১২:৫৪ এএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, রোববার | | ১২ মুহররম ১৪৪০


‘আদালত ছাড়া কারো সাধ্য নেই খালেদা জিয়াকে জেল থেকে বের করে আনার’

১৩ এপ্রিল ২০১৮, ১২:১৮ পিএম | জাহিদ


হাবিব সরোয়ার আজাদ, সিলেট প্রতিনিধি : খালেদা জিয়াকে জেল এই সরকার দেয়নি, মামলাও সরকার দেয়নি।  ১৫ বছর ধরে এই মামলা চলছে।  মামলা নিয়ে হাইকোর্টে গেছেন।  যত ধরনের পদ্ধতি আছে সব ব্যবহার করার পর ওপেন কোর্টে বিচার হয়েছে।  আদালতের রায় মোতাবেক তার সাজা হয়েছে।  পৃথিবীর সকল দেশে সাজাপ্রাপ্ত আসামি যেভাবে থাকে উনি তো তার ব্যতিক্রম হতে পারেন না। ’

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুত সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের সীমান্তনদী জাদুকাঁটার ওপর বিন্নাকুলি-গড়কাটি ঘাট বরাবর বৃহস্পতিবার দুপুরে শাহ আরেফিন-অদ্বৈত মৈত্রি সেতুর ভিক্তি প্রস্তর স্থাপন পুর্ব এক মতবিনিময় সভায় উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন। ’

তিনি আরো বলেন, বিএনপির মহাসচিব যদি তার নেত্রীকে মুক্ত করতে চান তবে আদালতের মাধ্যমেই তাঁকে মুক্ত করতে হবে।  সরকারের কোন ক্ষমতা নেই তাকে মুক্ত করে দেয়ার। 

এ প্রসঙ্গে মন্ত্রী আরও বলেন, একমাত্র মহামান্য রাষ্ট্রপতির অধিকার আছে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে ক্ষমা করে দেওয়ার, বেগম খালেদা জিয়া যদি উনার দোষ স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করেন রাষ্ট্রপতি হয়তো তার সাজা মওকুফ করতে পারেন, কিন্তু অপরাধ মাফ করতে পারবেন না।  এটা বিএনপিও জানে যে আদালত ছাড়া কারো সাধ্য নেই খালেদা জিয়াকে জেল থেকে বের করে আনার।  আদালত যদি তাকে মুক্ত করে দেন, তবে একসাথে নির্বাচন করব, তাতে অসুবিধার কী। 

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে কারাগারে প্রদত্ত সুযোগ সুবিধা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, এটা ভুললে চলবে না উনি অন্যতম একটি বৃহত্তম দলের প্রধান।  তিন তিন বারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী।  জেল কোড অনুযায়ী তার যত ধরনের সুযোগ সুবিধা আছে একজন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার দাবিদার উনি।  সরকারও সেই বিবেচনা করে তার সাথে আচরণ করছে। 

মন্ত্রী বিএনপির উদ্দেশে বলেন, বিএনপি বলছে খালেদা জিয়াকে নির্জন কারাগারে রাখা হয়েছে।  আমরা বলছি উনার জন্য একটি ভবন আলাদা করে দেওয়া হয়েছে।  যাতে বিভিন্ন অপরাধীদের সাথে উনার মত লোকের থাকতে না হয়।  সবকিছুই খারাপ এটা তো বিরোধী দলে যারা থাকেন তারা বলবেনই। ’

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সুনামগঞ্জ -৫ আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক এমপি, সুনামগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য জয়া সেন গুপ্তা এমপি সুনামগঞ্জ -৪ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ এমপি, সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এমপি, সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজার সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামসুন্নাহার বেগম শাহান এমপি, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব জাফর আহমদ খান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান প্রমুখ। ’ মতবিনিময় সভায় সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খাঁন, তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহি অফিসার পুর্ণেন্দু দে, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (তাহিরপুর সার্কেল ) কানন কুমার দেবনাথ, ওসি শ্রী নন্দন কান্তি ধর সহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

মতবিনিময় সভা শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুত ১০ লাখ মানুষের স্বপ্নের সেতু  সুনামগঞ্জের মহেষখলা -টেকেরঘাট- লাউড়েরগড় সড়কের তাহিরপুর উপজেলার সীমান্তনদী জাদুকাটা নদীর ওপর প্রাথমিক পর্যায়ে প্রায় ৮৬ কোটি টাকা ব্যায়ে ৭৫০ মিটার দৈর্ঘের এলজিইডির দ্বিতীয় বৃহৎ শাহ আরেফিন ও অদ্বৈত মৈত্রি সেতু নির্মাণের প্রধান অতিথি হিসাবে ভিত্তিপ্রস্তুঠ স্থাপন করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি। ’

এদিকে ভিক্তি প্রস্তর স্থাপন শেষে বিকেলে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুল হোসেন খাঁন’র সভাপতিত্বে আ’লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের আয়োজনে এক বিশাল সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি।  ’সমাবেশে জেলার বিভিন উপজেলা থেকে আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের কয়েক হাজার নেতা-কর্মীদের পাশাপাশী সাধারন লোকজনও উপস্থিত ছিলেন। 


keya