১১:৫৫ পিএম, ২৩ জানুয়ারী ২০১৮, মঙ্গলবার | | ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য দেশকে সংকটের দিকে নিয়ে যাবে’

১২ জানুয়ারী ২০১৮, ১১:১৫ পিএম | সাদি


এসএনএন২৪.কম : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া ভাষণে জাতি হতাশ হয়েছে বলে মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তার দেওয়া এ বক্তব্য দেশকে আরো একদফা সংকটের দিকে নিয়ে যাবে। 

জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ভাষণের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন। 

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে জাতি হতাশ হয়েছে।  বরং জনগণ ভেবেছিল দেশে যে একটি রাজনৈতিক সংকট সৃষ্টি হয়েছে, দেশের মানুষ যে একটি অস্থিতিশীল অবস্থার মধ্যে পড়েছে সেই সময়ে প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে একটি সুন্দর সমাপনী দিতে পারতেন।  কীভাবে সামনে নির্বাচন হবে, এবং এই বিরাজমান সংকট থেকে উত্তরণ ঘটানো যায় তার ব্যবস্থা তিনি করবেন।  কিন্তু দুঃখজনকভাবে আমরা প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে সেই  সংকট নিরসনের লক্ষণ খুঁজে পাই না।  একই সঙ্গে তিনি যে বক্তব্যে দিয়েছেন, এতে প্রমাণ হয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় তারা আন্তরিক নয়। ’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জনগণ অপেক্ষা করছে সকল দলের অংশগ্রহণে একটি নির্বাচন হবে।  কিন্তু ভাষণে প্রধানমন্ত্রী সে বিষয়ে জনগণকে আশাবাদী করতে পারেননি।  তিনি হতাশ করেছেন। ’

শুক্রবার রাতে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘সংবিধান অনুযায়ী ২০১৮ সালের শেষ দিকে একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।  কীভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে তা আমাদের সংবিধানে স্পষ্টভাবে বলা আছে। ’

ফখরুল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে সমঝোতার ঈঙ্গিত আসেনি যে সংকট রয়েছে তা রয়েই গেল।  তার বক্তব্যে জনগণের কোন আশার প্রতিফলন ঘটেনি।  তবে আমরা বিশ্বাস করি দেশের জনগণ এ অন্যায় মেনে নেবে না।  কারণ দেশের মানুষ সত্যিকার অর্থে একটি অর্থবহ নির্বাচন দেখতে চায়। ’

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে জাতিকে আরেক দফা সংকটের দিকে নিয়ে যাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির মহাসচিব।  দশম সংসদ নির্বাচনের পর গঠিত আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের চার বছর পূর্তিতে শুক্রবার জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণ বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারে সম্প্রচার করা হয়। 

প্রধানমন্ত্রী জানান, ২০১৩ সালের মতোই নির্বাচনের আগে মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের মাধ্যমে একটি ‘নির্বাচনকালীন সরকার’ গঠন করা হবে। 

Abu-Dhabi


21-February

keya