৫:৫০ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, বুধবার | | ৬ সফর ১৪৪০


পোশাকখাতে নারীর ক্ষমতায়ন অর্থনীতিতে সম্ভবনা আরও বাড়াবে

৩১ মে ২০১৮, ১২:১২ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : দেশের যেসব কারখানায় নারীদের পদোন্নতি দেয়া হয়েছিল, সেসব কারখানার প্রবৃদ্ধিতে ও কারখানাগুলোর নারী সুপারভাইজারদের উন্নতিতে প্রশিক্ষণ ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছে। 

এজন্য দেশের পোশাকখাতে নারীদের ক্যারিয়ারের অগ্রগতি নিয়ে প্রচলিত যে অস্বচ্ছ ধারণা রয়েছে, তা বদলে যাবার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।  পোশাকখাতে নারীর ক্ষমতায়ন অর্থনীতিতে সম্ভবনা আরও বাড়াবে। 

বুধবার (৩০ মে) বিশ্বব্যাংকের সহযোগী সংস্থা ও ওয়ার্ল্ড ব্যাংক গ্রুপের সদস্য আইএফসির উদ্যোগে ‘কাটিং থ্রু দ্য ক্লোথ সিলিং’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।  এতে এসব কথা বলা হয়। 

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির প্রশিক্ষণ কর্মসূচির এ মূল্যায়ন প্রতিবেদন অনুযায়ী, নারী সুইং অপারেটরদের প্রশিক্ষণ দেশের তৈরি পোশাক শিল্পখাতে পণ্যের উৎপাদন তত্ত্বাবধানের ক্ষেত্রে নারীদের ভূমিকা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।  এ খাত নারীর ক্ষমতায়নে বিশেষ ভূমিকা রাখবে।  পাশাপাশি, কর্মক্ষেত্রে কর্মীদের অনুপস্থিতি কমিয়ে আনার মাধ্যমে এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচি কারখানার সুইং লাইনের উৎপাদনশীলতাও বাড়াবে। 

গড়ে দেশের ২০টি সুইং লাইনের মধ্যে ১৯টিতে সুপারভাইজার হিসেবে পুরুষ কাজ করছে অথচ এক্ষেত্রে প্রোডাকশন লাইনে কর্মীদের মধ্যে ৮০ শতাংশই নারী।  আইএফসির কাজের উন্নতি ও উৎপাদনশীলতা বিষয়ক প্রশিক্ষণ সুইং লাইনে লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণে অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। 

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ১৪৪ জন নারী এ কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন; যাদের মধ্যে ৯২ জনকেই এ কর্মসূচি শেষ হওয়ার কয়েক সপ্তাহের মধ্যে পদোন্নতির সুযোগ দেয়া হয়, যেখানে তাদের মজুরিও বৃদ্ধি পায়।  যার মধ্যে ৬০ শতাংশ নারীই এ সুযোগ গ্রহণ করেছেন।  প্রশিক্ষণ শেষে অংশগ্রহণকারী কারখানাগুলোতে নারী সুপারভাইজারের সংখ্যা ৫ শতাংশ থেকে ১২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। 

প্রতিবেদনে আরও জানা যায়, যেসব কারখানায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নারী সুপারভাইজার রয়েছে, সেসব কারখানায় গড় উৎপাদনশীলতা পাঁচ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং প্রোডাকশন লাইনে অনুপস্থিতির সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। 

আইএফসির এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন পপি আক্তার।  এ প্রশিক্ষণের পর তিনি অপারেটর পদ থেকে পদোন্নতি পেয়ে সুইং লাইন সুপারভাইজার হন।  প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ নিয়ে পপি আক্তার বলেন, ‘এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আমি শিখেছি কর্মক্ষেত্রে বিভিন্ন পর্যায়ের মানুষদের সাথে কীভাবে কথা বলতে হয়, পেশাদারিত্বের সাথে কীভাবে আচরণ করতে হয়, কীভাবে কাজের ধরনের হিসেব রাখতে হয়।  পাশাপাশি, কীভাবে উৎপাদন ও দক্ষতার সঠিক ব্যবস্থাপনা করে সুবিন্যস্তভাবে কাজ করতে হয়, যা আমার ক্যারিয়ারে বিশেষ মাত্রা যোগ করেছে। ’

এ নিয়ে আইএফসি বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপালের কান্ট্রি ম্যানেজার ওয়েন্ডি ওয়ার্নার বলেন, ‘গবেষণা প্রতিবেদন অনুযায়ী, নারীদের এ প্রশিক্ষণ, প্রডাকশন লাইনের কর্মদক্ষতা বাড়িয়ে তুলেছে। ’

বাংলাদেশের পোশাক খাত ৪০ লাখেরও বেশি স্বল্প-দক্ষ মানুষের জন্য আনুষ্ঠানিক চাকরির সুযোগ করে দিয়েছে; যাদের মধ্যে ৬০ শতাংশই নারী।  জাপানের অর্থ মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় ও বেটার ওয়ার্ক বাংলাদেশর সহযোগিতায় আইএফসি ২৮টি পোশাক কারখানার কর্মীদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে।  এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে অতিরিক্ত অর্থায়ন সহযোগিতা দিয়েছে বিশ্বব্যাংক চালিত লেটস ওয়ার্ক মাল্টি-ডোনার ট্রাস্ট ফান্ড। 

কর্মসূচির মধ্যে ছিল দক্ষ সুপারভাইজার হতে প্রয়োজনীয় নেতৃত্বদানের দক্ষতা ও যোগাযোগের দক্ষতা নিয়ে চার দিনের ‘সফট স্কিল ট্রেনিং’ এবং কারিগরি দক্ষতা নিয়ে পাঁচ দিনের প্রশিক্ষণ।  এরপর, প্রশিক্ষণার্থীরা আট সপ্তাহে হাতে-কলমে একজন অভিজ্ঞ সুপারভাইজারের তত্ত্বাবধানে তাদের প্রশিক্ষণকালীন শিক্ষার ব্যবহারিক প্রয়োগ ঘটান; যা তাদের সুপারভাইজারের ভূমিকায় উত্তীর্ণ হওয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।  এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে প্রার্থীদের পাশাপাশি, পদোন্নতির ক্ষেত্রে প্রার্থীর দক্ষতা ও মনোভাবের মূল্যায়ন কীভাবে করা যাবে, তা নিয়ে উচ্চ ও মাঝারি পর্যায়ের ম্যানেজারদেরও প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। 


keya