১২:৫৭ পিএম, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, শনিবার | | ৬ রবিউস সানি ১৪৪০




ট্রাইবেকারে ৪-৩ গোলে ফরিদগঞ্জকে হারিয়ে ফাইনালে কচুয়া

ফরিদগঞ্জে মাদক বিরোধী ফুটবল টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল অনুষ্টিত

০৬ আগস্ট ২০১৮, ০৯:৩৭ পিএম | মাসুম


ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি: ফরিদগঞ্জ পুলিশ সুপারের উদ্যোগে আন্তঃজেলা মাদক জঙ্গীবাদ ও বাল্য বিবাহ বিরোধী ফুটবল টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল সম্পন্ন হয়েছে। 

সোমবার বিকালে ফরিদগঞ্জ উপজেলার রূপসা আহাম্মদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত প্রথম সেমি-ফাইনালে ট্রাইবেকারে ৪-৩ গোলে ফরিদগঞ্জ উপজেলাকে হারিয়ে কচুয়া উপজেলা ফাইনালে উন্নিত হয়।  আগামী ১০ আগস্ট অনুষ্ঠিতব্য ফাইনালে কচুয়া উপজেলা চাঁদপুর সদর ও হাজীগঞ্জ উপজেলার মধ্যকার বিজয়ী দলের সাথে প্রতিদ্বন্ধিতা করবে। 

বিকালে আক্রমণ ও প্রতিআক্রমনের মধ্যে দিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা পূর্ণ এই খেলা প্রথম ও দ্বিতীয় অর্ধ গোল শূন্য থাকে।  এসময় উভয় দল বেশ কয়েকটি গোল করার সুযোগ পেলেও কেউই গোল দিতে পারে নি।  ফলে নির্ধারিত সময় শেষে ফলাফলের জন্য ট্রাইবেকারে যেতে হয়।  ট্রাইবেকারে ফরিদগঞ্জ উপজেলা দলের দুই জন গোল করতে ব্যর্থ হওয়ায় বিজয়ী হয়  কচুয়া। 

এদিকে খেলা শুরুর পুর্বে উভয় দলসহ মাঠে উপস্থিত হাজার হাজার দর্শক ও অতিথিদের মাদক সন্ত্রাস জঙ্গীবাদ ও বাল্য বিবাহ বিরোধী  শপথ বাক্য পাঠ করান চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার।  খেলোয়াড়দের সাথে পরিচিতি হওয়ার পর প্রধান অতিথি ফরিদগঞ্জ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভ‚ঁইয়া আনুষ্ঠানিক ভাবে খেলার উদ্বোধন করেন। 

এর আগে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইন চার্জ মো: শাহ আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে  গিয়ে ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভ‚ঁইয়া এমপি বলেন, মাদক জঙ্গীবাদ সন্ত্রাস এবং বাল্য বিবাহ রোধে চাঁদপুরের সুযোগ্য পুলিশ সুপার ফুটবল খেলার মাধ্যমে যে সামাজিক আন্দোলন শুরু করেছেন, আজ বলতে পারি তা সফল।  খেলা পাগল মানুষ এই টুর্নামেন্টের মাধ্যমে ফুটবলের প্রতি তাদের আজন্ম ভালবাসা দেখানোর সাথে সাথে নিজেরা মাদকের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর শপথ নিচ্ছে।  গ্রাম থেকে শহরে সর্বত্রই আজ এই আয়োজনের কারণে মানুষ মাদক জঙ্গীবাদ সন্ত্রাস এবং বাল্য বিবাহ রোধে ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে।  একথা ষ্পষ্ট মাদক বিরোধী সামাজিক আন্দোলন আজ দৃশ্যমান। 

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার মানুষের মনের কথা বোঝে।  তাইতো শিক্ষার্থীদের দাবী নিরাপদ সড়কের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একমত পোষন করেছেন।  তাদের দাবী বাস্তবায়ন শুরু করেছেন।  তিনি আরো বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নে বিশ্বাসী ।  তাইতো গ্রামগঞ্জ শহর সর্বত্রই উন্নয়নের ছোঁয়া দৃশ্যমান।  আমরা বিশ্বাস করি, আওয়ামীলীগের নেতৃত্বাধীন সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসলে এদেশ সোনার বাংলাদেশে রূপান্তরিত হবে। 

স্বাগত বক্তব্য রাখতে গিয়ে চাঁদপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার বলেন, একটি জাতিকে উন্নতির শিখরে নিয়ে যেতে হলে সমাজ থেকে অন্ধকার দুর করতে হবে।  মাদক জঙ্গীবাদ সন্ত্রাস এবং বাল্য বিবাহ  সমাজে থাকা সেই অন্ধকার।  তাই ফুটবল টুর্নামেন্টের মাধ্যমে আমরা গ্রাম থেকে শহরে সবখানে সাধারণ মানুষের মধ্যে মাদক জঙ্গীবাদ সন্ত্রাস এবং বাল্য বিবাহ রোধে জাগরণ সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছি।  আশা করছি মানুষ জেগে উঠেছে।  তিনি ফরিদগঞ্জ বাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ফরিদগঞ্জ থেকে আমরা এই ফুটবল টুর্নামেন্টের যাত্রা শুরু করেছিলাম।  এই উপজেলার মানুষ ভালভাবে টুর্নামেন্টে সম্পন্ন করার জন্য যে শক্তি ও সাহস যুগিয়েছে তাতে আমি মুগ্ধ। 

বিকালে আক্রমণ ও প্রতিআক্রমনের মধ্যে দিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা পূর্ণ এই খেলা প্রথম ও দ্বিতীয় অর্ধ গোল শূন্য থাকে।  এসময় উভয় দল বেশ কয়েকটি গোল করার সুযোগ পেলেও কেউই গোল দিতে পারে নি।  ফলে নির্ধারিত সময় শেষে ফলাফলের জন্য ট্রাইবেকারে যেতে হয়।  ট্রাইবেকারে ফরিদগঞ্জ উপজেলা দলের দুই জন গোল করতে ব্যর্থ হওয়ায় বিজয়ী হয়  কচুয়া। 

এদিকে খেলা শুরুর পুর্বে উভয় দলসহ মাঠে উপস্থিত হাজার হাজার দর্শক ও অতিথিদের মাদক সন্ত্রাস জঙ্গীবাদ ও বাল্য বিবাহ বিরোধী  শপথ বাক্য পাঠ করান চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার।  

সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবু সাহেদ সরকার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল খায়ের পাটওয়ারী, উপজেলা পরিষদ ভাইসচেয়ারম্যান ওয়াহিদুর রহমান রানা, রিনা নাসরিন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ওমর ফারুক ফারুকী, ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি নুরুন্নবী নোমান, সাধারণ সম্পাদক প্রবীর চক্রবর্তী, উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর সাধারণ সম্পাদক সুলতান আহমেদ রিপন । 



keya