেয়েছেন আরশাদ মেলাকার কিন্তু জনগণের কল্যাণ হবে কি তার চেয়ে অকল্যাণ করে স্থানীয় সাংসদ নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি'র ইমেজ সাধারণ মানুষদের কাছে নষ্ট করেছেন বহুগুন। 

ঘটনার সত্যতা জানতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় গজারিয়া বাজারের দক্ষিন পার্শ্বে শিমুল তলা বাজার থেকে পশ্চিমে কমান্ডার বাড়ির দরজা পর্যন্ত ১ কিলো. রাস্তা সংস্কারের কাজ পান লালমোহনের বিশিষ্ট ঠিকাদার আরশাদ মেলকার।  তদানুযায়ী কাজও করেন তিনি।  কিন্তু কাজ শেষ করার মাত্রই দেখা যায় অন্য চিত্র। 

সম্পুর্ন রাস্তায় ২ ইঞ্চি করে ঢালাই থাকার কথা থালেও ১ ইঞ্চি বা তারো কম পিচ দিয়ে কাজ করেন তিনি।  কাজ শেষ করার পরেই বেধে যায় লংকা-কান্ড।  সমস্ত রাস্তার পিচ উঠতে থাকে। 

স্থানীয় জনগনের সাথে আলাপকালে ক্ষোভের সাথে তারা জানান, দেশে এমন কোন নজির নেই যে সকালে পিচ ঢালাইয়ের পর বিকেলেই তা উঠে যায়।  কিন্তু আমাদের এলাকায় কাজ করতে লালমোহনের আরশাদ মেলকার সে নজির স্থাপন করলেন।  চলতি মাসের মধ্যেই সমস্ত পিচ উঠে গিয়ে যে রাস্তা ছিল সে রাস্তা হয়ে যাওয়ার আশংক্ষা করেন এলাকাবাসী। 

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায় ঠিকাদার আরশাদ মেলকার উপজেলার যেসকল কাজ করেছেন তার সব কাজেই জনগণের সুফলের বিপরীতে কুফলই হয়েছে বেশি।  সাধারণ মানুষের দাবী তিনি কাজের নামে জন দূর্ভোগ সৃষ্টি করেছেন ব্যাপক।  এব্যাপারে আরশাদ মেলকারের ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তার ফোন বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। 

এছাড়াও উপজেলায় রাস্তা সংস্কারের কাজ অনেকটায় এখনো পিছিয়ে।  গজারিয়া পূর্ব বাজার থেকে পশ্চিমে দুই কিলোমিটার রাস্তার অবস্থা আরও বেপরোয়া বা নাজুক অবস্থায় পরিণত হয়েছে।  এসব রাস্তা দিয়ে প্রতিদিনই হচ্ছে নানাবিধ দূর্ঘটনা। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন অটো চালক বলেন দীর্ঘ ১২ বছর এই রাস্তায় আমরা অটো চায়ায়, রাস্তার অবস্থা খারাপের কারনে যাত্রীরা অটোতে উঠতে চায়না।  বেশির ভাগ সময়েই যাত্রীসহ অটো উল্টে যায়।  আর এসব নাজুক অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে  এলজিইডি সহ কতৃপক্ষের যথাযথ হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।