৮:৪৭ এএম, ২২ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন মেনে সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত ছবি ‘দেবী’ টিভি প্রিমিয়ার করা হউক

১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯:০৩ পিএম | জাহিদ


 এসএনএন২৪.কম : গত ১৯ অক্টোবর ২০১৮ থেকে বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত ও জয়া আহসান প্রযোজিত ‘দেবী’’-র প্রদর্শনী শুরু হলেও ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ও এর বিধিমালার এই সুস্পষ্ট নির্দেশনাগুলো মানা হয়নি।  শুধু তাই নয়, সরাসরি একটি বহুজাতিক কোম্পানির সিগারেট ব্যবহার করতে দেখানো হয়েছে। 

উল্লেখ্য, চলচ্চিত্রটিতে বহুবার ধূমপানের দৃশ্য এবং নিজস্ব মনগড়া সর্তকবাণী ব্যবহার করা হয়।  তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ থাকার পরও এবার আগামী ১৩ ও ১৪ ফেব্রুয়ারীতে মাছরাঙ্গা  স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল ও বায়োস্কোপ অনলাইন স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মে ‘দেবী’ চলচ্চিত্রের ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হতে যাচ্ছে। 

এর প্রেক্ষিতে আজ ১০ ফেব্রুয়ারী, বেলা ১১ টায় জহুর হোসেন চৌধুরী হল, জাতীয় প্রেস ক্লাবে একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করেছে তামাক বিরোধী সংগঠনগুলো । 

প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব এবং বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যুরো অব ইকোনমিক রিসার্স-এর তামাক নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের উপদেষ্টা  মোহাম্মদ রুহুল কুদ্দুস।   প্রধান অতিথি বলেন, তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন মেনে, তামাক কোম্পানির বিজ্ঞাপন না করে সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত ছবি ‘দেবী’ টেলিভিশন প্রিমিয়ার করা হউক এবং নতুন প্রজন্ম ও যুব সমাজকে ধূমপান থেকে রক্ষা করুন। 

‘দেবী’ সিনেমায় মিসির আলির যেমন চিত্রায়ন হয়েছে, তেমনটা মিসির আলির চরিত্র অনুসরণ করা হলে অসংখ্য কিশোর ও তরুণভক্তরা ধূমপানকে একটি অবিচ্ছেদ্য অনুষঙ্গ হিসেবে ধরে নিতে পারেন, যা বাংলাদেশের জনস্বাস্থ্যকে চরম ঝুঁকিতে ফেলবে। 

২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত জাতি গড়ার সুস্পষ্ট লক্ষ নিয়ে এগোতে থাকা বাংলাদেশের এখনই দরকার এই বিষয়ে সচেতন হওয়া।  ‘দেবী’ চলচ্চিত্রটি আইন মেনে প্রদর্শনে বাধ্য করার পাশাপাশি ভবিষ্যতে সিনেমা, নাটক ও প্রামাণ্যচিত্রে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারের দৃশ্য বর্জনের দাবিতে ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, এসিডি, ইপসা, ব্যুরো অব ইকনোমিক রিসার্চ, ডব্লিউবিবি ট্রাস্ট, নাটাব, প্রত্যাশা, টিসিআরসি, তাবিনাজ, সুপ্র, বিটা, গ্রাম বাংলা উন্নয়ন কমিটি, বিসিসিপি, এইড ফাউন্ডেশন, প্রজ্ঞাসহ বিভিন্ন তামাকবিরোধী সংগঠন। 

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন অধ্যাপক ডা: সোহেল রেজা চৌধুরী, এবং অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের সহকারী পরিচালক ও তামাক নিয়ন্ত্রণ প্রকল্প সমন্বয়কারী মো: মোখলেছুর রহমান।  আরো উপস্থিত ছিলেন, প্রতাশার মো: হেলাল আহমেদ,  টোব্যাকো কন্ট্রোল এন্ড রিসার্স সেন্টার এর বজলুর রহমান, তামাক বিরোধী নারী জোটের (তাবিনাজ) এর প্রকল্প সমন্বয়কারী সাইদা আক্তার, প্রজ্ঞা-র ডিরেক্টর মো: মনোয়ার হোসেন সহ অনেকে।