৩:১৫ এএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার | | ৮ সফর ১৪৪০


নওগাঁয় সাংবাদিক নির্যাতনকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবীতে মানববন্ধন

১১ অক্টোবর ২০১৮, ০৯:১৭ পিএম | জাহিদ


আব্দুল মান্নান, নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁ থেকে প্রকাশিত দৈনিক বিটিবি নিউজের সম্পাদক আব্দুল বারীর নির্যাতনকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে নওগাঁয় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫ টায় শহরের মুক্তির মোড়ে বৃষ্টি উপেক্ষা করে সাংবাদিক ইউনিয়ন নওগাঁর উদ্যোগে এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। 

ইউনিয়নের আহবায়ক অ্যাড. শহীদ হাসান সিদ্দিকী স্বপনের সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য রাখেন ইউনিয়নের সদস্য সচীব একাত্তর টেলিভিশন ও দৈনিক ইত্তেফাকের তন্ময় ভৌমিক, সদস্য দৈনিক আগামীর প্রত্যাশার ফারমান আলী, দৈসিক স্বাধীন সংবাদের হাবিবুর রহমান, দৈনিক বজ্র শক্তির আতাউর শাহ, প্রথম সংবাদের স্টাফ রিপোটার রুবেল হোসেন, দৈনিক লাখোকণ্ঠের খোরশেদ আলম, দৈনিক গণমানুষের আওয়াজ জাহিদুল হক মিন্টু, দেলোয়ার হোসেন  প্রমুখ। 

মামলা সূত্রে জানা গেছে, আব্দুল বারীর শহরের উকিল পাড়ায় একটি জমি পরিতোষ মহারার স্ত্রী অনিমা রাণীর স্ত্রীর কাছ থেকে বায়নাকৃত জমি ক্রয় করেন।  সেই জমিতে বাড়ি নির্মান করাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী ও ৮টি মাদক মামলার আসামী শহরের বিহারী কলোনির বাসিন্দা শিতাংশ কুমার সাংবাদিক আব্দুল বারীর কাছে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করে। 

দাবীকৃত টাকা না দেয়ায় শিতাংশ কুমার তার দলবল নিয়ে ৭ অক্টোবর লাঠি ও লোহার রড দিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি ভাবে মারপিট করে আহত করে।  পরে স্থানীয়রা তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধান করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে দেন।  এ ঘটনায় সাংবাদিক আব্দুল বারী বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের  করে।  কিন্তু মামলার ৫ দিন পেরিয়ে গেলেও ঘটনার মূল আসামীদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। 

অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তারা সাংবাদিক আব্দুল বারীর নির্যাতনকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবী জানান। 

আব্দুল বারী জানান, পুলিশের উধ্বর্তন কর্মকর্তাদের আন্তরিকতা থাকলেও মামলার তদন্তকারির জন্যে আসামীদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হচ্ছে না।  যার কারণে আসামীরা হাসপাতালেও এসে বিভিন্ন হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।  এতে পরিবার-পরিজন নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন। 

নওগাঁ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই জানান, মামলার তিন নম্বর আসামীকে তাৎক্ষণিক আটক করা হয়েছে।  মামলার প্রধান আসামীসহ অন্যান্য আসামীরা পলাতক থাকায় তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হচ্ছে না।  অপর প্রশ্নে তিনি বলেন, মামলার তদন্তকারিকে পরিবর্তন করে দেয়া হবে। 


keya