৫:৫২ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, সোমবার | | ১৩ মুহররম ১৪৪০


প্রাক্তন ছাত্রদের অর্থায়নে

দৃষ্টিনন্দন ভবণ বদলে দিয়েছে নোয়াজিষপুর অদুদিয়া বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থা!

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৬:২৬ পিএম | জাহিদ


প্রদীপ শীল, রাউজান প্রতিনিধি : প্রাক্তন ছাত্রদের অর্থায়নেএকটি দৃষ্টিনন্দন ভবণ বদলে দিয়েছে রাউজানের নোয়াজিষপুর অদুদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দৃশ্যপট।  ইতিমধ্যে প্রাক্তন ছাত্ররা শুরু করেছে আরো একটি বহুতল ভবণ নির্মান কাজ। 

জানা যায়, ২০১৭ সালে  অদুদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় সুবর্ণ জয়ন্তী অনষ্ঠানে বর্তমান ও প্রাপ্তন ছাত্র ছাত্রীদের মেল বন্ধন হয় অনুষ্ঠানকে ঘিরে।  অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির সামনে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা অঙ্গিকার করে ছিলেন ভবণ সংকট নিরসনে তাদের অর্থায়নে ভবণ নির্মাণ করবে। 

প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা মাত্র ১০ মাস সময়ের মধ্যে ৭০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মণ করেন ‘সুবর্ণ জয়ন্তী ভবণ’ নামে চারতলা বিশিষ্ট দ্বিতল দৃষ্টি নন্দন ভবণ।  দ্রুত গতিতে নির্মিত ভবণটি উদ্বোধন করেন সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা আরো একটি ভবণ নির্মানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে কাজ শুরু করেছেন।  আগামী ২০১৯ সালের মাঝা মাঝিতে ভবণটির নির্মান কাজ শেষ হবে বলে প্রাক্তন ছাত্ররা জানিয়েছেন।  অপরদিকে পাঠদানের জন্য খুলে দেয়া সুবর্ণ জয়ন্তী ভবণটি শ্রীবৃদ্ধি করেছে স্কুলের অগ্র যাত্রাকে।  সৌন্দর্য্য বন্ধণে অর্ধ শত বয়সী অদুদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্ররা এগিয়ে আসায় ভূয়সী প্রসংশা করেছেন রাউজানের সাংসদ। 

তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, সরকারের পাশাপাশি সমাজের বৃক্তশালীরা শিক্ষা ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটাতে পারে।  তার উদাহারণ অদুদিয়া স্কুলের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা।  প্রাক্তন ছাত্রদের অর্থায়নে স্কুলের উন্নয়ন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে স্থানীয় চেয়ারম্যান, বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি প্রাক্তন ছাত্র লায়ন সরোয়ার্দী সিকদার জানান, প্রথমত, আমরা মাধ্যমিক পষর্ন্ত এই স্কুলে লেখা পড়া করেছি। 

দ্বিতীয়ত, এই স্কুলে লেখাপড়া করে আমরা স্বস্ব অবস্থানে কম বেশি সবাই প্রতিষ্ঠিত।  তৃতীয়ত, এই স্কুলে বিগত ৫০ বছর যারা লেখা পড়া করেছে তারা সকলেই কোন না কোন ভাবে আমাদের রক্তের সম্পর্কীত।  সব মিলিয়ে সামাজিক দায়বন্ধতা থেকে ছাত্র জীবণের স্মৃতি বিজড়িত অদুদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের উন্নয়নে আমরা ভূমিকা রাখার চেষ্টা করছি।  দীর্ঘদিন যাবত ক্লাস সংকটে ছিল স্কুলটি।  একটি ভবণ হওয়ায় শিক্ষার্থীদের লেখা পড়ার পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।  আমরা আরো একটি চার তলা ভবণের ভিক্তিপ্রস্থর দিয়েছি। 

এই ভবনটি হয়ে গেলে ক্লাস সংকট আর থাকবে না।  আগামীতে প্রাক্তন ছাত্ররা বিভিন্ন উন্নয়ন মূখি প্রকল্প হাতে নেয়ার পরিকল্পনার কথাও জানান প্রাক্তন ছাত্র লায়ন সরোয়ার্দী সিকদার।  স্থানীয় লোকজন জানান, অদুদিয়া স্কুলের প্রাক্তন ছাত্ররা একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।  এই ভাবে প্রতিটি স্কুলের প্রাক্তন ছাত্ররা এগিয়ে আসলে পাল্টে যাবে শিক্ষা ব্যবস্থা।