১:০৯ পিএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ৯ মুহররম ১৪৪০


কোতয়ালীতে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার-৩

২৯ জুন ২০১৮, ০৪:১৬ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : বর্তমানে আমাদের দেশের যুব সমাজের অধঃপতনের অন্যতম কারণ হচ্ছে মাদকাসক্তি।  মাদকাসক্তির ভয়াল থাবা প্রতিনিয়ত আমাদের সমাজকে ধ্বংস করে ফেলছে। 

দেশব্যাপী মাদকদ্রব্যের বিস্তাররোধ এবং দেশের যুব সমাজকে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে রক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে র‌্যাবের মাদক বিরোধী অভিযান দেশের সর্বস্তরের জনসাধারণ কর্তৃক বিশেষভাবে প্রশংসিত হয়েছে। 

এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এ বৎসর ০১ জানুয়ারি ২০১৭ হতে অদ্য ২৯ জুন ২০১৮ ইং তারিখ পর্যন্ত সর্বমোট ৪৪৫ টি বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রসহ মোট ৫৪ টি ম্যাগাজিন এবং ৫,৭৪৬ রাউন্ড বিভিন্ন ধরনের গুলি/কার্তুজ উদ্ধারের পাশাপাশি ৮৬ লক্ষ ৯৯ হাজার ৯৩ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৪৬ হাজার ৯৮৫ বোতল ফেন্সিডিল, ৩,৪৫৫ বোতল বিদেশী মদ ও বিয়ার, ০৮ লক্ষ ০৬ হাজার ৩০৫ লিটার দেশীয় তৈরী মদ, ৯৩৮ কেজি ৮১৫ গ্রাম গাঁজা, ৪১২ গ্রাম হেরোইন এবং ৭ কেজি ৪২৫ গ্রাম আফিম উদ্ধার করেছে। 

র‌্যাব-৭ চট্টগ্রাম গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কক্সবাজার হতে ঢাকাগামী শ্যামলী পরিবহনের ০১টি বাসের মাধ্যমে কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাচ্ছে। 

উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অদ্য ২৯ জুন ২০১৮ ইং তারিখ ০৩:১০ ঘটিকার সময় র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল চট্টগ্রাম মহানগরীর কোতয়ালী থানাধীন সৈকত হোটেলের এর সামনে ঢাকা- চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপর একটি বিশেষ চেকপোস্ট স্থাপন করে গাড়ি তল্লাশী করতে থাকে। 

এ সময় কক্সবাজার হতে ঢাকাগামী শ্যামলী পরিবহন এর একটি বাসের (ঢাকা মেট্রো-ব ১৪-৯৮৬৪) গতিবিধি সন্দেহজনক হলে র‌্যাব সদস্যরা উক্ত বাসটিকে থামানোর জন্য সংকেত দিলে গাড়িটি র‌্যাবের চেকপোস্টের কাছে থামালে র‌্যাব সদস্যরা যাত্রী ও গাড়ী তল্লাশী করতে থাকে। 

এ সময় তিনজন ব্যাক্তি কৌশলে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করে আসামী ১।  মোঃ সবুজ (৩২), পিতা- মোঃ আব্দুল হাসেম, গ্রাম- নিশ্চিন্তপুর (সেন্দ্রা বাজার), থানা- হাজীগঞ্জ, জেলা- চাঁদপুর, বর্তমানে বাঘবাড়ী তেলের মিল, সেন্টু মেম্বারের বাড়ী (ভাড়াটিয়া), থানা- দারুস সালাম, জেলা- ঢাকা, ২।  পলাশ মন্ডল (২৮), পিতা- সুকুমার মন্ডল, গ্রাম- গিয়াঘাট (বাটাজোড়), থানা- গৌরনদী, জেলা- বরিশাল, বর্তমানে লাল কুঠির, প্রথম কলোনী, হাসান মাষ্টারের বাড়ী, গাবতলী, থানা- দারুস সালাম, জেলা- ঢাকা এবং ৩।  মোঃ নাসির হাওলাদার (৩০), পিতা- মোঃ আঃ রব হাওলাদার, গ্রাম- ভরসাকাঠি, থানা- উজিরপুর, জেলা- বরিশাল, বর্তমানে স্যানুলিয়া, মেজর জলিলের বাড়ী, থানা- আশুলিয়া, জেলা- ঢাকা’দেরকে আটক করে। 

পরবর্তীতে উপস্থিত যাত্রী ও স্থানীয় স্বাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীদের দেহ, বাসটি তল্লাশী করে তাদের পরিহিত প্যান্টের পকেট এবং তাদের দেখানো ও সনাক্ত মতে ড্রাইভারের সীটের পার্শ্বে সুকৌশলে লুকানো অবস্থায় মোট ১৯,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ উক্ত বাসটি জব্দ করা হয়। 

গ্রেফতারকৃত আসামীদেরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, তারা উক্ত ইয়াবা একে অপরের সহযোগীতায় যাত্রীবাহী বাসের মাধ্যমে পরিবহন করে কক্সবাজার হতে ঢাকায় বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রয় করছে।  উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটের আনুমানিক মূল্য ৯৫ লক্ষ টাকা এবং জব্দকৃত বাসের আনুমানিক মূল্য ০১ কোটি টাকা। 

গ্রেফতারকৃত আসামী, উদ্ধারকৃত ইয়াবা ও আন্যান্য আলামত পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে চট্টগ্রাম মহানগরীর কোতয়ালী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।