১১:৩২ পিএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, রোববার | | ৭ রবিউস সানি ১৪৪০




ঝালকাঠিতে আওয়ামী লীগ নেতার বাসা থেকে আট জামায়াত নেতা আটক

১০ আগস্ট ২০১৮, ০৫:৫৯ পিএম | মাসুম


মো.রাজু খান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : নাশকতার পরিকল্পনায় গোপন বৈঠককালে ঝালকাঠিতে আট জামায়াত নেতাকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। 

শুক্রবার  বেলা ১১টার দিকে শহরের পূর্বচাঁদকাঠি বিআইপির পেছনে মরিয়ম ম্যানশনের পাঁচতলা ভবনের একটি ফ্লাট থেকে তাদের আটক করা হয়। 

ঝালকাঠি ডিবি পুলিশের ওসি মোঃ কামরুজ্জামান গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

মরিয়ম ম্যানশনের মালিক নব্য আওয়ামী লীগ নেতা দাবিদার মিডিয়া প্লাসের মালিক রিপন। 

আটককৃতরা হলেন জেলা জামায়াতের সাংগঠনিক সেক্রেটারী এডভোকেট নাছির উদ্দিন, সাবেক  জেলা সেক্রেটারী এডভোকেট বিএম আমিনুল ইসলাম, সদর থানা জামায়াতের সেক্রেটারী মাওলানা মনিরুজ্জামান, কেওড়া ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি আবদুল মালেক সিকদার, রাজাপুর উপজেলা জামায়াতের সদস্য শাহজামাল হাওলাদার, বরিশাল জামায়াতের সদস্য কাওছার আহম্মেদ, ঝালকাঠি জেলা জামায়াতের রোকন জাকির হোসেন ও হাবিবুর রহমান। 

ডিবি পুলিশের ওসি মোঃ কামরুজ্জামান জানান, পূর্বচাঁদকাঠির মরিয়ম ম্যানশনের পঞ্চম তলার একটি ফ্লাটে ভাড়া থাকেন জেলা জামায়াতের সাংগঠনিক সেক্রেটারী এডভোকেট নাছির উদ্দিন। 

তাঁর বাসায় সকালে  গোপন বৈঠকে বসেন জেলার শীর্ষ জামায়াত নেতারা।  সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র এবং নাশকতার পরিকল্পনায় এ বৈঠক চলছিল। 

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঝালকাঠি গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে বৈঠকে উপস্থিত আটজনকে আটক করে।  তাদের ডিবি কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। 

স্থানীয়রা জানায় মরিয়ম ম্যানশনের মালিক রিপন মূলত জামায়েত ইসলামীর লোক।  কৌশলগত কারনে নিরাপদ থাকতে সে নব্য আওয়ামী লীগর  সেজে আওয়ামী লীগের কাছ থেকে সুবিধা নিচ্ছে।  আওয়ামী লীগ ও যুব লীগের কিছু অর্থলোভী নেতা রিপনকে নানাভাবে সহায়তা করছে। 

ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এম এম মাহামুদ হাসান জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা বৈঠকের কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। 

এ ব্যাপারে ডিবি পুলিশের এসআই হেলাল উদ্দিন বাদি হয়ে শুক্রবার বিকালে তাদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা দায়ের করেছে।