৪:৫৩ এএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার | | ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০




দেনার টাকা শোধ না করায় হতদরিদ্র শ্রমিককে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন!

০৯ জুলাই ২০১৮, ০৯:১০ এএম | জাহিদ


হাবিব সরোয়ার আজাদ, সিলেট প্রতিনিধি : দেনার টাকা শোধ করতে না পরায় সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জে মিল মালিকের পক্ষ্য নিয়ে প্রভাবশালীরা এক  হতদরিদ্র শ্রমিককে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে ২ ঘন্টা শারীরিক নির্যাতন চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।  নির্যাতিত শ্রমিকের নাম নজমুদ্দিন (৫০)।  তিনি উপজেলার নুরপুর গ্রামের মুত দিলকুশ মিয়ার ছেলে। ’

রবিবার রাতে গ্রামের লোকজন আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ওই শ্রমিককে চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর মডেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। ’

প্রত্যক্ষদর্শী ও নির্যাতনের শিকার শ্রমিকের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নুরপুর গ্রামের মিল শ্রমিক নজমুদ্দিন নোয়াখালী বাজারস্থ বরুন রায়ের মিলে শ্রমিকের কাজ করতেন।  পারিবারীক আর্থীক অনটনের মুখে বেশ কিছুদিন পুর্বে নজমুদ্দিন মিল মালিকের নিকট থেকে ৩ হাজার টাকা ধার করেন। 

দেনার টাকা পরিশোধের জন্য রবিবার সন্ধায় মিলের মালিকের পক্ষ হয়ে উপজেলার নুরপুর গ্রামের কবির মিয়ার ছেলে প্রভাবশালী সুজন মিয়া নজমুদ্দিনকে চাঁপ সৃষ্টি করলে উভয়ের মধ্যে তর্কাতর্কির  এক পর্যায়ে সুজন, তার পিতা কবির উদ্দিন, ভাই নানু মিয়া,চাচাত ভাই মাহতাব উদ্দিন,রুমেল আহমদ সংঘবদ্ধ হয়ে নজমুদ্দিনকে নুরপুর গ্রামের নতুন মসজিদের সামনে একটি গাছের সাথে ২ ঘন্টা হাত-পা বেঁধে রেখে বেধরক ভাবে পিটিয়ে আহত করে। 

পরে একই গ্রামের আজিজুর রহমান গ্রামবাসীকে নিয়ে এসে আহত অবস্থায় নজমুদ্দিনকে উদ্ধার করে তার বাড়িতে পৌছে দেন।  এরপর সুজন ও তার পরিবারের লোকজন নজমুদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে তার ওপর  ফের হামলা করে মাথায় রক্তার্থ জখম করে  তাকে ফেলে রেখে বীরদর্পে ফিরে আসে। 

পরে গ্রামের লোকজন খবর পেয়ে আশংকাজনক অবস্থায় বাড়ি থেকে ওই শ্রমিককে উদ্ধার করে রাতে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। 

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি মো: ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী রবিবার রাতে জানান, লোকমুখে শ্রমিক নির্যাতনের  বিষয়টি জানতে পেরেছি, লিখিত অভিযোগ পেলে এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। 



keya