৫:৪০ এএম, ১২ জুলাই ২০২০, রোববার | | ২১ জ্বিলকদ ১৪৪১




রাঙামাটিতে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে একটি পরিবার

৩০ নভেম্বর -০০০১, ১২:০০ এএম | মোহাম্মদ হেলাল


 

এম.কামাল উদ্দিন, রাঙামাটি : রাঙামাটিতে প্রতিপক্ষের অত্যাচারে অতিষ্ঠ একটি পরিবার।  নানা হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন পরিবারটির লোকজন। 

প্রতিপক্ষীয়রা বসতঘর ভেঙে দেয়ায় বর্তমানে বাড়িঘর ছাড়া হয়ে চরম মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে তাদেরকে। 

শহরের ভেদভেদী এলাকার পুলিশ ফাঁড়ির চেকপোস্ট সংলগ্ন দীর্ঘ ত্রিশ বছর ধরে বসবাসরত পরিবারটির অসহায় লোকজন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগের বর্ণনা দিয়েছেন। 

জানা যায়, ওই এলাকায় বসতবাড়ির জায়গা নিয়ে বিরোধে জড়িয়ে বিবাদমান দুই পরিবার।  এ নিয়ে মামলা গড়িয়েছে উচ্চ আদালত পর্যন্ত।  পাশাপাশি আপস-মীমাংসার চেষ্টাও চলে।  কিন্তু তালগাছটি হতে হবে বিটু কান্তি দে এর- এমনটার মনোভাবের কারণে তাদের আক্রোসের রসানলে মানবেতর জীবন কাটাতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন মৃত বিমল সেনের পরিবারের সদস্যরা।  তারা অভিযোগ করেন, প্রতিপক্ষের হামলা, মামলা, ভয়ভীতি ও হুমকিতে অসহায় হয়ে বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায়।  বাড়িঘর হারিয়ে জীবনযাপন করতে হচ্ছে মানবেতর অবস্থায়। 

মৃত বিমল সেনের ছেলে বাবু সেন ও তার ছোট বোন অন্তরা সেন বলেন, তাদের পিতা ৩০ বছর আগে ওই জায়গায় বসবাস শুরু করেন। 

জীবদ্দশায় অনেক আগে ভিটেমাটির ৮ শতক জায়গা বন্দোবস্তির জন্য আবেদন করেছিলেন।  গত বছর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।  বাবার মৃত্যুর পর প্রতিবেশী প্রভাবশালী বিটু কান্তি দে, তার ভাই চাকরিচ্যুত সেনা সদস্য করুণ কান্তি দে, অরুণ কান্তি দে, তরুণ কান্তি দে টাকা ও পেশিশক্তির জোরে তাদের পৈত্রিক ভিটেমাটি দখলে নিতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে।  টাকার জোরে এবং নানা প্রভাবে সবকিছু তাদের পক্ষে করে নিয়েছে প্রতিপক্ষীয় বিটু কান্তি দে এর পরিবার। 

বাবু সেন ও অন্তরা সেন বলেন, বিটু কান্তি দে পেশায় অটোরিকশা চালক।  কিন্তু টাকার জোরে তার অনেক প্রভাব।  তার ভাই করুণ কান্তি দে চাকরিচ্যুত হয়েও সেনাবাহিনী এবং থানা-পুলিশের ভয় দেখায়।  ভিটেমাটি ছেড়ে দিতে হুমকি দেয়।  কেবল বিটু কান্তি দে’এর নামে ৬ শতক জায়গা রেকর্ডীয় আছে। 

আপসেও তা নিজেই স্বীকার করেছে।  কিন্তু তারপরও আমাদের ভিটেমাটি দখলে নিতে মরিয়া তারা।  জজকোটে নিজেরাই মামলা দিয়েছে, অথচ আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছেন আদালত।  এরপরও হাইকোর্টে আপিল করে তারা।  আপিলটি বিচারাধীন।  অথচ এরমধ্যেই সম্প্রতি দলবল নিয়ে আমাদের নতুন তৈরি ঘরটি ভেঙে গুড়িয়ে দিয়েছে।  এ পর্যন্ত দফায় দপায় আমাদের ওপর হামলা করেছে।  সব সময় হুমকি দিচ্ছে জায়গা ছেড়ে।  বর্তমানে আমরা চরম নিরাপত্তাহনতায়।  ঘরবাড়ি ভেঙে দেয়ায় মানবেতর জীবন কাটাতে হচ্ছে।  কিন্তু সুষ্ঠু বিচার কোথাও পাচ্ছি না।  থানা-পুলিশ তাদের পক্ষে। 

এ ব্যাপারে রাঙ্গামাটি কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রশীদ বলেন, জায়গা নিয়ে ওই দুই পরিবারের বিরোধের জের ধরে আদালতে করা মামলা বিচারাধীন রয়েছে।  কাজেই আদালতের বাইরে কিছুই করার ক্ষমতা নেই।  তবে শান্তিশৃংখলা বজায় রাখতে থানা থেকে একটি সতর্কীকরণ নোটিশ জারি করা হয়েছে। 

অপরপক্ষ বিটু কান্তি দে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, অন্তরা সেন তার পরিবার আমার দখলীয় জায়গা তাদের দখলে নিতে নানামুখি ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।  আমরা হাইকোর্টে মামলা করেছি। 

সম্পাদনায় - নিশি / এসএনএন২৪.কম


keya