৮:৫০ এএম, ২২ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




নান্দাইলে অগ্রণী ব্যাংক ম্যানেজারের বিরুদ্ধে অনিয়ম দূর্নীতির অভিযোগ

১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৫:১৪ পিএম | জাহিদ


মো.শাহজাহান ফকির, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) : ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার কালীগঞ্জ বাজার শাখা অগ্রণী ব্যাংক লি: এর ব্যাবস্থাপক আব্দুল্লাহ আল মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতি ও গ্রাহকদের সাথে খারাপ আচরণের অভিযোগ এনে রাজগাতী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আলিম উদ্দিন, কালীগঞ্জ বাবুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক মো. আব্দুস সালাম, বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বরুণ পাল, অনুপাল, বিমল পাল, আব্দুল কাইয়ূম মেম্বার, ফজলুল হক মহাজন সহ ৩০/৩৫জন ব্যবসায়ী ও ব্যাংক গ্রাহক অগ্রণী ব্যাংক লি: ময়মনসিংহ অ লের ডিজিএম বরাবর লিখিত স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। 

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, উক্ত ব্যাবপস্থাপক বিগত ২৫/০১/২০১৮ তারিখে অত্র ব্যাংকে যোগদান করার পর থেকে ব্যাংকের গ্রাহকদের সাথে দূব্যবহার, অসদ আচারণ, উৎকোচের মাধ্যমে কৃষি ঋণ বিতরণ, বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতা প্রাপ্ত কার্ডধারীদের সাথে সীমাহীন খারাপ আচরণ করে যাচ্ছে। 

বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী কার্ডধারীদের ভাতা থেকে ঋণের টাকা জোড় করে কেটে রেখে দিচ্ছেন।  কাশীনগর গ্রামের পঙ্গু ভাতা প্রাপ্ত মো. সিদ্দিক মিয়া কার্ড নং ২০৩৫/১, ফরিদা কান্দা গ্রামের পঙ্গু মো. দুলাল ভূইয়া কার্ড নং ২১৩১ ব্যক্তিদের ভাতা আটক রেখেছেন।  উপরোক্ত বিষয়ে রাজগাতী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. রুকন উদ্দিনের ব্যাংক ম্যানেজারের সাথে দেখা করে প্রতিবন্ধীর ভাতা দেওয়ার সুপারিশ করলে উক্ত ম্যানেজার তাঁর সাথে খারাপ আচরণ করেন এবং চেয়ারম্যান, মেম্বারদের কোন প্রকার সুপারিশ নিয়ে ব্যাংকে আসতে নিষেধ করেন। 

অপরদিকে ৫নং ওয়ার্ড কাশীনগর গ্রামের মো. ফজলুর রহমান ভূমিহীন হলেও উৎকোচের বিনিময়ে তাকে ব্যাংক থেকে ২৫ হাজার টাকা ঋণ প্রদান করা হয়েছে অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে।  মাদ্রাসার শিক্ষক আব্দুস সালামকেও ব্যাংক ম্যানেজার ব্যাংকে আসতে নিষেধ প্রদান করেন।  উল্লেখিত অভিযোগের বিষয়ে ব্যাংক ব্যবস্থাপক মো. আব্দুল্লাহ আল মোহাম্মদ আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অনেক বয়স্ক ও বিধবা কার্ডধারীর নামে উক্ত ব্যাংকে ঋণ রয়েছে।  আমি ঋণ আদায়ের জন্য তাদেরকে চাপ দিয়েছি কিন্তুু টাকা কেটে রাখি নাই। 

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে উক্ত বিষয়ে আমার সামান্য কথাকাটি হয়েছিলো যা স্থানীয়ভাবে ফয়সালা করা হয়েছে।  ঋণ প্রদানের মাধ্যমে উৎকোচ গ্রহনের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।  অপরদিকে অভিযোগকারী সহ এলাকাবাসী ব্যাংকের সার্বিক স্বার্থে উল্লেখিত বিষয়ে তদন্ত সহ ব্যাংক ম্যানেজারের বদলীর দাবী জানান।