৩:১৪ পিএম, ২০ জুন ২০১৮, বুধবার | | ৬ শাওয়াল ১৪৩৯

South Asian College

খালেদাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে : আনিসুল হক

১০ জুন ২০১৮, ০২:৪৮ পিএম | মুন্না


এসএনএন২৪.কম : কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।  রোববার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা জানান। 

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘বেগম জিয়া ইচ্ছা ব্যক্ত করার পর শনিবার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা তার সঙ্গে দেখা করেন। 

চিকিৎসকরা বলেছেন— বেগম জিয়ার কথা শুনে মনে হয়েছে, তার একটা মাইল্ড স্ট্রোক হয়েছিল।  এরপর এটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য আজ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে।  এজন্য তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নিয়ে যাওয়া হবে বলে আমাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন। ’

খালেদা জিয়াকে কখন হাসপাতালে নেয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি সময়টা জানি না। ’

আনিসুল হক বলেন, ‘খুব সম্ভবত গত পরশু খালেদা জিয়া রোজা রেখেছিলেন।  বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে হেলে পড়ে যাচ্ছিলেন।  তখন তার সঙ্গে থাকা গৃহপরিচারিকা ফাতেমা ধরে ফেলেন।  তাৎক্ষণিকভাবে জেলের চিকিৎসকরা তাকে শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। ’

তিনি আরও বলেন, ‘কারা চিকিৎসকরা জানান— খালেদা জিয়া রোজা রাখায় তার সুগার লেভেল কমে গিয়েছিল।  পরে একটা চকলেট খাওয়ার পর তা রিভাইভ করে। ’

গতকাল শনিবার বিকেলে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চার চিকিৎসক কারাগারে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের জানান, দাঁড়ানো অবস্থা থেকে ৫ জুন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মেঝেতে পড়ে গিয়েছিলেন।  তখন কী হয়েছিল, তা তিনি বুঝতে পারেননি।  সে সময়ে প্রায় ৫-৭ মিনিট অজ্ঞান ছিলেন বিএনপি নেত্রী।  আমাদের ধারণা, তার মাইল্ড স্ট্রোক হয়েছিল। 

পরে সন্ধ্যায় কারা অধিদফতর আয়োজিত ইফতার ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার পড়ে যাওয়ার বিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষ অবগত নয়।  তার ‘মাইল্ড স্ট্রোকের’ বিষয়টিও তারা জানেন না। ’

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি পুরোনো ঢাকার বকশীবাজার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন।  এরপর থেকে তাকে নাজিম উদ্দিন রোডের কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে রাখা হয়েছে। 

ইতোমধ্যে আপিলের পর সর্বোচ্চ আদালত খালেদা জিয়াকে এই মামলায় জামিন দিয়েছেন।  তবে আরও বেশ কয়েকটি মামলা চলমান থাকায় এখনই তিনি জামিন পাচ্ছেন না।