৪:৩৬ পিএম, ২১ আগস্ট ২০১৮, মঙ্গলবার | | ৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯


ব্রাহ্মনবাড়ীয়ায় ছাত্রী আত্মহত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

১৭ মে ২০১৮, ১১:৫৬ এএম | জাহিদ


আশরাফুল মামুন, ব্রাহ্মনবাড়ীয়া প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চাপুইর গ্রামের স্কুল ছাত্রী লিমা আক্তারকে আত্মহত্যার প্ররোচনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে অব্যাহিত দেয়া হয়েছে। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কাজী খাইরুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক মো. তরিকুল ইসলাম রায়হান বুধবার সাংবাদিকদের কাছে পাঠানো এক বিবৃতিতে জানান, দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের দায়ে মাছিহাতা ইউনিয়নের সাত নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি মো. উদয় খানকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। 

এদিকে এ ঘটনায় লিমার মা নুরুন্নাহার বেগম বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় তিনজনের নাম উল্লেখ করে এ মামলা দায়ের করেন। 

মামলার আসামীরা হলেন, চাপুইর গ্রামের রহিজ খানের ছেলে উদয় খান, রহমান মিয়ার ছেলে সুমন মিয়া ও ফারুক মোল্লার ছেলে লোকমান মোল্লা।  ঘটনার পর থেকে তারা পলাতক রয়েছেন। 

মামলায় অভিযোগ করা হয়, উদয় খান বেশ কয়েকবার লিমাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়।  এতে লিমা সাড়া দেয় নি।  বিষয়টি উদয় খানের পরিবারকে জানানো হলেও তাঁরা কোনো ব্যবস্থা নেন নি।  প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না পেয়ে উদয় পরিকল্পিতভাবেই মারধরের ঘটনা ঘটায়। 

এদিকে পুলিশ কাসেম খাঁন নামে একজনকে মঙ্গলবার রাতেই গ্রেপ্তার করেছে।  এজাহারনামীয় আসামী না হলেও তিনি ঘটনার সময় উপস্থিত থেকে কোনো ব্যবস্থা নেন নি বলে অভিযোগ আনা হয়।  কাসেম খান মামলার প্রধান অভিযুক্ত উদয় খানের চাচা। 

প্রসঙ্গত, রবিবার সকালে চাপুইর গ্রামের নিজ বাড়িতেই ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে জান্নাতুল ফেরদৌস লিমা। 

এর আগে ইয়াছিন নামে এক যুবককে কথিত প্রেমিক আখ্যা দিয়ে লিমা ও ইয়াছিনকে অপমান করে ছাত্রলীগ নেতা উদয়সহ অন্যান্যরা।  লিমা সদর উপজেলার চাপুইর আজিজুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ও চাপুইর গ্রামের সৌদি প্রবাসী মো. নুরুল হক ভূঁইয়ার একমাত্র মেয়ে।  পাঁচ ভাই, এক বোনের মধ্যে লিমা ছিলেন সবার ছোট।