৩:১৫ এএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার | | ৮ সফর ১৪৪০


তুরস্ক-যুক্তরাষ্ট্রের চাপে বেকায়দায় সৌদিঅারব

১২ অক্টোবর ২০১৮, ১১:১৩ এএম | মাসুম


এসএনএন২৪.কম : তুরস্কের সৌদি কনস্যুলেট থেকে সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগির নিখোঁজের ঘটনা আরও জটিল আকার ধারণ করেছে।  নিখোঁজের পর এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও রহস্যের কোনো কূলকিনারা পাওয়া যায়নি।  কেউ বলছে, তাকে হত্যা করা হয়েছে।  আবার কেউ বলছে, জীবিত আছেন তিনি।  তাকে অপহরণ করে রিয়াদে নেয়া হয়েছে।  খাসোগির প্রকৃত অবস্থা জানাতে ক্রমেই চাপ বাড়ছে সৌদি কর্তৃপক্ষের ওপর। 

তুরস্কের সঙ্গে সঙ্গে এবার সোচ্চার হয়েছে মিত্রদেশ যুক্তরাষ্ট্রও।  দুই দিকের চাপে এখন বেকায়দায় সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।  খাসোগির গুমের পেছনে তাকেই মাস্টারমাইন্ড মনে করা হচ্ছে। 

তুরস্ক বলছে, সৌদি রাজপরিবারের কট্টর সমালোচক খাসোগিকে সম্ভবত কনস্যুলেটের ভেতরেই হত্যা করা হয়েছে।  সৌদি আরব থেকে ২ অক্টোবর তুরস্কে আসা ১৫ সদস্যের একটি দল তাকে হত্যা করে বলে সন্দেহ তুর্কি গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর।  রিয়াদ এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, প্রবেশের অল্প সময় পরই কনস্যুলেট ভবন ছেড়ে গেছেন বছরখানেক ধরে যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছা নির্বাসনে থাকা খাসোগি। 

কনস্যুলেটের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা তুর্কি পুলিশ কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা ক্যামেরায় সৌদি এ সাংবাদিককে কনস্যুলেট থেকে বেরিয়ে যেতে দেখা যায়নি।  সৌদি কর্তৃপক্ষের এই দাবি উড়িয়ে দিয়ে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান কনস্যুলেট থেকে খাসোগির বের হয়ে যাওয়ার ভিডিও ফুটেজ প্রকাশের আহ্বান জানিয়েছেন। 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, নিখোঁজ সাংবাদিক খাসোগিকে ঘিরে চলা রহস্যের শেষ দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র।  কনস্যুলেটের ভেতর থেকে সাংবাদিক গায়েবকে ‘খুবই গুরুতর ঘটনা’ অ্যাখ্যা দিয়েছেন তিনি।  সাংবাদিক নিখোঁজকাণ্ডে যুক্তরাষ্ট্র সৌদি রাজপরিবারকে দায়ী ভাবছেন কিনা, বুধবার টেলিফোনে ফক্স নিউজকে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা সবকিছু জানতে চেয়েছি।  কি ঘটছে তা দেখতে চাই আমরা।  যুক্তরাষ্ট্র ও হোয়াইট হাউসের জন্য এটা খুবই গুরুতর পরিস্থিতি, আমরা এর শেষ দেখতে চাই। ’

ট্রাম্পের সঙ্গে সঙ্গে কেনটাকি সিনেটর র‌্যান্ড পল বুধবার বলেছেন, খাসোগি জীবিত ফিরে না আসা পর্যন্ত সৌদিকে দেয়া সব সামরিক সহায়তা বন্ধ থাকবে- চলতি সপ্তাহেই সিনেটে এই মর্মে একটি প্রস্তাব তুলবেন তিনি। 


keya