৫:৪৬ পিএম, ২০ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০




আদালতে ধর্ষিতা স্কুলছাত্রীর ২২ ধারায় জবানন্দি প্রদান

০৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:৫১ পিএম | জাহিদ


হাফিজুর রহমান, টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে এসএসসি পরীক্ষার্থী এক স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় ৩ মাতাব্বরকে আটক করেছে ধনবাড়ী থানা পুলিশ। 

আটকৃতদের বৃহস্পতিবার ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে প্রেরণ করা হয়েছে।  বিজ্ঞ আদালত রিমান্ড না মুঞ্জুর করে ৩ মাতাব্বরকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।  এদিকে ওই স্কুলছাত্রী ৮ নভেম্বর ১৮(বৃহস্পতিবার )আদালতে ২২ ধারায় জাবানবন্দি প্রদান করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। 

ধনবাড়ী থানার এসআই হান্নান ও এসআই ফরহাদ হোসেন  সাংবাদিকদের জানান, বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে গণধর্ষণের এ ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টাকারী ৩ মাতাব্বরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  

গ্রেপ্তারকৃত মাতাব্বরা হলেন ধনাবড়ী পৌর শহরের চালাষ চৌরাস্তা এলাকার মৃত বেলায়েত হোসেনের ছেলে আব্দুর রহমান (৫৮), ধনবাড়ী বাজার এলাকার মোজাম্মেল হকের ছেলে মাজহারুল হক (২৫) ও বন্দ টাকুরিয়া গ্রামের মৃত সোহরাব আলীর ছেলে মো. জালু মিয়া ওরফে জালু ড্রাইবার (৪৫)।  

গ্রেপ্তারকৃত ৩ মাতাব্বরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির করলে বিজ্ঞ আদালত রিমান্ড না মঞ্জুর করে তাদেরকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে বলে এসআই ফরহাদ হোসেন নিশ্চিত করেছেন। 

উল্লেখ্য, গত ২৭ অক্টোবর ওই শিক্ষার্থীকে পরীক্ষার সাজেশন দেয়ার কথা বলে মোবাইলে ডেকে নিয়ে ধনবাড়ী বাগান বাড়ী লিচু বাগান ছাত্রাবাসে নিয়ে ১১ জন  সহপাঠি রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে।  পরদিন সকালে অসুস্থ মেয়েটিকে রক্তাক্ত অবস্থায় গণধর্ষণের এ ঘটনা কাউকে না বলার হুমকী দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।  রক্তাক্ত মেয়েটি বাসায় গিয়ে তার বাবা-মায়ের কাছে পুরো ঘটনাটি খুলে বলে। 

বিষয়টি জানাজানি হলে প্রভাবশালী কতিপয় মাতাব্বর ঘটনাটি মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে এবং বাবা-মাকে জিম্মি করে অসুস্থ মেয়েটিকে ময়মনসিংহের একটি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা প্রদান করে।  পরবর্তীতে ধামাচাপা দিতে ব্যর্থ হলে গত বুধবার পুলিশ পাহারায় ধনবাড়ী থানায় গিয়ে ওই স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ১১ ধর্ষকসহ ১৬ জনকে আসামী করে ধর্ষণ মামলা করেন। 

এ ঘটানায় ৩ মাতাব্বরকে গ্রেপ্তার করলেউ এখনো মূঔু যারা ধর্ষণকারী তাদের  কাউকে  গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।  স্থানীয়রা জানান, এ ঘটনায় অনতিবিলম্বে ধর্ষণকারীসহ দোষীদের কে গ্রেপ্তার করে উপযুক্ত শাস্তি দিয়ে এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে টাঙ্গাইল পুলিশ সুপুার সহ প্রশাসনের  উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে জোর দাবী জানিয়েছে। 

এ ব্যাপারে ধনবাড়ী থানার ওসি মজিবর রহমান বলেন, গণধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টাকারী ৩ মাতাব্বরকে গ্রেপ্তার  করা হয়েছে।  বাকী আসামীদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 



keya