৩:৪৪ এএম, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার | | ১০ রবিউস সানি ১৪৪০




শ্রীদেবীর শেষকৃত্য ভিলে পার্লে সেবাসমাজ শ্মশানে

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১০:০৯ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯ টা দিকে বিশেষ চার্টার্ড বিমানে দুবাই থেকে মুম্বাই বিমানবন্দরে পৌঁছায় সদ্য প্রয়াত নায়িকা শ্রীদেবীর মরদেহ।  বুধবার সকাল সাড়ে ৯ টায় মরদেহ রাখা হবে মুম্বাইয়ের সেলিব্রেশন স্পোর্টস ক্লাবে।  দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এখানেই শ্রীদেবীকে শ্রদ্ধা জানাবে বলিউড।  শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন সকল অনুরাগীরাও। 

দুপুর সাড়ে ১২ টার সময় সেখান থেকে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে ভিলে পার্লে সেবাসমাজ শ্মশানে।  বিকাল সাড়ে ৩টা নাগাদ সেখানেই সম্পন্ন হবে ভারতের প্রথম সুপারস্টার নায়িকার শেষকৃত্য। 

মুম্বাই পুলিশ সূত্রে খবর, মঙ্গলবার বিমানবন্দরের বাইরে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা ছিল।  সেখানে উপস্থিত ছিলেন নায়িকার দেবর অনিল কাপুর, রিলায়েন্স গ্রুপের মালিক অনিল আম্বানী ও তার স্ত্রী।  শ্রীদেবীর স্বামী বনি কাপুরের সঙ্গে ছিলেন তার প্রথম পক্ষের ছেলে অর্জুন কাপুর এবং চাচাতো ভাই সঞ্জয় কাপুর। 

প্রথমে ঠিক হয়, বিমানবন্দরের ৮ নম্বর গেট দিয়ে বের করা হবে শ্রীদেবীর মরদেহ।  কিন্তু ৮ নম্বর গেটের বাইরে আগে থেকেই অনুরাগীদের প্রচুর ভিড় জমে ছিল।  সে কারণেই সিদ্ধান্ত বদলে পুলিশ বিমানবন্দরের পেছনের অন্য একটি গেট দিয়ে নায়িকার মরদেহ বের করে আনে।  তবে পরিবারের অন্যান্য লোকেরা ৮ নম্বর গেট দিয়েই বের হন। 

শনিবার রাতে দুবাইয়ের জুমেইরা এমিরেটস টাওয়ার্স হোটেলের বাথরুমে অচৈতন্য অবস্থায় পাওয়া যায় শ্রীদেবীকে।  হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।  প্রাথমিক ভাবে জানা যায়, হার্ট অ্যাটাকেই শ্রীদেবীর মৃত্যু হয়েছে।  কিন্তু, পরে ময়নাতদন্ত এবং ফরেনসিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্টে বলা হয়, আকস্মিক ভাবে বাথটাবের পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে নায়িকার। 

এর পরেই বাড়ে জটিলতা।  শ্রীদেবীর দেহ তাঁর পরিবারের হাতে না তুলে দিয়ে গোটা মামলাটি সরকারি আইনজীবীর হাতে তুলে দেয় দুবাই পুলিশ।  প্রায় তিন দিন ধরে শ্রীদেবীর মরদেহ দুবাইয়ের আল কিউসাইস মর্গেই পড়ে ছিল।  এরই মধ্যে ওঠে নানা গুঞ্জন।  অনেকেই নায়িকার মৃত্যু নিয়ে নানা সন্দেহ প্রকাশ করেন। 

মঙ্গলবার বিজেপি সাংসদ সুব্রক্ষ্মণ্যম স্বামী তো বলেই বসেন, ‘শ্রীদেবীকে জোর করে মদ্যপান করিয়ে খুন করা হয়েছে। ’ শুধু তাই নয়, এই খুনের পেছনে ভারতের আন্তর্জাতিক মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিমের হাত রয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।  পরে শ্রীদেবীর মাথার পেছনের দিকে পাওয়া একটি গভীর ক্ষতকে কেন্দ্র করেও ওঠে নানা প্রশ্ন। 

কিন্তু মঙ্গলবারই সব প্রশ্নের অবসান হয়।  সমস্ত মামলা বন্ধ করে এদিন দুপুরেই শ্রীদেবীর মরদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেয় দুবাই প্রশাসন।  ভারতীয় কনস্যুলেটকে চিঠি দিয়ে এ কথা জানায় দুবাই পুলিশ।  পরে দুবাইয়ে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাস মারফত টুইট করে সে খবর সকলকে জানানো হয়।