১২:০৯ পিএম, ২১ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার | | ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০




হাতীবান্ধায় শিক্ষক দম্পত্তির বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৩৩ পিএম | সাদি


আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার কেতকী বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিউলী বেগমের বিরুদ্ধে নিয়মবহির্ভুত ভাবে পোষ্ট অফিসের সঞ্চয় পত্র ভেঙ্গে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে।  ওই সঞ্চয় পত্রের টাকা আত্মসাতের ঘটনায় শিউলী বেগমকে সহযোগিতা করেছেন তার স্বামী একই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান।  এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত ও বিচার দাবী করে মঙ্গলবার দুপুরে হাতীবান্ধা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন শিউলী বেগমের মামা আঃ হামিদ।  আঃ হামিদ ওই উপজেলার পুর্ব বিছনদই এলাকার মৃত আনার উদ্দিনের পুত্র। 

সংবাদিক সম্মেলনে আঃ হামিদ বলেন, আমার বোন সালেহা বেগম হাতীবান্ধা পোষ্ট অফিসে ৫ লক্ষ টাকার একটি সঞ্চয় পত্র খুলেন।  যার নমিনি ছিলেন আমার অপর এক বোনের মেয়ে ভাগনী শিউলী বেগম।  গত ৩ ফেব্রুয়ারী আমার বোন অবিবাহিত অবস্থায় মারা যান।  আমি ও তার উত্তারাধিকার হাতীবান্ধা পোষ্ট অফিসে যোগাযোগ করি।  এ সময় হাতীবান্ধা পোষ্ট অফিস থেকে আমাদের বলা হয়, সাকসেশন করে উত্তরাধিকারীদের কাছে টাকা বন্টন করা হবে।  মৃত ব্যক্তির সঞ্চয় পত্রের টাকা নমিনি নয়,  উত্তরাধিকারী পাবেন এমন একটি রায়ও হাইকোর্ট দিয়েছেন। 

কিন্তু মৃত্যু সালেহা বেগমের উত্তরাধিকারীদের না জানিয়ে গত ১৯ জুলাই আমার ভাগনী শিউলী বেগম তার স্বামী কেতকী বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানের সহযোগিতায় উক্ত টাকা উত্তোলন করে আত্মসাতৎ করেছেন।  আমি এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট কৃর্তপক্ষের কাছে সুষ্ঠ তদন্ত পূর্বক ন্যায় বিচার দাবী করছি। 

এ বিষয়ে কেতকীবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান তার মামা শ্বশুর ও তার স্ত্রীর মাঝে সঞ্চয় পত্রের টাকা নিয়ে দ্বন্দ্বের বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হয়নি।  তবে একাধিক বার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও শিউলী বেগমের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।