৫:৪৬ পিএম, ২৬ এপ্রিল ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ১০ শা'বান ১৪৩৯

South Asian College

মোরেলগঞ্জে বেতন ও ˆভাতা ছাড়াই ˆবৈশাখী উৎসব পালন করল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা

১৪ এপ্রিল ২০১৮, ০৮:৩১ পিএম | সাদি


এম.পলাশ শরীফ, বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে প্রথমিক বিদ্যালয়ের গত মার্চ মাসের বেতন ও ˆবৈশাখী ভাতা ছাড়াই ˆবৈশাখী উৎসব পালন করেছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।  মোরেলগঞ্জ উপজেলায় ৩০৯ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।  এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষক সংখ্যা প্রায় দের হাজার। 

এসব শিক্ষকদের বেতন পাঁচটি ব্যাংক থেকে দেয়া হয়।  এর মধ্যে মোরেলগঞ্জ জনতা ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংক তিন শতাধিক শিক্ষককে বেতন দিতে পেরেছে।  বাকি রূপালী ব্যাংক, পোলেরহাট অগ্রনী ব্যাংক,ও ˆদৈবজ্ঞহাটি জনতা ব্যাংক যথা সময় বেতন সিট নাপাওয়ার কারনে দিতে পারেনি।  উপজেলা শিক্ষা অফিস যথা সময় বতেন তৈরী করে ব্যাংকে পাঠাতে পারেনি। 

অপরদিকে শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারি মো. মিজানুর রহমান জানান, চলতি মাসে আমাদের বেতন ˆরীতে বিলম্ব হয়েছে অপর দিকে বৈশাখী ভাতার বিল সিট এখনও প্রস্তুত করতে পারিনি।  বেশ কয়েক জন শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, শিক্ষা অফিস ৫ এপ্রিল তারিখ দিয়ে ১২ এপ্রিল উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসে বেতন সিট প্রেরণ করেন।  ৭ দিন স্বাক্ষর ব্যবধান হওয়ায় হিসার রক্ষণ অফিস উক্ত বেতন সিট গ্রহনে অপারগতা প্রকাশ করায় উপজেলা শিক্ষা অফিসের বিশেষ অনুরোধে তারা বেতন সিট গ্রহণ করেণ। 

চৈত্র মাসের শেষে শিক্ষকরা বেতন তুলে বিভিন্ন দোকানে দেনা পাওনা পরিশোধ করতে না পারায় অনের শিক্ষক হেনস্তা হয়েছেন বলে জানান, কয়েক জন শিক্ষক।  শিক্ষকরা আরও বলেন, আমরা বেতন ও বৈশাখী ভাতা পাইনি, তার পরেও প্রতিটা স্কুলে ˆবৈশাখী উৎসব করেছি।  শিক্ষা অফিসের খামখেয়ালি পনার কারনে আজ আমাদের মানুষের কাছে ছোট হতে হয়েছে।  আমরা যেসব দোকান থেকে বাকিতে কেনাকাটা করি শেসব দোকানে টাকা দিতে পারিনি।  পরিবার পরিজনদের বৈশাখী উৎসব উপলক্ষে নতুন জামা কাপড় কিনে দিতে না পারায় ছেলে মেয়েরা খুব কষ্ট পেয়েছে।  এমন দুরবস্থায় চাকুরি জীবনে পড়তে হয়নী। 

এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আশীষ কুমার নন্দীর কাছে জানার জন্য চেষ্টাকরা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। 

Abu-Dhabi


21-February

keya